শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৪:১২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Saturday, January 14, 2017 8:37 am
A- A A+ Print

সর্বনিম্ন তাপমাত্রায় জবুথবু রাজশাহী

হাড়কাঁপানো শীতে জবুথবু হয়ে পড়েছে রাজশাহীর জনজীবন। গত সোমবার থেকে কমতে থাকা তাপমাত্রা আজ শুক্রবার মৌসুমের তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। আজ রাজশাহীতে চলতি মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তাপমাত্রার পারদ আরো নিচে নামতে পারে বলে ধারণা করছেন আবহাওয়া পর্যবেক্ষকরা। হঠাৎ জেঁকে বসা তীব্র শীতে দুর্ভোগে পড়েছে নানা বয়স ও শ্রেণি-পেশার মানুষ। বিশেষ করে ছিন্নমূল মানুষ পড়েছে বিপাকে। প্রয়োজনীয় গরম কাপড়ের অভাবে খড়কুটো জ্বালিয়ে সাময়িকভাবে তারা ঠান্ডা তাড়িয়ে উষ্ণতা খোঁজার চেষ্টা করছে। রাজশাহী আবহাওয়া কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আশরাফুল আলম জানান, শুক্রবার সকাল ৬টায় এখানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৯ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সঙ্গে বাতাসের আর্দ্রতা ছিল ৭৭ ভাগ। তিনি বলেন, পৌষ মাসের শেষ দিন ছিল শুক্রবার। মাঘ মাসে এখানকার তাপমাত্রা আরো নিচে নামতে পারে। আশরাফুল আলম আরো বলেন, গত মঙ্গলবার রাজশাহীতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৩ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এর আগের দিন সোমবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সারা দেশে তাপমাত্রা কমতে শুরু করেছে। আগামী কয়েকদিন কুয়াশার ঘনত্ব আরো বাড়ার সম্ভাবনা আছে। এদিকে কনকনে ঠান্ডায় বিপাকে পড়েছে নিম্ন আয় ও ছিন্নমূল মানুষ। প্রয়োজনীয় শীতবস্ত্রের অভাবে এসব মানুষ অনেকটাই কাতর হয়ে পড়েছে। শীত নিবারণের জন্য কম দামে শীতবস্ত্র কিনতে তারা হুমড়ি খেয়ে পড়ছে ফুটপাতের দোকানগুলোয়। গরম কাপড় না পাওয়ায় শীতে আক্রান্ত হয়ে ছিন্নমূল অনেকে অসুস্থ হয়েও পড়ছে। ফলে বাড়ছে শীতজনিত রোগের মাত্রাও। সন্ধ্যার পর ছিন্নমূল মানুষগুলোকে পথের ধারে খড়-কুটোয় আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করতে দেখা গেছে। নগরীর ছোট বনগ্রাম বস্তির বাসিন্দা শাহ নেওয়াজ বলেন, ‘মঙ্গলবারের বৃষ্টির পর থেকে শীত আরো বেশি পড়েছে। কিন্তু এই শীত তাড়ানোর কোনো কাপড় আমাদের বাড়িতে নেই।’ ভোর হলেই নগরীর রেলগেট এলাকায় ভিড় জমান নির্মাণশ্রমিকরা। দূর-দূরান্ত থেকে বাসের ছাদে চড়ে কিংবা সাইকেল চালিয়ে তাঁরা এখানে আসেন কাজের সন্ধানে। শীত যত বাড়ছে, এসব মানুষের ভোগান্তি ততই বাড়ছে। রাজশাহী আবহাওয়া কার্যালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, আরো সপ্তাহখানেক মৃদু এ শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

Comments

Comments!

 সর্বনিম্ন তাপমাত্রায় জবুথবু রাজশাহীAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

সর্বনিম্ন তাপমাত্রায় জবুথবু রাজশাহী

Saturday, January 14, 2017 8:37 am

হাড়কাঁপানো শীতে জবুথবু হয়ে পড়েছে রাজশাহীর জনজীবন। গত সোমবার থেকে কমতে থাকা তাপমাত্রা আজ শুক্রবার মৌসুমের তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে।

আজ রাজশাহীতে চলতি মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তাপমাত্রার পারদ আরো নিচে নামতে পারে বলে ধারণা করছেন আবহাওয়া পর্যবেক্ষকরা।

হঠাৎ জেঁকে বসা তীব্র শীতে দুর্ভোগে পড়েছে নানা বয়স ও শ্রেণি-পেশার মানুষ। বিশেষ করে ছিন্নমূল মানুষ পড়েছে বিপাকে। প্রয়োজনীয় গরম কাপড়ের অভাবে খড়কুটো জ্বালিয়ে সাময়িকভাবে তারা ঠান্ডা তাড়িয়ে উষ্ণতা খোঁজার চেষ্টা করছে।

রাজশাহী আবহাওয়া কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আশরাফুল আলম জানান, শুক্রবার সকাল ৬টায় এখানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৯ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সঙ্গে বাতাসের আর্দ্রতা ছিল ৭৭ ভাগ। তিনি বলেন, পৌষ মাসের শেষ দিন ছিল শুক্রবার। মাঘ মাসে এখানকার তাপমাত্রা আরো নিচে নামতে পারে।

আশরাফুল আলম আরো বলেন, গত মঙ্গলবার রাজশাহীতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৩ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এর আগের দিন সোমবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সারা দেশে তাপমাত্রা কমতে শুরু করেছে। আগামী কয়েকদিন কুয়াশার ঘনত্ব আরো বাড়ার সম্ভাবনা আছে।

এদিকে কনকনে ঠান্ডায় বিপাকে পড়েছে নিম্ন আয় ও ছিন্নমূল মানুষ। প্রয়োজনীয় শীতবস্ত্রের অভাবে এসব মানুষ অনেকটাই কাতর হয়ে পড়েছে। শীত নিবারণের জন্য কম দামে শীতবস্ত্র কিনতে তারা হুমড়ি খেয়ে পড়ছে ফুটপাতের দোকানগুলোয়। গরম কাপড় না পাওয়ায় শীতে আক্রান্ত হয়ে ছিন্নমূল অনেকে অসুস্থ হয়েও পড়ছে। ফলে বাড়ছে শীতজনিত রোগের মাত্রাও। সন্ধ্যার পর ছিন্নমূল মানুষগুলোকে পথের ধারে খড়-কুটোয় আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করতে দেখা গেছে।

নগরীর ছোট বনগ্রাম বস্তির বাসিন্দা শাহ নেওয়াজ বলেন, ‘মঙ্গলবারের বৃষ্টির পর থেকে শীত আরো বেশি পড়েছে। কিন্তু এই শীত তাড়ানোর কোনো কাপড় আমাদের বাড়িতে নেই।’

ভোর হলেই নগরীর রেলগেট এলাকায় ভিড় জমান নির্মাণশ্রমিকরা। দূর-দূরান্ত থেকে বাসের ছাদে চড়ে কিংবা সাইকেল চালিয়ে তাঁরা এখানে আসেন কাজের সন্ধানে। শীত যত বাড়ছে, এসব মানুষের ভোগান্তি ততই বাড়ছে।

রাজশাহী আবহাওয়া কার্যালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, আরো সপ্তাহখানেক মৃদু এ শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X