রবিবার, ১৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৬ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৩:২০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Saturday, September 24, 2016 10:24 am
A- A A+ Print

সত্যিই যদি যুদ্ধ হয়?

244970_1

উরি সেনা ছাউনিতে জঙ্গি হামলা এবং ১৮ জন সেনার মৃত্যুর পর থেকেই হাওয়ায় খবর, ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ লাগতে চলেছে। সামরিক সক্ষমতার হিসেবে ভারত পাকিস্তানের থেকে এগিয়ে। কিন্তু পাকিস্তানের হাতেও আছে পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্র! ভারতের রাজধানী নতুন দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রীর সদর দপ্তর, প্রশাসনিক ভাষায় ‘সাউথ ব্লক’। সেখানে গোপন এবং সর্বোচ্চ গুরুত্বপূর্ণ সামরিক আলোচনার জন্য যে মন্ত্রণাকক্ষ রয়েছে, চলতি কথায় তার নাম ‘ওয়র রুম’ বা যুদ্ধ কক্ষ। এই ঘরে কোনো আলোচনা হওয়া মানেই, ভারত সরকার কোনো সামরিক পদক্ষেপের কথা চিন্তা-ভাবনা করছে। গত মঙ্গলবার রাতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মনোহর পারিকর, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল প্রায় দেড় ঘণ্টা রুদ্ধদ্বার বৈঠক করলেন সেই ঘরে, দেশের স্থল, নৌ এবং বায়ু সেনার প্রধানদের সঙ্গে। সূত্রের খবর, পাকিস্তানের মানচিত্র খুলে দীর্ঘক্ষণ আলোচনা চলে। প্রধানমন্ত্রী তিন সেনাপ্রধানের কাছে জানতে চান, উরি সেনাঘাঁটিতে পাক জঙ্গি হামলার উচিত জবাব দিতে ভারত এই মুহূর্তে কী কী সামরিক ব্যবস্থা নিতে পারে। প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা খতিয়ে দেখছেন, কী করার আছে ভারতের। তবে সরকার আসলে কী ভাবছে, সেটা যেহেতু বাইরের কারো জানা নেই, পুরোটাই অনুমানের ভিত্তিতে। তবু ধরে নেওয়া হচ্ছে, ভারত ন্যূনতম যে ব্যবস্থা নিতে পারে, সেটা হলো সন্ত্রাসী এবং সন্ত্রাসী সন্দেহভাজনদের বিরুদ্ধে দেশজুড়ে অভিযান চালানো। তার থেকে বেশি যেটা হতে পারে, পাকিস্তান সীমান্ত এলাকায় তীব্র নজরদারি এবং প্রয়োজনে পাকিস্তানের এলাকায় ঢুকে গিয়ে গোপন অভিযান। এছাড়া সর্বোচ্চ পর্যায়ে পাকিস্তানে যেসব জঙ্গি ঘাঁটি রয়েছে, সামরিক বিমান এবং হেলিকপ্টার পাঠিয়ে সরাসরি সেই সব টার্গেটে আঘাত হানা এবং সেক্ষেত্রে পাকিস্তানের প্রতি আক্রমণের জন্য তৈরি থাকা। বলা বাহুল্য, এই তৃতীয় বিকল্প যে কোনো সময় যে দু’দেশের প্রত্যক্ষ সামরিক সংঘর্ষে বদলে যেতে পারে, সেই সম্ভাবনা প্রবল। যে কারণে সমর বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভারতকে খুব সতর্ক পদক্ষেপ করতে হবে। কী হতে পারে সত্যিই ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ হলে? সেই সম্ভাবনা খতিয়ে দেখার আগে দু’দেশের সামরিক ক্ষমতার একটা তুলনা করা যাক। পাকিস্তানের হাতে পাঁচ ধরনের দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র আছে। সবকটিই পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্র বহনে সক্ষম। সবথেকে স্বল্প পাল্লার হলো ‘নাসের’, যা ৬০ কিমি পর্যন্ত দূরে গিয়ে আঘাত করতে পারে। আর সর্বোচ্চ পাল্লার পাকিস্তানি ক্ষেপণাস্ত্র ‘শাহিন-৩’, যার