মঙ্গলবার, ২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১১:৪৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, October 30, 2016 9:16 am
A- A A+ Print

সব দলের মত নিয়ে নতুন ইসি হোক: সাবেক সিইসি

158018_1

ঢাকা: বাংলাদেশের সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার এ টি এম শামসুল হুদা বলেছেন, সব রাজনৈতিক দলের মতামত নিয়ে অবিলম্বে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের প্রক্রিয়া শুরু করা উচিত। বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ পুরো হতে আর মাত্র চার মাস বাকি রয়েছে। এ টিএম শামসুল হুদা বলেন, অতীতে কখনো সমস্ত রাজনৈতিক দলের মতামতের ভিত্তিতে কমিটি গঠন করা হয় নি। বিশেষ করে বিরোধী দলের সাথে কোন পরামর্শ করা হয় না। তার ফলে যে কমিশন গঠন করা হয়, শুরু থেকেই তা একটা বৈরিতার মুখে পড়ে। তিনি বলেন, এর ফলে যে দলই নির্বাচনে পরাজয়ের সম্মুখীন হয়, তারাই বলে যে কমিশন ঠিকমত কাজ করে নি, এরা বৈধ কমিশন নয়- ইত্যাদি নানা নেতিবাচক কথাবার্তা হয়। তিনি বলেন, সেটা যেন না হয়, তাই উচিত হবে সবগুলি রাজনৈতিক দলের সাথে কথা বলে, তাদের সম্মতি নিয়ে - এই প্যানেলটা তৈরি করা। আরো বলেন, তারপর এই প্যানেল থেকে রাষ্ট্রপতি কমিশনারদের বাছাই করে নিতে পারেন। সব রাজনৈতিক দলেরই যেহেতু এতে অংশগ্রহণ থাকবে - তাই এটা সবার কাছে গ্রহণযোগ্য হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে যে পদ্ধতি- তাতে সব নির্বাচন কমিশনারই একসাথে নিয়োগ পান এবং এক সাথে অবসরে যান। তাদের মেয়াদ ফেব্রুয়ারি মাসে শেষ হচ্ছে। যদি সুষ্ঠুভাবে একটি নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হয়, বা আমরা এটা যেভাবে হওয়া উচিত বলে বলছি- তা সময়সাপেক্ষ হবে। হুদা বলেন, যেবার আমরা চলে গেলাম- তার পরের কমিশন গঠন করার সময় যে সার্চ কমিটি করা হয়েছে তা অত্যন্ত দ্রুততার সাথে হয়েছে। তিনি বলেন, সার্চ কমিটি যাদের নাম তুলে আনবেন তাদের ব্যাকগ্রাউন্ড চেক যেন সঠিক ভাবে হয় - এটা নিশ্চিত করাই তাদের প্রধান কাজ বলে তিনি মনে করেন। আরো বলেন, তারা কী ধরনের লোক, তাদের কোন রাজনৈতিক এ্যাফিলিয়েশন (সংশ্লিষ্টতা) ছিল কিনা , তাদের পূর্বতন চাকরিতে তাদের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ ছিল কিনা - এগুলো দেখে লোক নির্বাচন করা উচিত। এবং এটা করতে গেলে আপনাকে সময় দিতে হবে। তিনি বলেন, যদি সততা এবং নিরপেক্ষতা সম্পন্ন লোক আনতে হয়- তাহলে তাদের ব্যাকগ্রাউন্ডটা অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার মাধ্যমেও জানা যেতে পারে। তবে সে জন্যও সময় দরকার। সাবেক এই সিইসি বলেন, সে জন্যই আমরা বলছি যে এ প্রক্রিয়া এখন থেকেই শুরু হওয়া উচিত, যাতে তারা যথেষ্ট সময় পান। গতবার এ সময়টা পাওয়া যায়নি। -বিবিসি বাংলা
 

Comments

Comments!

