বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৮:৪৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, October 21, 2016 8:53 pm
A- A A+ Print

সবজি বাজার বেসামাল

101_bazar_ctg_210815_6

শুক্রবার রাজধানীর বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে চড়া দামে সবজি বিক্রি হতে দেখা গেছে। মাসখানেক আগে যেসব সবজি ৪০-৫০ টাকা কেজিতে পাওয়া গেছে এদিন তার সবই ২০ থেকে ৩০ টাকা বেশিতে বিক্রি হতে দেখা যায়।
বিক্রেতারা বলছেন, গত প্রায় এক মাস ধরেই সবজির দাম বেড়েছে এবং চলতি মাসে দাম কমার কোনো সম্ভাবনা দেখছেন নাতারা। কারওয়ানবাজার, মহাখালী কাঁচাবাজার ও মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেট ঘুরে প্রতি কেজি বেগুন ৭০ থেকে ৮০টাকা, টমেটো ১০০ থেকে ১২০ টাকা ও শিম ১৪০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা যায়। এছড়া করলা কেজি প্রতি ৫০ থেকে ৬০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫০ থেকে ৬০ টাকা, পটল ৫০ থেকে ৬০ টাকা, ঢেড়স ৬০ থেকে ৭০ টাকা, গাজর ৬০ থেকে ৮০ টাকা, শসা ৪০ থেকে ৪৫ টাকা, মুলা ৫০ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গিয়েছে। এসব সবজির মধ‌্যে নতুন বাজারে আসা শিম ও টমেটো বাদে বাকি প্রায় সবগুলোর দামই কোরবানির ঈদের পর ৪০ থেকে ৫০টার মধ‌্যে ছিল। সবজির দাম বৃদ্ধিকে ‘লাগামহীন’ বলছেন নজীব উদ দৌলা নামের এক ব‌্যবসায়ী। শুক্রবার মহাখালী বাজারে তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সবজির দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে। গত এক মাস ধরে শুধু কাঁচা পেঁপের দাম স্থিতিশীল আছে, ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। অন্য সব সবজির দাম চড়া।” মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেটে বাজার করতে আসা প্রকৌশলী আবু মো. আহসান অসন্তোষ নিয়ে বলেন, “সবজির দামের বিষয়ে কী বলব! আজ টমেটো কিনলাম, কেনার পর মনে হচ্ছে যে দাম দিয়ে কিনেছি তা দিয়ে আপেল কেনা যেত।” এভাবে সবজির বাড়তি দাম নেওয়ার কারণ জানতে চাইলে কৃষি মার্কেটের সবজি বিক্রেতা মো. শামীম বলেন, “আমরা যে বেশি দামে বিক্রি করছি, বিষয়টা এমন না। আড়ৎ থেকে যে দামে সবজি আনি, তার চেয়ে ৫ টাকা থেকে ১০ টাকা বেশি রাখি। পাইকারি বাজারে সবজির দাম চড়া।” মহাখালী বাজারের বিক্রেতা মো. রাহাতের ব‌্যাখ‌্যা:“গরমের মৌসুমের সবজি শেষ হইয়া যাইতেসে, শীতের সবজি এখনও ঠিকমত উইঠা সারে নাই। এই কারণে দাম একটু বেশি।” এ বিষয়ে কাওরানবাজারে সবজির আড়ৎদার শরীফুল মৃধার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এমনিতে এই সময় সবজির দাম একটু বেশি থাকে, তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এই বছর এই সময়ে সবজির দাম বেশি।” এর কারণ হিসেবে তিনি বলেন, “দেশের বিভিন্ন জায়গায় বন্যা হওয়ার কারণে শীতের আগাম সবজির ফলন কম হয়েছে, মার্কেটে যোগান নাই। এ কারণেই এই অবস্থা। এই মাস আপাতত সবজির দাম এ রকমই থাকবে। সামনের মাস থেকে আস্তে আস্তে দাম কমে আসবে।” সবজির বাজার চড়লেও সম্প্রতি কমেছে ব্রয়লার মুরগির দাম। প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা দরে। মাসখানেক আগে তা ১৫০ থেকে ১৬০ টাকায় বিক্রি হয়। এছাড়া গরুর মাংস কেজি প্রতি ৪২০ থেকে ৪৫০ এবং খাসির মাংস ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মাছের দামরয়েছে অনেকটা আগের মতোই। বিভিন্ন বাজারে রুই মাছ প্রকারভেদে২৫০ থেকে ৪০০ টাকা কেজি, কাতল২০০ থেকে ৩৫০ টাকা, কাঁচকি ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা, চিংড়ি আকারভেদে ৪০০ থেকে ৯০০ টাকা, মাগুর ৫০০ থেকে ৫৫০টাকা এবং শিং ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকায় কেজি বিক্রি হতে দেখা যায়।

Comments

Comments!

