শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ২:২৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, November 14, 2016 7:38 am
A- A A+ Print

সাঁওতালদের অভিযোগ সরকারদলীয় নেতাদের বিরুদ্ধে

161072_1

দেশের উত্তরাঞ্চলীয় জেলা গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সাঁওতালরা তাদের ওপর সহিংস হামলার জন্য স্থানীয় সাংসদসহ সরকারি দলের একটি অংশ ও প্রশাসনকে দায়ী করেছেন। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধিদল ঘটনাস্থলে গেলে তারা এ অভিযোগ করেন। পরে ওই প্রতিনিধি দলের একজন সদস্য বলেছেন সাঁওতাল ও পুলিশ উভয়ের ওপর হামলাকারিদের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেবে সরকার। গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে একটি চিনিকলের আওতায় থাকা ভূমি নিয়ে গত সপ্তাহের সহিংসতায় সাঁওতাল সম্প্রদায়ের কয়েকজনের প্রাণহানি এবং বাড়িঘর পুড়িয়ে তাদের উচ্ছেদের ঘটনার পাঁচদিন পর আজ ওই এলাকা পরিদর্শন করে সাঁওতালদের সাথে কথা বলেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের একটি দল। সাঁওতাল সম্প্রদায়ের একজন রাফায়েল হাযদা বলেছেন আওয়ামী লীগ নেতাদের তারা জানিয়েছেন যে স্থানীয় সাংসদসহ কয়েকজন নেতাই তাদের ওপর হামলার জন্য দায়ী।   আবার নাগরিক সমাজেরও একটি প্রতিনিধি দল ওই এলাকায় গিয়ে সাঁওতালদের সাথে কথা বলেছেন। তার মধ্যে ছিলেন অর্থনীতিবিদ আবুল বারাকাত। তিনি বলছেন হামলায় সরকারি দলের নেতাদের সম্পৃক্ততার তথ্য তারাও পেয়েছেন। আর ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর আওয়ামী লীগ প্রতিনিধি দলের সদস্য দলটির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলছেন, অভিযোগটি তারাও পেয়েছেন, তবে তার মতে এ ঘটনায় স্থানীয় রাজনীতিও রয়েছে আর অভিযোগের সত্যতা রয়েছে কি-না সেটিও দেখতে হবে।   তিনি বলেন সাঁওতালদের ওপর হামলাকারিদের যেমন বিচার হবে তেমনি তীর ধনুক নিয়ে যারা পুলিশের ওপর আক্রমণ করেছে তাদেরও বিচারের আওতায় আনা হবে।   তিনি বলেন সাঁওতালরা সেখানকার ভূমিতে চাষাবাদ করে আয় করতে পারবে কিন্তু জমির মালিকানা সরকারের হাতে থাকবে। ১৯৫৬ গাইবান্ধার মহিমাগঞ্জ চিনি কলের জন্য প্রায় দুই হাজার একর জমি অধিগ্রহণ করে তৎকালীন সরকার। তখন সেখানে ১৫টি গ্রামে সাঁওতালদের বসবাস ছিল। গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক আব্দুস সামাদ বলছেন, সাঁওতালদের পুনর্বাসনের জন্য ইতোমধ্যেই নানা প্রস্তাব তারা দিয়েছেন। তিনি বলেন খাদ্যশস্যসহ নানা সহায়তার পাশাপাশি দশ একর জমি চিহ্নিত করা হয়েছে আশ্রয়হীনদের জন্য।   রাফায়েল হাযদা বলছেন, খাস জমি নয়, তাদের কাছ থেকে নেয়া জমিই তাদের ফিরিয়ে দিতে হবে। আমাদের বাপ দাদার সম্পত্তির জন্য আমরা জীবন দিয়েছি, রক্ত দিয়েছি, আমরা ওটাই চাই। এমনটাই দাবি তাদের। যদিও জেলা প্রশাসক বলছেন তারা সাঁওতালদের সাথে আলোচনা করেই এ সমস্যার সমাধান করবেন। সূত্র: বিবিসি

Comments

Comments!