আঘাতের ক্ষমতা ২৭৫০ কিমি পর্যন্ত। অন্যদিকে ভারতেরও আছে পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম পাঁচ ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র। সবথেকে কম পাল্লার হলো ‘পৃথ্বী’, ১৫০ থেকে ৩৫০ কিমি, এবং সবথেকে দূর পাল্লার ‘অগ্নি-৫’, ৫০০০ কিমি। অর্থাৎ ভারতের ক্ষেপণাস্ত্রের মারণক্ষমতা অনেক দূর পর্যন্ত বিস্তৃত। কিন্তু সামরিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যুদ্ধের সময় সবথেকে কার্যকরী ভূমিকা নেবে স্বল্প পাল্লার ‘নাসের’, বিশেষত সীমান্ত এলাকায়। অনেক সময় একটা হাতির থেকে এক ঝাঁক মশার বিক্রম বেশি হয়। ঠিক সেই রকম। পাকিস্তানের পরমাণু অস্ত্রের সংখ্যাও ভারতের থেকে বেশি। ভারতের আছে ৯০ থেকে ১১০টি পরমাণু অস্ত্র, সেখানে পাকিস্তানের ১০০ থেকে ১২০টি। এর বাইরে, ভারতের সামরিক ক্ষমতা প্রতিটি ক্ষেত্রে পাকিস্তানের থেকে অনেকটা বেশি। মোট সৈন্য সংখ্যায়, ট্যাংক, কামান, ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ ব্যবস্থা, যুদ্ধবিমানের সংখ্যায় ভারতই এগিয়ে। বিশেষ করে নৌ-বাহিনীর ক্ষমতায়। পাকিস্তানের থেকে বেশি যুদ্ধজাহাজ, ডুবোজাহাজ তো বটেই, ভারতের আছে সুবিশাল বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ, যা নৌ যুদ্ধে এবং সামগ্রিকভাবে ভারতকে অনেকটাই এগিয়ে রাখবে। এবং ভয়টা সেখানেই, বলছেন সমর কৌশল বিশেষজ্ঞরা। পাকিস্তান যখন ক্ষমতায় পারবে না, যুদ্ধে কোণঠাসা হয়ে পড়বে, তখন হাত চলে যেতে পারে পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্রের বোতামে। ভারত সেই ভয় পাচ্ছে এবং পাকিস্তান সেটা জানে। ফলে তারাও নজর নীচে করছে না। কিন্তু সমস্যা অন্যত্র। ভারতের নাগরিকদের এক বড় অংশের মধ্যে যুদ্ধের জিগির উঠতে শুরু করেছে। উরি হামলার পরই এক হিন্দুত্ববাদী নেতা আওয়াজ তুলেছেন, দাঁতের বদলে দাঁত নয়, পুরো চোয়ালটা খুলে নিতে হবে!‌ এমনিতে সেনাবাহিনী সবসময়ই আলাপ-আলোচনার কূটনীতি নয়, মারের বদলা মারে বিশ্বাসী। উরি সেনা ছাউনিতে ১৮ জন নিরস্ত্র সহযোদ্ধার মৃত্যু তাদেরকে ক্রুদ্ধ করেছে। আজকের এই সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংয়ের যুগে নানা ধরনের বানানো খবর দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ছে। কাশ্মীর সীমান্তে নাকি শয়ে শয়ে ট্যাংক পাঠাচ্ছে সেনাবাহিনী, যে কোনো দিন প্রত্যাঘাত শুরু হবে। সদ্য শোনা গেল, পাকিস্তানে ঢুকে গিয়ে ভারতীয় বিমানবাহিনী নাকি বেশ কিছু জঙ্গিকে ধ্বংস করে বিজয়গর্বে দেশে ফিরে এসেছে!‌ ভারতীয় সংবাদমাধ্যম যদিও খুব বেশি উৎসাহিত নয় এ ধরনের খবরে। তাছাড়া ভারত এমনটা করে থাকলে পাকিস্তান যে চুপ করে বসে থাকতো না, সেটা সকলের জানা। তাই এমন ভুয়া খবরে ক্ষিপ্ত অনেকেই। তবে সাউথ ব্লকের তৎপরতার কথা উঠে এসেছে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে। ওদিকে পেশাওয়ার-ইসলামাবাদ হাইওয়েতে পাকিস্তান সেনাবাহিনী টহলদারি শুরু করেছে এ খবরে গণ উন্মাদনা আরো ইন্ধন পাচ্ছে। ভাবখানা এ রকম, এখন একটা যুদ্ধ লাগলেই যেন দেশের সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে!‌ সূত্র: ডয়চে ভেলে

Comments

Comments!

