মঙ্গলবার, ২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১২:০৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, May 1, 2017 1:18 pm
A- A A+ Print

লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে চালের দাম

15

ঢাকা: বাজারে নতুন চাল আসতে শুরু করলেও কমছে না চালের দাম। গত দুই সপ্তাহের ব্যবধানেই কেজিতে দাম বেড়েছে আট থেকে দশ টাকা। ফলে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েই চলেছে চালের দাম। রাজধানীর জিগাতলা, নিউমার্কেটসহ বেশ কয়েকটি চালের মার্কেট ঘুরে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্যই পাওয়া যায়। চালের দাম বৃদ্ধির ফলে নিম্ন আয়ের মানুষ চাল কিনতে হিমশিম খাচ্ছেন। ধারণা করা হচ্ছে, হাওর অঞ্চলের বোরো ফসল তলিয়ে যাওয়ায় চালের বাজারে এর প্রভাব পড়ছে। চালের দাম অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধির কারণ হিসেবে মিল মালিকদের কারসাজিকেও দায়ী করছেন খুচরা ও পাইকারি ব্যবসায়ীরা। এছাড়া খুচরা বিক্রেতাদের অভিযোগ, পাইকারি ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কারণে দাম বেড়েছে। কিছু ব্যবসায়ী চাল মজুদ করে বাজারে চালের কৃত্রিম সংকট তৈরি করেছেন। আর এতে করে সিন্ডিকেটের কাছে চলে যাচ্ছে মোটা অঙ্কের টাকা। তবে মিল মালিকরা এসবের জন্য দায়ী করেছেন সরকারের অব্যবস্থাপনাকে। রাজধানীর চালের খুচরা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সপ্তাহের ব্যবধানে মোটা চালের দাম ৮ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে। আর গুটি, স্বর্ণা, পারিজাসহ প্রায় সব ধরনের চালের দাম কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা করে বেড়েছে। বাজারে স্বর্ণা প্রতি কেজি ৪০ থেকে ৪১ টাকা, পারিজা ও বিরি-আটাশ ৪০ থেকে ৪২, ঊনত্রিশ ও আটাশ ৪২ থেকে ৪৩, মিনিকেট ৫০ থেকে ৫২, নাজিরশাইল ৫৩ থেকে ৫৫ এবং বাসমতী ৫৪ থেকে ৫৬ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। আর যারা পোলাওয়ের চাল নিতে চান, তাদের প্রতি কেজিতে গুনতে হচ্ছে ৯৫ থেকে ১০০ টাকা। রাজধানীর চালের পাইকারি বাজার বাবুবাজারে স্বর্ণা ও পারিজা বস্তাপ্রতি (৫০ কেজি) এক হাজার ৮০০ টাকা, ঊনত্রিশ ও আটাশ বস্তাপ্রতি এক হাজার ৯৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। সে হিসেবে পাইকারি বাজার থেকে খুচরা বাজারে কেজিপ্রতি দামের পার্থক্য ঊনত্রিশ ও আটাশ চার টাকা আর স্বর্ণা ও পারিজা পাঁচ টাকা। শান্তিনগর বাজারের চাল ব্যবসায়ী তারেক বলেন, ‘পাইকারি বাজার থেকে আমাদের চার থেকে পাঁচ টাকা বেশি দরে বিক্রি করতে হয়। কারণ, কেরিং খরচ, দোকান ভাড়া এবং কর্মচারীদের বেতন হিসাব করলে আমাদের তেমন একটা থাকে না। এর মধ্যেই আমাদের ব্যবসা করতে হয়।’ বাবুবাজারের পাইকারি ব্যবসায়ী নিজাম উদ্দিন জানান, চালের বাজার এখন স্থিতিশীল আছে। এখানে মোটা চাল ৩৬ টাকা কেজি দরে পাইকারি বিক্রি হচ্ছে। ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যে চালের দাম কমে আসবে। এ সময়ের মধ্যে নতুন চাল বাজারে আসতে শুরু করবে। আরামবাগ বাজারে কথা হয় চাল ক্রেতা বেসরকারি চাকরিজীবী হালিমের সঙ্গে। তিনি জানান, সরকার বলছে, পর্যাপ্ত চালের মজুদ আছে। তাহলে কয়েক মাস থেকে চালের বাজার অস্থির কেন? তিনি চালের বাজার মনিটর করার দাবি জানান। শান্তিনগর বাজারের খুচরা চাল বিক্রেতা শাহ আলম বলেন, ‘কিছু অসাধু ব্যবসায়ীর কারণে চালের দাম বেড়েছে, যারা সিন্ডিকেটের মাধ্যমে চালের বাজারটাকে জিম্মি করে রাখে।’ এ বিষয়ে বাংলাদেশ অটো মেজর অ্যান্ড হাসকিং ওনার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কে এম লায়েক আলী বলেন, ‘দেশে চালের দাম বাড়ার কোনো প্রশ্নই ওঠে না। মিল এলাকায় কোনো ধরনের চালের দাম বাড়েনি বরং প্রতি কেজিতে ৫০ পয়সা কমেছে।’ খুচরা বিক্রেতারা প্রতি কেজিতে চার থেকে সাত টাকা বেশি দরে ক্রেতার কাছে বিক্রি করছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। লায়েক আলী বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে মন্ত্রী মহোদয়কে বলেছিলাম যে, আপনাদের ভোক্তা অধিদপ্তর ও অনেক এক্সপার্ট (দক্ষ) আছে, এরা কখনো বাজার মনিটরিং করে না। তারা যদি দেখত চালের মিলে, আড়ত এবং খুচরা বাজারে কোথায় কত টাকা দরে চাল বিক্রি হচ্ছে, তা হলে আসল সমস্যার সমাধান হতো।’ সিন্ডিকেটে ব্যবসায়ীদের কারসাজিতে যখন চালের বাজার অস্থির, তখন তাদের পক্ষেই সাফাই গাইলেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (রপ্তানি) জহির উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘আমরা প্রতিনিয়ত বাজার মনিটর করছি। মোটা চালসহ আন্যান্য চালের দাম বেড়েছে। এখন দাম বাড়লে কৃষকরা পাবে না। মুক্তবাজার অর্থনীতিতে সরকার কোনো কিছু নিয়ন্ত্রণ করে না।’ মনিটরিংয়ের কাজ কী-এমন প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেননি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এই সচিব।