 সবজি বাজার বেসামালAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

সবজি বাজার বেসামাল

Friday, October 21, 2016 8:53 pm
101_bazar_ctg_210815_6

শুক্রবার রাজধানীর বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে চড়া দামে সবজি বিক্রি হতে দেখা গেছে। মাসখানেক আগে যেসব সবজি ৪০-৫০ টাকা কেজিতে পাওয়া গেছে এদিন তার সবই ২০ থেকে ৩০ টাকা বেশিতে বিক্রি হতে দেখা যায়।

বিক্রেতারা বলছেন, গত প্রায় এক মাস ধরেই সবজির দাম বেড়েছে এবং চলতি মাসে দাম কমার কোনো সম্ভাবনা দেখছেন নাতারা।

কারওয়ানবাজার, মহাখালী কাঁচাবাজার ও মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেট ঘুরে প্রতি কেজি বেগুন ৭০ থেকে ৮০টাকা, টমেটো ১০০ থেকে ১২০ টাকা ও শিম ১৪০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা যায়। এছড়া করলা কেজি প্রতি ৫০ থেকে ৬০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫০ থেকে ৬০ টাকা, পটল ৫০ থেকে ৬০ টাকা, ঢেড়স ৬০ থেকে ৭০ টাকা, গাজর ৬০ থেকে ৮০ টাকা, শসা ৪০ থেকে ৪৫ টাকা, মুলা ৫০ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গিয়েছে।

এসব সবজির মধ‌্যে নতুন বাজারে আসা শিম ও টমেটো বাদে বাকি প্রায় সবগুলোর দামই কোরবানির ঈদের পর ৪০ থেকে ৫০টার মধ‌্যে ছিল।

সবজির দাম বৃদ্ধিকে ‘লাগামহীন’ বলছেন নজীব উদ দৌলা নামের এক ব‌্যবসায়ী।

শুক্রবার মহাখালী বাজারে তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সবজির দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে। গত এক মাস ধরে শুধু কাঁচা পেঁপের দাম স্থিতিশীল আছে, ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। অন্য সব সবজির দাম চড়া।”

মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেটে বাজার করতে আসা প্রকৌশলী আবু মো. আহসান অসন্তোষ নিয়ে বলেন, “সবজির দামের বিষয়ে কী বলব! আজ টমেটো কিনলাম, কেনার পর মনে হচ্ছে যে দাম দিয়ে কিনেছি তা দিয়ে আপেল কেনা যেত।”

এভাবে সবজির বাড়তি দাম নেওয়ার কারণ জানতে চাইলে কৃষি মার্কেটের সবজি বিক্রেতা মো. শামীম বলেন, “আমরা যে বেশি দামে বিক্রি করছি, বিষয়টা এমন না। আড়ৎ থেকে যে দামে সবজি আনি, তার চেয়ে ৫ টাকা থেকে ১০ টাকা বেশি রাখি। পাইকারি বাজারে সবজির দাম চড়া।”

মহাখালী বাজারের বিক্রেতা মো. রাহাতের ব‌্যাখ‌্যা:“গরমের মৌসুমের সবজি শেষ হইয়া যাইতেসে, শীতের সবজি এখনও ঠিকমত উইঠা সারে নাই। এই কারণে দাম একটু বেশি।”

এ বিষয়ে কাওরানবাজারে সবজির আড়ৎদার শরীফুল মৃধার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এমনিতে এই সময় সবজির দাম একটু বেশি থাকে, তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এই বছর এই সময়ে সবজির দাম বেশি।”

এর কারণ হিসেবে তিনি বলেন, “দেশের বিভিন্ন জায়গায় বন্যা হওয়ার কারণে শীতের আগাম সবজির ফলন কম হয়েছে, মার্কেটে যোগান নাই। এ কারণেই এই অবস্থা। এই মাস আপাতত সবজির দাম এ রকমই থাকবে। সামনের মাস থেকে আস্তে আস্তে দাম কমে আসবে।”

সবজির বাজার চড়লেও সম্প্রতি কমেছে ব্রয়লার মুরগির দাম। প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা দরে। মাসখানেক আগে তা ১৫০ থেকে ১৬০ টাকায় বিক্রি হয়।

এছাড়া গরুর মাংস কেজি প্রতি ৪২০ থেকে ৪৫০ এবং খাসির মাংস ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মাছের দামরয়েছে অনেকটা আগের মতোই। বিভিন্ন বাজারে রুই মাছ প্রকারভেদে২৫০ থেকে ৪০০ টাকা কেজি, কাতল২০০ থেকে ৩৫০ টাকা, কাঁচকি ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা, চিংড়ি আকারভেদে ৪০০ থেকে ৯০০ টাকা, মাগুর ৫০০ থেকে ৫৫০টাকা এবং শিং ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকায় কেজি বিক্রি হতে দেখা যায়।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X