 সাঁওতালদের অভিযোগ সরকারদলীয় নেতাদের বিরুদ্ধেAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

সাঁওতালদের অভিযোগ সরকারদলীয় নেতাদের বিরুদ্ধে

Monday, November 14, 2016 7:38 am
161072_1

দেশের উত্তরাঞ্চলীয় জেলা গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সাঁওতালরা তাদের ওপর সহিংস হামলার জন্য স্থানীয় সাংসদসহ সরকারি দলের একটি অংশ ও প্রশাসনকে দায়ী করেছেন।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধিদল ঘটনাস্থলে গেলে তারা এ অভিযোগ করেন। পরে ওই প্রতিনিধি দলের একজন সদস্য বলেছেন সাঁওতাল ও পুলিশ উভয়ের ওপর হামলাকারিদের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেবে সরকার।

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে একটি চিনিকলের আওতায় থাকা ভূমি নিয়ে গত সপ্তাহের সহিংসতায় সাঁওতাল সম্প্রদায়ের কয়েকজনের প্রাণহানি এবং বাড়িঘর পুড়িয়ে তাদের উচ্ছেদের ঘটনার পাঁচদিন পর আজ ওই এলাকা পরিদর্শন করে সাঁওতালদের সাথে কথা বলেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের একটি দল।

সাঁওতাল সম্প্রদায়ের একজন রাফায়েল হাযদা বলেছেন আওয়ামী লীগ নেতাদের তারা জানিয়েছেন যে স্থানীয় সাংসদসহ কয়েকজন নেতাই তাদের ওপর হামলার জন্য দায়ী।

 

আবার নাগরিক সমাজেরও একটি প্রতিনিধি দল ওই এলাকায় গিয়ে সাঁওতালদের সাথে কথা বলেছেন। তার মধ্যে ছিলেন অর্থনীতিবিদ আবুল বারাকাত। তিনি বলছেন হামলায় সরকারি দলের নেতাদের সম্পৃক্ততার তথ্য তারাও পেয়েছেন।

আর ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর আওয়ামী লীগ প্রতিনিধি দলের সদস্য দলটির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলছেন, অভিযোগটি তারাও পেয়েছেন, তবে তার মতে এ ঘটনায় স্থানীয় রাজনীতিও রয়েছে আর অভিযোগের সত্যতা রয়েছে কি-না সেটিও দেখতে হবে।

 

তিনি বলেন সাঁওতালদের ওপর হামলাকারিদের যেমন বিচার হবে তেমনি তীর ধনুক নিয়ে যারা পুলিশের ওপর আক্রমণ করেছে তাদেরও বিচারের আওতায় আনা হবে।

 

তিনি বলেন সাঁওতালরা সেখানকার ভূমিতে চাষাবাদ করে আয় করতে পারবে কিন্তু জমির মালিকানা সরকারের হাতে থাকবে।

১৯৫৬ গাইবান্ধার মহিমাগঞ্জ চিনি কলের জন্য প্রায় দুই হাজার একর জমি অধিগ্রহণ করে তৎকালীন সরকার। তখন সেখানে ১৫টি গ্রামে সাঁওতালদের বসবাস ছিল।

গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক আব্দুস সামাদ বলছেন, সাঁওতালদের পুনর্বাসনের জন্য ইতোমধ্যেই নানা প্রস্তাব তারা দিয়েছেন। তিনি বলেন খাদ্যশস্যসহ নানা সহায়তার পাশাপাশি দশ একর জমি চিহ্নিত করা হয়েছে আশ্রয়হীনদের জন্য।

 

রাফায়েল হাযদা বলছেন, খাস জমি নয়, তাদের কাছ থেকে নেয়া জমিই তাদের ফিরিয়ে দিতে হবে। আমাদের বাপ দাদার সম্পত্তির জন্য আমরা জীবন দিয়েছি, রক্ত দিয়েছি, আমরা ওটাই চাই। এমনটাই দাবি তাদের।

যদিও জেলা প্রশাসক বলছেন তারা সাঁওতালদের সাথে আলোচনা করেই এ সমস্যার সমাধান করবেন।

সূত্র: বিবিসি

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X