রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৩:৩৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, December 21, 2016 9:51 pm | আপডেটঃ December 22, 2016 8:14 AM
A- A A+ Print

নারায়ণগঞ্জে মর্যাদার লড়াই আজ, ভোট গ্রহণ শুরু

nasik1482372110

নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনের ভোট গ্রহণকে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ভোটকেন্দ্র, মালামালসহ সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন। ইতোমধ্যে ব্যালট বাক্স, ব্যালট পেপারসহ সব মালামাল পাঠানো হয়েছে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের কার্যালয়ে। আজ সকাল ৮ টায় শুরু হয়েছে ভোট গ্রহণ। চলবে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত। নাসিক নির্বাচন প্রধান রাজনৈতিক ইস্যুতে পরিণত হয়েছে। স্থানীয় সরকার নির্বাচন হলেও নৌকা আর ধানেরশীষ প্রতীকের কারণে এই নির্বাচন এখন টক অব দ্যা কান্ট্রিতে রূপ নিয়েছে। বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে বলা যায় শেষ নির্বাচনটি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। আগামী ২৮ ডিসেম্বর জেলা পরিষদের নির্বাচন থাকলেও উত্তাপ ছড়াচ্ছে কেবল নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন। ২০১১ সালে নারায়ণগঞ্জ সিটির প্রথম নির্বাচনও ব্যাপক আলোচিত ছিল। বর্তমান এমপি শামীম ওসমান তখন মেয়র প্রার্থী ছিলেন। আওয়ামী লীগের সমর্থন পেয়েছিলেন তিনি। স্বতন্ত্র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বিশাল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হয়েছিলেন। বিএনপির প্রার্থী ছিলেন অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খোন্দকার। নির্বাচনের আগের রাতে প্রার্থী প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয়। শামীম ওসমান এবার নির্বাচনে প্রার্থী না থাকলে স্থানীয় রাজনৈতিক বিরোধ আলোচনায় রয়েছেন তিনি। বিএনপির মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেনের পক্ষে প্রচারণা চালিয়েছেন দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারাও নৌকা জয়ী করতে মাঠে নেমেছেন। নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করতে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ধারাবাহিক বৈঠক করছেন রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ। বিএনপির সঙ্গে এরই মধ্য বৈঠক করেছেন রাষ্ট্রপতি। নির্বাচন কমিশন গঠনে বেশ কয়েকটি প্রস্তাব দিয়েছে দলটি। দশম সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়নি বিএনপি। আগামী নির্বাচনে তারা অংশ নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। তাদের এখন মূল দাবি নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন। ফলে নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন নানা কারণেই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। ক্ষমতাসীন সরকারের জনপ্রিয়তা, বিএনপির জনসমর্থন, নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা প্রমাণের নির্বাচন হতে যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে ফতুল্লার চাঁদমারীতে অবস্থিত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় থেকে বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে পাঠানো হয় এসব ব্যালট বাক্স। বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে ২৭টি ওয়ার্ডের ১৭৪টি কেন্দ্রের ১৩ হাজার চারটি ভোটকক্ষে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীন ভোটগ্রহণ চলবে। এদিকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের একশ’ ৭৪টি কেন্দ্রের মধ্যে একশ’ ৩৭টিকে ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনা করে ভোটের নিরাপত্তা সাজাচ্ছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা জানান, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিতে কেন্দ্রে কেন্দ্রে ভোটের সরঞ্জাম পাঠিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এসব সরঞ্জামের মধ্যে সুঁই, সুতা, সুপার গ্লু, স্ট্যাপলার, ভোটার তালিকা, কার্বন পেপার, মোমবাতি, স্কেল, কলমসহ ৬০টির বেশি উপকরণ রয়েছে। পুলিশি পাহারায় এসব সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে ভোটকেন্দ্রে বলেও জানান তারা। রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান তালুকদার বলেন, সুষ্ঠু ভোট আয়োজনে পুরো শহর নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছে। এর আগে বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান ৫৩টি কেন্দ্রকে অতি ঝুঁকিপূর্ণ বলে উল্লেখ করে আবেদন জানিয়েছিলেন। নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ শাহনেওয়াজ বলেছেন, নির্বাচনে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে এবং ভোটাররা যাতে নির্বিঘ্নে ভোট দিয়ে নিরাপদে বাড়ি ফিরে আসতে পারে এজন্য নির্বাচন কমিশন সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা বলছেন, ভোটের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে অস্ত্রসহ সাতজন পুলিশ, অস্ত্রসহ তিনজন ব্যাটালিয়ন আনসার, অঙ্গীভূত আনসার/ভিডিপির ১৪ সদস্যসহ মোট ২৪ জন থাকবেন প্রতিটি কেন্দ্রে। র‌্যাব, কোস্টগার্ড, পুলিশ, আনসারসহ সাতটি বাহিনীর প্রায় সাড়ে ৯ হাজার সদস্যকে নিরাপত্তার দায়িত্বে মোতায়েন করা হয়েছে। ৫০ জন বিচারিক ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ৫০টি ভ্রাম্যমাণ আদালত আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ ও আচরণবিধি লঙ্ঘন হচ্ছে কি না, তা দেখার দায়িত্বে রয়েছেন। এর আগে ২২ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়। নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মনোনীত প্রার্থীসহ সাতটি রাজনৈতিক দলের প্রার্থী, ২৭টি ওয়ার্ডে ১৫৪ জন কাউন্সিলর প্রার্থী ও সংরক্ষিত নয়টি ওয়ার্ডে ৩৮ জন নারী কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ভোটার সংখ্যা চার লাখ ৭৪ হাজার ৯৩১ জন। যার মধ্যে পুরুষ দুই লাখ ৩৯ হাজার ৬৬২ জন ও নারী দুই লাখ ৩৫ হাজার ২৬৯ জন।
 

