বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ভোর ৫:১৭
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, July 29, 2016 12:08 am
A- A A+ Print

সংখ্যালঘু হিন্দুদের সেরা কলেজে পড়ার সুযোগ দেবে ভারত

160728153250_engineering_college_hyderabad_640x360_gettyimages_nocredit

ডেস্ক রিপোর্ট: বিবিসি বলছে, বাংলাদেশ ও পাকিস্তান থেকে ভারতে আসা সংখ্যালঘু হিন্দুদের ছেলেমেয়েরা যাতে দেশের সেরা মেডিক্যাল ও ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজগুলোতে ভর্তির সুযোগ পায়, তার জন্য বিশেষ কোটার কথা ঘোষণা করেছে ভারত সরকার।

প্রতিবেশী দেশ থেকে আসা ‘নির্যাতিত ধর্মীয় সংখ্যালঘু’দের জন্য ভারত যে একের পর এক নতুন সুযোগসুবিধার কথা ঘোষণা করছে, এই মেডিক্যাল ও ইঞ্জিনিয়ারিং কোটা তাতে সবশেষ সংযোজন। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এই কোটায় যারা আবেদন করবেন তাদের কোনও প্রবেশিকা পরীক্ষায় বসতে হবে না – তারা শুধু ১০+২ স্তরের পরীক্ষায় যে ফল করেছেন তার ভিত্তিতেই এই সব কলেজে ভর্তি হতে পারবেন। এই শিক্ষাবর্ষে শুধু অবশ্য মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কলেজগুলোতেই ভর্তির সুযোগ মিলবে, ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে ভর্তির সুযোগ পাওয়া যাবে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষ থেকে। সরকার বলছে, বাংলাদেশ ও পাকিস্তান থেকে আসা হিন্দুদের জন্য ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয় মিলে এই বিশেষ কোটার ব্যবস্থা করেছে। ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে এই সব ‘নির্যাতিত সংখ্যালঘু’দের ছেলেমেয়েরা যে সব মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হতে পারবেন, তার মধ্যে দেশের সেরা চিকিৎসা-কেন্দ্র হিসেবে স্বীকৃত দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেস বা এইমস-ও রয়েছে।
এইমস ছাড়াও এই তালিকায় লেডি হার্ডিঞ্জ মেডিক্যাল কলেজ, সফদরজং হাসপাতাল-সহ মোট কুড়িটি মেডিক্যাল কলেজ ও দুটি ডেন্টাল কলেজও আছে। এর প্রায় প্রতিটিতেই ভর্তির জন্য ভারতীয় ছাত্রছাত্রীদের খুব কঠিন প্রবেশিকা পরীক্ষায় বসতে হয় – লক্ষ লক্ষ ছাত্রছাত্রী এই পরীক্ষা দিলেও মাত্র কয়েকশোজনই শেষ পর্যন্ত ভর্তির সুযোগ পান। কিন্তু বাংলাদেশ বা পাকিস্তানের হিন্দু – সেই সঙ্গে বৌদ্ধ বা শিখরাও – শুধু নির্দিষ্ট ফর্মে আবেদন করেই সেখানে ভর্তির সুযোগ পেয়ে যেতে পারবেন। তবে ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে মেডিক্যাল কলেজগুলোতে ভর্তি হতে চাইলে আবেদন করতে হবে এ বছরের ১৯শে আগস্টের মধ্যে। ২০১৪-তে ভারতে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে বিজেপি সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দিল্লির ঘোষিত নীতি হল – প্রতিবেশী দেশ থেকে হিন্দু-বৌদ্ধ-শিখরা ধর্মীয় কারণে নির্যাতিত হয়ে ভারতে এলে তারা স্বাগত। ফলে বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে এসে যে হিন্দুরা দীর্ঘ সময় ধরে ভারতে থাকছেন তারা এ সুযোগ পাবেন – কিন্তু সেটা বাংলাদেশ বা পাকিস্তান থেকে কোনও মুসলিম নাগরিক এলে তার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না। এমনকী ২০১৪-র ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে যারা এসেছেন তাদের ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়ার কথাও ঘোষণা করেছে সরকার।

Comments

Comments!