Comments

Comments!

 লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে চালের দামAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে চালের দাম

Monday, May 1, 2017 1:18 pm
15

ঢাকা: বাজারে নতুন চাল আসতে শুরু করলেও কমছে না চালের দাম। গত দুই সপ্তাহের ব্যবধানেই কেজিতে দাম বেড়েছে আট থেকে দশ টাকা। ফলে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েই চলেছে চালের দাম।

রাজধানীর জিগাতলা, নিউমার্কেটসহ বেশ কয়েকটি চালের মার্কেট ঘুরে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্যই পাওয়া যায়।

চালের দাম বৃদ্ধির ফলে নিম্ন আয়ের মানুষ চাল কিনতে হিমশিম খাচ্ছেন।

ধারণা করা হচ্ছে, হাওর অঞ্চলের বোরো ফসল তলিয়ে যাওয়ায় চালের বাজারে এর প্রভাব পড়ছে। চালের দাম অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধির কারণ হিসেবে মিল মালিকদের কারসাজিকেও দায়ী করছেন খুচরা ও পাইকারি ব্যবসায়ীরা।

এছাড়া খুচরা বিক্রেতাদের অভিযোগ, পাইকারি ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কারণে দাম বেড়েছে। কিছু ব্যবসায়ী চাল মজুদ করে বাজারে চালের কৃত্রিম সংকট তৈরি করেছেন। আর এতে করে সিন্ডিকেটের কাছে চলে যাচ্ছে মোটা অঙ্কের টাকা। তবে মিল মালিকরা এসবের জন্য দায়ী করেছেন সরকারের অব্যবস্থাপনাকে।

রাজধানীর চালের খুচরা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সপ্তাহের ব্যবধানে মোটা চালের দাম ৮ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে। আর গুটি, স্বর্ণা, পারিজাসহ প্রায় সব ধরনের চালের দাম কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা করে বেড়েছে।

