বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সন্ধ্যা ৬:২৯
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, October 24, 2016 11:27 am
A- A A+ Print

সাব্বির যেন বাংলাদেশের সবচেয়ে ‘দুঃখী মানুষ’

157475_1

   
চট্টগ্রাম: সাকিব আল হাসানের দুর্দান্ত বোলিং পারফরম্যান্স ও মেহেদী হাসান মিরাজের স্বপ্নীল অভিষেক- দুজনের জন্যই চট্টগ্রাম টেস্টে নায়ক হওয়ার মঞ্চ প্রস্তুত ছিল। কিন্তু নাটকীয় ম্যাচের শেষ অঙ্কে সাকিব-মিরাজকে ছাপিয়ে সুপারহিরো হওয়ার সুবর্ণ সুযোগ পান সাব্বির। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক জয়ের জন্য তার দিকেই তাকিয়ে ছিল গোটা দেশ। কিন্তু বেন স্টোকসের তিন বলের ঝড়ে বাংলাদেশের সব স্বপ্ন চূর্ণ হয়। ভেস্তে যায় সাব্বিরের নায়ক হওয়ার স্বপ্নও। কিছুই করার ছিল না আসলে তার। অপর প্রান্তে দাঁড়িয়ে অসহায়ের মতো শুধু দেখলেন দুই সতীর্থ ব্যাটসম্যান তাইজুল আর শফিউলের উইকেটে আসা-যাওয়ার খেলা। তিনি যেন হয়ে গেলেন বাংলাদেশের সবচেয়ে 'দুঃখী মানুষ।'
সোমবার চট্টগ্রাম টেস্টে ২৮৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশের জয়ের জন্য ২ উইকেট হাতে নিয়ে ৩৩ রান দরকার ছিল। শুরুটা দারুণই করেছিলেন সাব্বির ও তাইজুল। দুজন মিলে জয়ের ব্যবধান ২৩-এ নামিয়ে আনেন। এরপরই বাংলাদেশের স্বপ্নে হানা দেন স্টোকস। লাল সবুজের জার্সিধারীদের হৃদয় ভেঙে ইংল্যান্ডকে ২২ রানের মধুর জয় এনে দেন। স্টোকসের করা ৮১তম ওভারের প্রথম বল  তাইজুল প্যাডে আঘাত হানলে লেগ বিফোরের আবেদন জানায় ইংল্যান্ড। কুমার ধর্মসেনা সেই আবেদনে সাড়া না দিলে রিভিউ নেয় ইংল্যান্ড। হক আই দেখার পর থার্ড আম্পায়ার তাইজুলকে আউট দেন। এক বল পর ফের রিভিউতেও বাংলাদেশের স্বপ্ন চুরমার হয়। তৃতীয় বলে আম্পায়ার ধর্মসেনা শফিউলকে আউট দিলে রিভিউ নেয় বাংলাদেশ। রিভিউতে সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের বিপক্ষেই যায়। ফলে স্বপ্নের সমাধি ঘটে টাইগারদের। টেস্ট অভিষেকে বাংলাদেশের হয়ে সেঞ্চুরি করেছেন আমিনুল ইসলাম, মোহাম্মদ আশরাফুল ও আবুল হাসান। অন্যদিকে অভিষেক টেস্টে বাংলাদেশের হয়ে হাফসেঞ্চুরি করারও অনেক উদাহরণ রয়েছে। তবে একটি দিক দিয়ে সবাইকে ছাড়িয়ে গেলেন সাব্বির রহমান। অভিষেক টেস্টের চতুর্থ ইনিংসে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে হাফসেঞ্চুরি করার রেকর্ড গড়েন এই স্টাইলিশ ব্যাটসম্যান। তবে শেষটাতে রাঙাতে পারেননি সাব্বির। তিন বলের ব্যবধানে তাইজুল ও শফিউল বিদায় নিলে ১০৪ বলে ৬৪ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন তিনি। হারের বেদনায় নীল হয়ে মাঠ ছাড়েন এই অভিষিক্ত ক্রিকেটার। চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ব্যাট হাতে সুবিধা করতে পারেননি সাব্বির। মাত্র ১৯ রান করে আউট হন তিনি। তবে বাংলাদেশের প্রয়োজনের মুহূর্তে ঠিকই জ্বলে ওঠেন তিনি। জয়ের জন্য ২৮৬ রানের বড় লক্ষ্য নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ ১৪০ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে যখন ধুঁকছিল ঠিক তখনই ক্রিজে আসেন সাব্বির। ষষ্ঠ উইকেটে মুশফিককে নিয়ে ৮৭ রানের অনবদ্য জুটি গড়ে বাংলাদেশকে জয়ের স্বপ্ন দেখাতে থাকেন তিনি। দলীয় ২২৭ রানের মাথায় মুশফিক আউট হয়ে গেলেই বড় বিপদের মুখে পড়ে বাংলাদেশ। কিছুক্ষণ পর মেহেদী হাসান মিরাজ ও কামরুল হাসান রাব্বি ফিরে গেলে ৮ উইকেটে ২৩৮ রানে পরিণত হয় বাংলাদেশের ইনিংস। সতীর্থদের আসা-যাওয়ার মাঝে ঠিকই একপ্রান্ত আগলে রাখেন সাব্বির। ইংলিশ বোলারদের হুট করেই বাউন্ডারি-ছাড়া করে মনোবল ভেঙে দেয়ার কাজটাও দারুণ করেন তিনি। রোববার রাতে বিছানায় শুয়ে হয়তো জয়ের স্বপ্নই বুনছিলেন সাব্বির। শুরুটাও করেছিলেন দারুণ। কিন্তু নিয়তি যে অন্যরকম চিত্রনাট্য লিখে রেখেছিল। তাই জয়ের নায়ক নয়; পরাজিত দলের অসীম সাহসী যোদ্ধা রয়ে গেলে তিনি।
 

Comments

Comments!