 সত্যিই যদি যুদ্ধ হয়?AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

সত্যিই যদি যুদ্ধ হয়?

Saturday, September 24, 2016 10:24 am
244970_1

উরি সেনা ছাউনিতে জঙ্গি হামলা এবং ১৮ জন সেনার মৃত্যুর পর থেকেই হাওয়ায় খবর, ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ লাগতে চলেছে। সামরিক সক্ষমতার হিসেবে ভারত পাকিস্তানের থেকে এগিয়ে। কিন্তু পাকিস্তানের হাতেও আছে পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্র!

ভারতের রাজধানী নতুন দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রীর সদর দপ্তর, প্রশাসনিক ভাষায় ‘সাউথ ব্লক’। সেখানে গোপন এবং সর্বোচ্চ গুরুত্বপূর্ণ সামরিক আলোচনার জন্য যে মন্ত্রণাকক্ষ রয়েছে, চলতি কথায় তার নাম ‘ওয়র রুম’ বা যুদ্ধ কক্ষ।

এই ঘরে কোনো আলোচনা হওয়া মানেই, ভারত সরকার কোনো সামরিক পদক্ষেপের কথা চিন্তা-ভাবনা করছে।

গত মঙ্গলবার রাতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মনোহর পারিকর, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল প্রায় দেড় ঘণ্টা রুদ্ধদ্বার বৈঠক করলেন সেই ঘরে, দেশের স্থল, নৌ এবং বায়ু সেনার প্রধানদের সঙ্গে।

সূত্রের খবর, পাকিস্তানের মানচিত্র খুলে দীর্ঘক্ষণ আলোচনা চলে। প্রধানমন্ত্রী তিন সেনাপ্রধানের কাছে জানতে চান, উরি সেনাঘাঁটিতে পাক জঙ্গি হামলার উচিত জবাব দিতে ভারত এই মুহূর্তে কী কী সামরিক ব্যবস্থা নিতে পারে।

প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা খতিয়ে দেখছেন, কী করার আছে ভারতের। তবে সরকার আসলে কী ভাবছে, সেটা যেহেতু বাইরের কারো জানা নেই, পুরোটাই অনুমানের ভিত্তিতে।

তবু ধরে নেওয়া হচ্ছে, ভারত ন্যূনতম যে ব্যবস্থা নিতে পারে, সেটা হলো সন্ত্রাসী এবং সন্ত্রাসী সন্দেহভাজনদের বিরুদ্ধে দেশজুড়ে অভিযান চালানো। তার থেকে বেশি যেটা হতে পারে, পাকিস্তান সীমান্ত এলাকায় তীব্র নজরদারি এবং প্রয়োজনে পাকিস্তানের এলাকায় ঢুকে গিয়ে গোপন অভিযান।

এছাড়া সর্বোচ্চ পর্যায়ে পাকিস্তানে যেসব জঙ্গি ঘাঁটি রয়েছে, সামরিক বিমান এবং হেলিকপ্টার পাঠিয়ে সরাসরি সেই সব টার্গেটে আঘাত হানা এবং সেক্ষেত্রে পাকিস্তানের প্রতি আক্রমণের জন্য তৈরি থাকা।

বলা বাহুল্য, এই তৃতীয় বিকল্প যে কোনো সময় যে দু’দেশের প্রত্যক্ষ সামরিক সংঘর্ষে বদলে যেতে পারে, সেই সম্ভাবনা প্রবল। যে কারণে সমর বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভারতকে খুব সতর্ক পদক্ষেপ করতে হবে।

কী হতে পারে সত্যিই ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ হলে? সেই সম্ভাবনা খতিয়ে দেখার আগে দু’দেশের সামরিক ক্ষমতার একটা তুলনা করা যাক।

পাকিস্তানের হাতে পাঁচ ধরনের দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র আছে। সবকটিই পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্র বহনে সক্ষম। সবথেকে স্বল্প পাল্লার হলো ‘নাসের’, যা ৬০ কিমি পর্যন্ত দূরে গিয়ে আঘাত করতে পারে। আর সর্বোচ্চ পাল্লার পাকিস্তানি ক্ষেপণাস্ত্র ‘শাহিন-৩’, যার আঘাতের ক্ষমতা ২৭৫০ কিমি পর্যন্ত।