বাজারে স্বর্ণা প্রতি কেজি ৪০ থেকে ৪১ টাকা, পারিজা ও বিরি-আটাশ ৪০ থেকে ৪২, ঊনত্রিশ ও আটাশ ৪২ থেকে ৪৩, মিনিকেট ৫০ থেকে ৫২, নাজিরশাইল ৫৩ থেকে ৫৫ এবং বাসমতী ৫৪ থেকে ৫৬ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। আর যারা পোলাওয়ের চাল নিতে চান, তাদের প্রতি কেজিতে গুনতে হচ্ছে ৯৫ থেকে ১০০ টাকা।

রাজধানীর চালের পাইকারি বাজার বাবুবাজারে স্বর্ণা ও পারিজা বস্তাপ্রতি (৫০ কেজি) এক হাজার ৮০০ টাকা, ঊনত্রিশ ও আটাশ বস্তাপ্রতি এক হাজার ৯৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। সে হিসেবে পাইকারি বাজার থেকে খুচরা বাজারে কেজিপ্রতি দামের পার্থক্য ঊনত্রিশ ও আটাশ চার টাকা আর স্বর্ণা ও পারিজা পাঁচ টাকা।

শান্তিনগর বাজারের চাল ব্যবসায়ী তারেক বলেন, ‘পাইকারি বাজার থেকে আমাদের চার থেকে পাঁচ টাকা বেশি দরে বিক্রি করতে হয়। কারণ, কেরিং খরচ, দোকান ভাড়া এবং কর্মচারীদের বেতন হিসাব করলে আমাদের তেমন একটা থাকে না। এর মধ্যেই আমাদের ব্যবসা করতে হয়।’

বাবুবাজারের পাইকারি ব্যবসায়ী নিজাম উদ্দিন জানান, চালের বাজার এখন স্থিতিশীল আছে। এখানে মোটা চাল ৩৬ টাকা কেজি দরে পাইকারি বিক্রি হচ্ছে। ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যে চালের দাম কমে আসবে। এ সময়ের মধ্যে নতুন চাল বাজারে আসতে শুরু করবে।

আরামবাগ বাজারে কথা হয় চাল ক্রেতা বেসরকারি চাকরিজীবী হালিমের সঙ্গে। তিনি জানান, সরকার বলছে, পর্যাপ্ত চালের মজুদ আছে। তাহলে কয়েক মাস থেকে চালের বাজার অস্থির কেন? তিনি চালের বাজার মনিটর করার দাবি জানান।

শান্তিনগর বাজারের খুচরা চাল বিক্রেতা শাহ আলম বলেন, ‘কিছু অসাধু ব্যবসায়ীর কারণে চালের দাম বেড়েছে, যারা সিন্ডিকেটের মাধ্যমে চালের বাজারটাকে জিম্মি করে রাখে।’

এ বিষয়ে বাংলাদেশ অটো মেজর অ্যান্ড হাসকিং ওনার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কে এম লায়েক আলী বলেন, ‘দেশে চালের দাম বাড়ার কোনো প্রশ্নই ওঠে না। মিল এলাকায় কোনো ধরনের চালের দাম বাড়েনি বরং প্রতি কেজিতে ৫০ পয়সা কমেছে।’

খুচরা বিক্রেতারা প্রতি কেজিতে চার থেকে সাত টাকা বেশি দরে ক্রেতার কাছে বিক্রি করছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

লায়েক আলী বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে মন্ত্রী মহোদয়কে বলেছিলাম যে, আপনাদের ভোক্তা অধিদপ্তর ও অনেক এক্সপার্ট (দক্ষ) আছে, এরা কখনো বাজার মনিটরিং করে না। তারা যদি দেখত চালের মিলে, আড়ত এবং খুচরা বাজারে কোথায় কত টাকা দরে চাল বিক্রি হচ্ছে, তা হলে আসল সমস্যার সমাধান হতো।’

সিন্ডিকেটে ব্যবসায়ীদের কারসাজিতে যখন চালের বাজার অস্থির, তখন তাদের পক্ষেই সাফাই গাইলেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (রপ্তানি) জহির উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘আমরা প্রতিনিয়ত বাজার মনিটর করছি। মোটা চালসহ আন্যান্য চালের দাম বেড়েছে। এখন দাম বাড়লে কৃষকরা পাবে না। মুক্তবাজার অর্থনীতিতে সরকার কোনো কিছু নিয়ন্ত্রণ করে না।’ মনিটরিংয়ের কাজ কী-এমন প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেননি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এই সচিব।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X