 সব দলের মত নিয়ে নতুন ইসি হোক: সাবেক সিইসিAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

সব দলের মত নিয়ে নতুন ইসি হোক: সাবেক সিইসি

Sunday, October 30, 2016 9:16 am
158018_1

ঢাকা: বাংলাদেশের সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার এ টি এম শামসুল হুদা বলেছেন, সব রাজনৈতিক দলের মতামত নিয়ে অবিলম্বে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের প্রক্রিয়া শুরু করা উচিত।

বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ পুরো হতে আর মাত্র চার মাস বাকি রয়েছে।

এ টিএম শামসুল হুদা বলেন, অতীতে কখনো সমস্ত রাজনৈতিক দলের মতামতের ভিত্তিতে কমিটি গঠন করা হয় নি। বিশেষ করে বিরোধী দলের সাথে কোন পরামর্শ করা হয় না। তার ফলে যে কমিশন গঠন করা হয়, শুরু থেকেই তা একটা বৈরিতার মুখে পড়ে।

তিনি বলেন, এর ফলে যে দলই নির্বাচনে পরাজয়ের সম্মুখীন হয়, তারাই বলে যে কমিশন ঠিকমত কাজ করে নি, এরা বৈধ কমিশন নয়- ইত্যাদি নানা নেতিবাচক কথাবার্তা হয়।

তিনি বলেন, সেটা যেন না হয়, তাই উচিত হবে সবগুলি রাজনৈতিক দলের সাথে কথা বলে, তাদের সম্মতি নিয়ে – এই প্যানেলটা তৈরি করা।

আরো বলেন, তারপর এই প্যানেল থেকে রাষ্ট্রপতি কমিশনারদের বাছাই করে নিতে পারেন। সব রাজনৈতিক দলেরই যেহেতু এতে অংশগ্রহণ থাকবে – তাই এটা সবার কাছে গ্রহণযোগ্য হবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে যে পদ্ধতি- তাতে সব নির্বাচন কমিশনারই একসাথে নিয়োগ পান এবং এক সাথে অবসরে যান। তাদের মেয়াদ ফেব্রুয়ারি মাসে শেষ হচ্ছে। যদি সুষ্ঠুভাবে একটি নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হয়, বা আমরা এটা যেভাবে হওয়া উচিত বলে বলছি- তা সময়সাপেক্ষ হবে।

হুদা বলেন, যেবার আমরা চলে গেলাম- তার পরের কমিশন গঠন করার সময় যে সার্চ কমিটি করা হয়েছে তা অত্যন্ত দ্রুততার সাথে হয়েছে।

তিনি বলেন, সার্চ কমিটি যাদের নাম তুলে আনবেন তাদের ব্যাকগ্রাউন্ড চেক যেন সঠিক ভাবে হয় – এটা নিশ্চিত করাই তাদের প্রধান কাজ বলে তিনি মনে করেন।

আরো বলেন, তারা কী ধরনের লোক, তাদের কোন রাজনৈতিক এ্যাফিলিয়েশন (সংশ্লিষ্টতা) ছিল কিনা , তাদের পূর্বতন চাকরিতে তাদের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ ছিল কিনা – এগুলো দেখে লোক নির্বাচন করা উচিত। এবং এটা করতে গেলে আপনাকে সময় দিতে হবে।

তিনি বলেন, যদি সততা এবং নিরপেক্ষতা সম্পন্ন লোক আনতে হয়- তাহলে তাদের ব্যাকগ্রাউন্ডটা অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার মাধ্যমেও জানা যেতে পারে। তবে সে জন্যও সময় দরকার।

সাবেক এই সিইসি বলেন, সে জন্যই আমরা বলছি যে এ প্রক্রিয়া এখন থেকেই শুরু হওয়া উচিত, যাতে তারা যথেষ্ট সময় পান। গতবার এ সময়টা পাওয়া যায়নি। -বিবিসি বাংলা

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X