 সংখ্যালঘু হিন্দুদের সেরা কলেজে পড়ার সুযোগ দেবে ভারতAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

সংখ্যালঘু হিন্দুদের সেরা কলেজে পড়ার সুযোগ দেবে ভারত

Friday, July 29, 2016 12:08 am
160728153250_engineering_college_hyderabad_640x360_gettyimages_nocredit

ডেস্ক রিপোর্ট: বিবিসি বলছে, বাংলাদেশ ও পাকিস্তান থেকে ভারতে আসা সংখ্যালঘু হিন্দুদের ছেলেমেয়েরা যাতে দেশের সেরা মেডিক্যাল ও ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজগুলোতে ভর্তির সুযোগ পায়, তার জন্য বিশেষ কোটার কথা ঘোষণা করেছে ভারত সরকার।

প্রতিবেশী দেশ থেকে আসা ‘নির্যাতিত ধর্মীয় সংখ্যালঘু’দের জন্য ভারত যে একের পর এক নতুন সুযোগসুবিধার কথা ঘোষণা করছে, এই মেডিক্যাল ও ইঞ্জিনিয়ারিং কোটা তাতে সবশেষ সংযোজন।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এই কোটায় যারা আবেদন করবেন তাদের কোনও প্রবেশিকা পরীক্ষায় বসতে হবে না – তারা শুধু ১০+২ স্তরের পরীক্ষায় যে ফল করেছেন তার ভিত্তিতেই এই সব কলেজে ভর্তি হতে পারবেন।

এই শিক্ষাবর্ষে শুধু অবশ্য মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কলেজগুলোতেই ভর্তির সুযোগ মিলবে, ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে ভর্তির সুযোগ পাওয়া যাবে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষ থেকে।

সরকার বলছে, বাংলাদেশ ও পাকিস্তান থেকে আসা হিন্দুদের জন্য ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয় মিলে এই বিশেষ কোটার ব্যবস্থা করেছে।

২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে এই সব ‘নির্যাতিত সংখ্যালঘু’দের ছেলেমেয়েরা যে সব মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হতে পারবেন, তার মধ্যে দেশের সেরা চিকিৎসা-কেন্দ্র হিসেবে স্বীকৃত দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেস বা এইমস-ও রয়েছে।

এইমস ছাড়াও এই তালিকায় লেডি হার্ডিঞ্জ মেডিক্যাল কলেজ, সফদরজং হাসপাতাল-সহ মোট কুড়িটি মেডিক্যাল কলেজ ও দুটি ডেন্টাল কলেজও আছে।

এর প্রায় প্রতিটিতেই ভর্তির জন্য ভারতীয় ছাত্রছাত্রীদের খুব কঠিন প্রবেশিকা পরীক্ষায় বসতে হয় – লক্ষ লক্ষ ছাত্রছাত্রী এই পরীক্ষা দিলেও মাত্র কয়েকশোজনই শেষ পর্যন্ত ভর্তির সুযোগ পান।

কিন্তু বাংলাদেশ বা পাকিস্তানের হিন্দু – সেই সঙ্গে বৌদ্ধ বা শিখরাও – শুধু নির্দিষ্ট ফর্মে আবেদন করেই সেখানে ভর্তির সুযোগ পেয়ে যেতে পারবেন।

তবে ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে মেডিক্যাল কলেজগুলোতে ভর্তি হতে চাইলে আবেদন করতে হবে এ বছরের ১৯শে আগস্টের মধ্যে।

২০১৪-তে ভারতে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে বিজেপি সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দিল্লির ঘোষিত নীতি হল – প্রতিবেশী দেশ থেকে হিন্দু-বৌদ্ধ-শিখরা ধর্মীয় কারণে নির্যাতিত হয়ে ভারতে এলে তারা স্বাগত।

ফলে বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে এসে যে হিন্দুরা দীর্ঘ সময় ধরে ভারতে থাকছেন তারা এ সুযোগ পাবেন – কিন্তু সেটা বাংলাদেশ বা পাকিস্তান থেকে কোনও মুসলিম নাগরিক এলে তার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না।

এমনকী ২০১৪-র ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে যারা এসেছেন তাদের ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়ার কথাও ঘোষণা করেছে সরকার।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X