বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৪:৩৪
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, December 5, 2016 11:17 pm
A- A A+ Print

রৌমারীতে ভারত থেকে আসা হাতির পালের হামলা

photo-1480950321

কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার সীমান্তবর্তী অন্তত ২০ গ্রামের ঘরবাড়ি ও ফসলি জমিতে হামলা চালিয়েছে ভারত থেকে আসা বন্য হাতির পাল। গ্রামগুলোর অধিকাংশ মানুষ দুদিন ধরে আগুন জ্বালিয়ে ও ঢাক-ঢোল পিটিয়ে হাতি তাড়ানোর চেষ্টা করছে। ভারত সীমান্ত এলাকার স্থানীয় একাধিক বাংলাদেশি জানান, ভারতের গারো পাহাড় থেকে ১৫টি বন্য হাতি গত শনিবার রাতের কোনো একসময় সীমান্তের ১০৬৭ আন্তর্জাতিক সীমানা পিলারের পাশ দিয়ে রৌমারীতে প্রবেশ করে। এ সময় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) কাঁটাতারের গেট খুলে দেয়। এর পর থেকে হাতির পাল বাংলাদেশিদের জমির ফসল ও বাড়িঘরের ক্ষতি করে চলেছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রৌমারী সদর, জাদুরচর ও শৌলমারী ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী অন্তত ২০টি গ্রামের মানুষ বন্য হাতির আতঙ্কে দিন পার করছে। এসব এলাকার ফসল ও বসত-বাড়িসহ জানমালের ক্ষতির আশঙ্কায় দুদিন ধরে রাতভর আগুন জ্বালিয়ে ও ঢাক-ঢোল পিটিয়ে হাতি তাড়ানোর চেষ্টা করছে এলাকাবাসী। কিন্তু তাতেও কোনো কাজ হচ্ছে না। হাতির দলটি সন্ধ্যার পর বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে ধান, সরিষা, কালাইসহ চরাঞ্চলের বিভিন্ন ফসলের ক্ষতি করছে। এ বিষয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) পক্ষ থেকে বিএসএফকে জানানোর পরও তারা কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। হাতির দলটি বর্তমানে শৌলমারী ইউনিয়নের নতুন শৌলমারী গ্রামের সীমান্তে বাংলাদেশের প্রায় ১০০ গজ অভ্যন্তরে অবস্থান করছে। এতে বসতবাড়ি ও জানমালের ক্ষতির আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে বন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন বলেন, ‘আমরা হাতির দলটিকে ভারতের পাহাড়ে ফেরত পাঠাতে বিভিন্ন রকমের চেষ্টা করছি। কিন্তু উৎসুক লোকের ভিড়ের কারণে তা সম্ভব হচ্ছে না। তা ছাড়া বন বিভাগ রংপুর রেঞ্জে হাতি তাড়ানোর প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কোনো লোক না থাকায় নিজেরাই চেষ্টা করছি। আমরা বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করেছি।’ রৌমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ বি এম সাজেদুল ইসলাম বলেন, ‘ভারতের বন্য হাতির দলটি যাতে জানমালের ক্ষতি করতে না পারে সে জন্য আমরা ওই এলাকায় পুলিশ ও চৌকিদার পাঠিয়েছি। তারা সর্বক্ষণ দায়িত্ব পালন করছে।’

Comments

Comments!

 রৌমারীতে ভারত থেকে আসা হাতির পালের হামলাAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

রৌমারীতে ভারত থেকে আসা হাতির পালের হামলা

Monday, December 5, 2016 11:17 pm
photo-1480950321

কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার সীমান্তবর্তী অন্তত ২০ গ্রামের ঘরবাড়ি ও ফসলি জমিতে হামলা চালিয়েছে ভারত থেকে আসা বন্য হাতির পাল। গ্রামগুলোর অধিকাংশ মানুষ দুদিন ধরে আগুন জ্বালিয়ে ও ঢাক-ঢোল পিটিয়ে হাতি তাড়ানোর চেষ্টা করছে।

ভারত সীমান্ত এলাকার স্থানীয় একাধিক বাংলাদেশি জানান, ভারতের গারো পাহাড় থেকে ১৫টি বন্য হাতি গত শনিবার রাতের কোনো একসময় সীমান্তের ১০৬৭ আন্তর্জাতিক সীমানা পিলারের পাশ দিয়ে রৌমারীতে প্রবেশ করে। এ সময় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) কাঁটাতারের গেট খুলে দেয়। এর পর থেকে হাতির পাল বাংলাদেশিদের জমির ফসল ও বাড়িঘরের ক্ষতি করে চলেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রৌমারী সদর, জাদুরচর ও শৌলমারী ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী অন্তত ২০টি গ্রামের মানুষ বন্য হাতির আতঙ্কে দিন পার করছে। এসব এলাকার ফসল ও বসত-বাড়িসহ জানমালের ক্ষতির আশঙ্কায় দুদিন ধরে রাতভর আগুন জ্বালিয়ে ও ঢাক-ঢোল পিটিয়ে হাতি তাড়ানোর চেষ্টা করছে এলাকাবাসী। কিন্তু তাতেও কোনো কাজ হচ্ছে না। হাতির দলটি সন্ধ্যার পর বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে ধান, সরিষা, কালাইসহ চরাঞ্চলের বিভিন্ন ফসলের ক্ষতি করছে। এ বিষয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) পক্ষ থেকে বিএসএফকে জানানোর পরও তারা কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

হাতির দলটি বর্তমানে শৌলমারী ইউনিয়নের নতুন শৌলমারী গ্রামের সীমান্তে বাংলাদেশের প্রায় ১০০ গজ অভ্যন্তরে অবস্থান করছে। এতে বসতবাড়ি ও জানমালের ক্ষতির আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী।

এ ব্যাপারে বন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন বলেন, ‘আমরা হাতির দলটিকে ভারতের পাহাড়ে ফেরত পাঠাতে বিভিন্ন রকমের চেষ্টা করছি। কিন্তু উৎসুক লোকের ভিড়ের কারণে তা সম্ভব হচ্ছে না। তা ছাড়া বন বিভাগ রংপুর রেঞ্জে হাতি তাড়ানোর প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কোনো লোক না থাকায় নিজেরাই চেষ্টা করছি। আমরা বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করেছি।’

রৌমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ বি এম সাজেদুল ইসলাম বলেন, ‘ভারতের বন্য হাতির দলটি যাতে জানমালের ক্ষতি করতে না পারে সে জন্য আমরা ওই এলাকায় পুলিশ ও চৌকিদার পাঠিয়েছি। তারা সর্বক্ষণ দায়িত্ব পালন করছে।’

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X