অন্যদিকে ভারতেরও আছে পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম পাঁচ ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র। সবথেকে কম পাল্লার হলো ‘পৃথ্বী’, ১৫০ থেকে ৩৫০ কিমি, এবং সবথেকে দূর পাল্লার ‘অগ্নি-৫’, ৫০০০ কিমি। অর্থাৎ ভারতের ক্ষেপণাস্ত্রের মারণক্ষমতা অনেক দূর পর্যন্ত বিস্তৃত।

কিন্তু সামরিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যুদ্ধের সময় সবথেকে কার্যকরী ভূমিকা নেবে স্বল্প পাল্লার ‘নাসের’, বিশেষত সীমান্ত এলাকায়। অনেক সময় একটা হাতির থেকে এক ঝাঁক মশার বিক্রম বেশি হয়। ঠিক সেই রকম।

পাকিস্তানের পরমাণু অস্ত্রের সংখ্যাও ভারতের থেকে বেশি। ভারতের আছে ৯০ থেকে ১১০টি পরমাণু অস্ত্র, সেখানে পাকিস্তানের ১০০ থেকে ১২০টি। এর বাইরে, ভারতের সামরিক ক্ষমতা প্রতিটি ক্ষেত্রে পাকিস্তানের থেকে অনেকটা বেশি। মোট সৈন্য সংখ্যায়, ট্যাংক, কামান, ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ ব্যবস্থা, যুদ্ধবিমানের সংখ্যায় ভারতই এগিয়ে।

বিশেষ করে নৌ-বাহিনীর ক্ষমতায়। পাকিস্তানের থেকে বেশি যুদ্ধজাহাজ, ডুবোজাহাজ তো বটেই, ভারতের আছে সুবিশাল বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ, যা নৌ যুদ্ধে এবং সামগ্রিকভাবে ভারতকে অনেকটাই এগিয়ে রাখবে। এবং ভয়টা সেখানেই, বলছেন সমর কৌশল বিশেষজ্ঞরা।

পাকিস্তান যখন ক্ষমতায় পারবে না, যুদ্ধে কোণঠাসা হয়ে পড়বে, তখন হাত চলে যেতে পারে পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্রের বোতামে। ভারত সেই ভয় পাচ্ছে এবং পাকিস্তান সেটা জানে। ফলে তারাও নজর নীচে করছে না।

কিন্তু সমস্যা অন্যত্র। ভারতের নাগরিকদের এক বড় অংশের মধ্যে যুদ্ধের জিগির উঠতে শুরু করেছে। উরি হামলার পরই এক হিন্দুত্ববাদী নেতা আওয়াজ তুলেছেন, দাঁতের বদলে দাঁত নয়, পুরো চোয়ালটা খুলে নিতে হবে!‌ এমনিতে সেনাবাহিনী সবসময়ই আলাপ-আলোচনার কূটনীতি নয়, মারের বদলা মারে বিশ্বাসী।

উরি সেনা ছাউনিতে ১৮ জন নিরস্ত্র সহযোদ্ধার মৃত্যু তাদেরকে ক্রুদ্ধ করেছে। আজকের এই সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংয়ের যুগে নানা ধরনের বানানো খবর দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ছে।

কাশ্মীর সীমান্তে নাকি শয়ে শয়ে ট্যাংক পাঠাচ্ছে সেনাবাহিনী, যে কোনো দিন প্রত্যাঘাত শুরু হবে।

সদ্য শোনা গেল, পাকিস্তানে ঢুকে গিয়ে ভারতীয় বিমানবাহিনী নাকি বেশ কিছু জঙ্গিকে ধ্বংস করে বিজয়গর্বে দেশে ফিরে এসেছে!‌

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম যদিও খুব বেশি উৎসাহিত নয় এ ধরনের খবরে। তাছাড়া ভারত এমনটা করে থাকলে পাকিস্তান যে চুপ করে বসে থাকতো না, সেটা সকলের জানা। তাই এমন ভুয়া খবরে ক্ষিপ্ত অনেকেই।

তবে সাউথ ব্লকের তৎপরতার কথা উঠে এসেছে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে। ওদিকে পেশাওয়ার-ইসলামাবাদ হাইওয়েতে পাকিস্তান সেনাবাহিনী টহলদারি শুরু করেছে এ খবরে গণ উন্মাদনা আরো ইন্ধন পাচ্ছে।

ভাবখানা এ রকম, এখন একটা যুদ্ধ লাগলেই যেন দেশের সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে!‌

সূত্র: ডয়চে ভেলে

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X