রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৩:৩৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, September 8, 2016 8:08 am
A- A A+ Print

সরকার নিরক্ষরতা দূর করতে বদ্ধপরিকর: প্রধানমন্ত্রী

152578_1

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকার দেশ থেকে নিরক্ষরতা দূর করতে বদ্ধপরিকর। এজন্য বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো জাতীয়করণ, শিক্ষকদের চাকুরি সরকারিকরণ এবং প্রধান শিক্ষকের পদকে দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীতকরণসহ বিভিন্ন বাস্তবধর্মী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ সব পদক্ষেপ গুণগত শিক্ষা বিস্তারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। এসডিজি বাস্তবায়নে সরকার সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর মানসম্মত শিক্ষা ব্যবস্থার ওপর। তিনি বলেন, আমাদের নিরক্ষর জনগোষ্ঠীকে সাক্ষরজ্ঞান প্রদানের পাশাপাশি তাদের তথ্যপ্রযুক্তিতে দক্ষ জনসম্পদে পরিণত করে রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে-এ আমার দৃঢ় বিশ্বাস। ৮ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে এক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ সব কথা বলেন। শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও ৮ই সেপ্টেম্বর ২০১৬ আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসের সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপন হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। এবারের প্রতিপাদ্য: ‘অতীতকে জানব, আগামীকে গড়ব’ সময়োপযোগী হয়েছে।’ তিনি বলেন, দেশের সার্বিক উন্নয়নের জন্য শিক্ষিত ও দক্ষ মানবসম্পদ অপরিহার্য। ২০০৯ সালে সরকার পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে আওয়ামী লীগ সরকার দেশের নিরক্ষর জনগোষ্ঠীকে সাক্ষরতা কর্মসূচির আওতায় এনেছে। পাশাপাশি তাদের দক্ষতাভিত্তিক প্রশিক্ষণ প্রদান এবং আধুনিক ও কর্মমুখী শিক্ষায় শিক্ষিত করে দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, আমরা দারিদ্র্যের কারণে ঝরেপড়া রোধ করতে উপবৃত্তি কর্মসূচি এবং শিক্ষার্থীদের স্কুলে ধরে রাখতে স্কুল ফিডিং কর্মসূচি চালু করেছি। ফলে প্রাথমিক শিক্ষা পর্যায়ে বিদ্যালয়গামী উপযোগী শতভাগ শিশুকে বিদ্যালয়ে নিয়ে আসা সম্ভব হয়েছে। এছাড়া শিক্ষাক্ষেত্রে ঝরেপড়ার হার হ্রাস পেয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার গুণগতমান বৃদ্ধি পেয়েছে। বিগত সাড়ে সাত বছরে সাক্ষরতার হার ৪৫ শতাংশ হতে বৃদ্ধি পেয়ে ৭১ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। এতে তিনি আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস-২০১৬ উপলক্ষে গৃহীত সকল কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।
 

Comments

Comments!

 সরকার নিরক্ষরতা দূর করতে বদ্ধপরিকর: প্রধানমন্ত্রীAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

সরকার নিরক্ষরতা দূর করতে বদ্ধপরিকর: প্রধানমন্ত্রী

Thursday, September 8, 2016 8:08 am
152578_1

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকার দেশ থেকে নিরক্ষরতা দূর করতে বদ্ধপরিকর। এজন্য বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো জাতীয়করণ, শিক্ষকদের চাকুরি সরকারিকরণ এবং প্রধান শিক্ষকের পদকে দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীতকরণসহ বিভিন্ন বাস্তবধর্মী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ সব পদক্ষেপ গুণগত শিক্ষা বিস্তারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। এসডিজি বাস্তবায়নে সরকার সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর মানসম্মত শিক্ষা ব্যবস্থার ওপর।

তিনি বলেন, আমাদের নিরক্ষর জনগোষ্ঠীকে সাক্ষরজ্ঞান প্রদানের পাশাপাশি তাদের তথ্যপ্রযুক্তিতে দক্ষ জনসম্পদে পরিণত করে রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে-এ আমার দৃঢ় বিশ্বাস।

৮ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে এক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ সব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও ৮ই সেপ্টেম্বর ২০১৬ আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসের সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপন হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। এবারের প্রতিপাদ্য: ‘অতীতকে জানব, আগামীকে গড়ব’ সময়োপযোগী হয়েছে।’

তিনি বলেন, দেশের সার্বিক উন্নয়নের জন্য শিক্ষিত ও দক্ষ মানবসম্পদ অপরিহার্য। ২০০৯ সালে সরকার পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে আওয়ামী লীগ সরকার দেশের নিরক্ষর জনগোষ্ঠীকে সাক্ষরতা কর্মসূচির আওতায় এনেছে। পাশাপাশি তাদের দক্ষতাভিত্তিক প্রশিক্ষণ প্রদান এবং আধুনিক ও কর্মমুখী শিক্ষায় শিক্ষিত করে দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, আমরা দারিদ্র্যের কারণে ঝরেপড়া রোধ করতে উপবৃত্তি কর্মসূচি এবং শিক্ষার্থীদের স্কুলে ধরে রাখতে স্কুল ফিডিং কর্মসূচি চালু করেছি। ফলে প্রাথমিক শিক্ষা পর্যায়ে বিদ্যালয়গামী উপযোগী শতভাগ শিশুকে বিদ্যালয়ে নিয়ে আসা সম্ভব হয়েছে। এছাড়া শিক্ষাক্ষেত্রে ঝরেপড়ার হার হ্রাস পেয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার গুণগতমান বৃদ্ধি পেয়েছে। বিগত সাড়ে সাত বছরে সাক্ষরতার হার ৪৫ শতাংশ হতে বৃদ্ধি পেয়ে ৭১ শতাংশে উন্নীত হয়েছে।

এতে তিনি আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস-২০১৬ উপলক্ষে গৃহীত সকল কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X