Comments

Comments!

 নারায়ণগঞ্জে মর্যাদার লড়াই আজ, ভোট গ্রহণ শুরুAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

নারায়ণগঞ্জে মর্যাদার লড়াই আজ, ভোট গ্রহণ শুরু

Wednesday, December 21, 2016 9:51 pm | আপডেটঃ December 22, 2016 8:14 AM
nasik1482372110

নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনের ভোট গ্রহণকে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ভোটকেন্দ্র, মালামালসহ সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন। ইতোমধ্যে ব্যালট বাক্স, ব্যালট পেপারসহ সব মালামাল পাঠানো হয়েছে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের কার্যালয়ে। আজ সকাল ৮ টায় শুরু হয়েছে ভোট গ্রহণ। চলবে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত।

নাসিক নির্বাচন প্রধান রাজনৈতিক ইস্যুতে পরিণত হয়েছে। স্থানীয় সরকার নির্বাচন হলেও নৌকা আর ধানেরশীষ প্রতীকের কারণে এই নির্বাচন এখন টক অব দ্যা কান্ট্রিতে রূপ নিয়েছে।

বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে বলা যায় শেষ নির্বাচনটি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। আগামী ২৮ ডিসেম্বর জেলা পরিষদের নির্বাচন থাকলেও উত্তাপ ছড়াচ্ছে কেবল নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন।

২০১১ সালে নারায়ণগঞ্জ সিটির প্রথম নির্বাচনও ব্যাপক আলোচিত ছিল। বর্তমান এমপি শামীম ওসমান তখন মেয়র প্রার্থী ছিলেন। আওয়ামী লীগের সমর্থন পেয়েছিলেন তিনি। স্বতন্ত্র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বিশাল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হয়েছিলেন। বিএনপির প্রার্থী ছিলেন অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খোন্দকার। নির্বাচনের আগের রাতে প্রার্থী প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয়।

শামীম ওসমান এবার নির্বাচনে প্রার্থী না থাকলে স্থানীয় রাজনৈতিক বিরোধ আলোচনায় রয়েছেন তিনি। বিএনপির মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেনের পক্ষে প্রচারণা চালিয়েছেন দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারাও নৌকা জয়ী করতে মাঠে নেমেছেন।

নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করতে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ধারাবাহিক বৈঠক করছেন রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ। বিএনপির সঙ্গে এরই মধ্য বৈঠক করেছেন রাষ্ট্রপতি। নির্বাচন কমিশন গঠনে বেশ কয়েকটি প্রস্তাব দিয়েছে দলটি।

দশম সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়নি বিএনপি। আগামী নির্বাচনে তারা অংশ নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। তাদের এখন মূল দাবি নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন। ফলে নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন নানা কারণেই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। ক্ষমতাসীন সরকারের জনপ্রিয়তা, বিএনপির জনসমর্থন, নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা প্রমাণের নির্বাচন হতে যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন।

বুধবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে ফতুল্লার চাঁদমারীতে অবস্থিত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় থেকে বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে পাঠানো হয় এসব ব্যালট বাক্স।

বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে ২৭টি ওয়ার্ডের ১৭৪টি কেন্দ্রের ১৩ হাজার চারটি ভোটকক্ষে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীন ভোটগ্রহণ চলবে।

এদিকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের একশ’ ৭৪টি কেন্দ্রের মধ্যে একশ’ ৩৭টিকে ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনা করে ভোটের নিরাপত্তা সাজাচ্ছে নির্বাচন কমিশন।

নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা জানান, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিতে কেন্দ্রে কেন্দ্রে ভোটের সরঞ্জাম পাঠিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

এসব সরঞ্জামের মধ্যে সুঁই, সুতা, সুপার গ্লু, স্ট্যাপলার, ভোটার তালিকা, কার্বন পেপার, মোমবাতি, স্কেল, কলমসহ ৬০টির বেশি উপকরণ রয়েছে। পুলিশি পাহারায় এসব সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে ভোটকেন্দ্রে বলেও জানান তারা।

রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান তালুকদার বলেন, সুষ্ঠু ভোট আয়োজনে পুরো শহর নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছে।

এর আগে বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান ৫৩টি কেন্দ্রকে অতি ঝুঁকিপূর্ণ বলে উল্লেখ করে আবেদন জানিয়েছিলেন।

নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ শাহনেওয়াজ বলেছেন, নির্বাচনে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে এবং ভোটাররা যাতে নির্বিঘ্নে ভোট দিয়ে নিরাপদে বাড়ি ফিরে আসতে পারে এজন্য নির্বাচন কমিশন সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা বলছেন, ভোটের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে অস্ত্রসহ সাতজন পুলিশ, অস্ত্রসহ তিনজন ব্যাটালিয়ন আনসার, অঙ্গীভূত আনসার/ভিডিপির ১৪ সদস্যসহ মোট ২৪ জন থাকবেন প্রতিটি কেন্দ্রে।

র‌্যাব, কোস্টগার্ড, পুলিশ, আনসারসহ সাতটি বাহিনীর প্রায় সাড়ে ৯ হাজার সদস্যকে নিরাপত্তার দায়িত্বে মোতায়েন করা হয়েছে। ৫০ জন বিচারিক ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ৫০টি ভ্রাম্যমাণ আদালত আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ ও আচরণবিধি লঙ্ঘন হচ্ছে কি না, তা দেখার দায়িত্বে রয়েছেন। এর আগে ২২ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মনোনীত প্রার্থীসহ সাতটি রাজনৈতিক দলের প্রার্থী, ২৭টি ওয়ার্ডে ১৫৪ জন কাউন্সিলর প্রার্থী ও সংরক্ষিত নয়টি ওয়ার্ডে ৩৮ জন নারী কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ভোটার সংখ্যা চার লাখ ৭৪ হাজার ৯৩১ জন। যার মধ্যে পুরুষ দুই লাখ ৩৯ হাজার ৬৬২ জন ও নারী দুই লাখ ৩৫ হাজার ২৬৯ জন।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X