 সাব্বির যেন বাংলাদেশের সবচেয়ে ‘দুঃখী মানুষ’AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

সাব্বির যেন বাংলাদেশের সবচেয়ে ‘দুঃখী মানুষ’

Monday, October 24, 2016 11:27 am
157475_1

 

 

চট্টগ্রাম: সাকিব আল হাসানের দুর্দান্ত বোলিং পারফরম্যান্স ও মেহেদী হাসান মিরাজের স্বপ্নীল অভিষেক- দুজনের জন্যই চট্টগ্রাম টেস্টে নায়ক হওয়ার মঞ্চ প্রস্তুত ছিল। কিন্তু নাটকীয় ম্যাচের শেষ অঙ্কে সাকিব-মিরাজকে ছাপিয়ে সুপারহিরো হওয়ার সুবর্ণ সুযোগ পান সাব্বির।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক জয়ের জন্য তার দিকেই তাকিয়ে ছিল গোটা দেশ। কিন্তু বেন স্টোকসের তিন বলের ঝড়ে বাংলাদেশের সব স্বপ্ন চূর্ণ হয়। ভেস্তে যায় সাব্বিরের নায়ক হওয়ার স্বপ্নও।

কিছুই করার ছিল না আসলে তার। অপর প্রান্তে দাঁড়িয়ে অসহায়ের মতো শুধু দেখলেন দুই সতীর্থ ব্যাটসম্যান তাইজুল আর শফিউলের উইকেটে আসা-যাওয়ার খেলা। তিনি যেন হয়ে গেলেন বাংলাদেশের সবচেয়ে ‘দুঃখী মানুষ।’

সোমবার চট্টগ্রাম টেস্টে ২৮৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশের জয়ের জন্য ২ উইকেট হাতে নিয়ে ৩৩ রান দরকার ছিল। শুরুটা দারুণই করেছিলেন সাব্বির ও তাইজুল। দুজন মিলে জয়ের ব্যবধান ২৩-এ নামিয়ে আনেন। এরপরই বাংলাদেশের স্বপ্নে হানা দেন স্টোকস। লাল সবুজের জার্সিধারীদের হৃদয় ভেঙে ইংল্যান্ডকে ২২ রানের মধুর জয় এনে দেন।

স্টোকসের করা ৮১তম ওভারের প্রথম বল  তাইজুল প্যাডে আঘাত হানলে লেগ বিফোরের আবেদন জানায় ইংল্যান্ড। কুমার ধর্মসেনা সেই আবেদনে সাড়া না দিলে রিভিউ নেয় ইংল্যান্ড। হক আই দেখার পর থার্ড আম্পায়ার তাইজুলকে আউট দেন।

এক বল পর ফের রিভিউতেও বাংলাদেশের স্বপ্ন চুরমার হয়। তৃতীয় বলে আম্পায়ার ধর্মসেনা শফিউলকে আউট দিলে রিভিউ নেয় বাংলাদেশ। রিভিউতে সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের বিপক্ষেই যায়। ফলে স্বপ্নের সমাধি ঘটে টাইগারদের।

টেস্ট অভিষেকে বাংলাদেশের হয়ে সেঞ্চুরি করেছেন আমিনুল ইসলাম, মোহাম্মদ আশরাফুল ও আবুল হাসান। অন্যদিকে অভিষেক টেস্টে বাংলাদেশের হয়ে হাফসেঞ্চুরি করারও অনেক উদাহরণ রয়েছে। তবে একটি দিক দিয়ে সবাইকে ছাড়িয়ে গেলেন সাব্বির রহমান। অভিষেক টেস্টের চতুর্থ ইনিংসে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে হাফসেঞ্চুরি করার রেকর্ড গড়েন এই স্টাইলিশ ব্যাটসম্যান।

তবে শেষটাতে রাঙাতে পারেননি সাব্বির। তিন বলের ব্যবধানে তাইজুল ও শফিউল বিদায় নিলে ১০৪ বলে ৬৪ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন তিনি। হারের বেদনায় নীল হয়ে মাঠ ছাড়েন এই অভিষিক্ত ক্রিকেটার।

চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ব্যাট হাতে সুবিধা করতে পারেননি সাব্বির। মাত্র ১৯ রান করে আউট হন তিনি। তবে বাংলাদেশের প্রয়োজনের মুহূর্তে ঠিকই জ্বলে ওঠেন তিনি। জয়ের জন্য ২৮৬ রানের বড় লক্ষ্য নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ ১৪০ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে যখন ধুঁকছিল ঠিক তখনই ক্রিজে আসেন সাব্বির। ষষ্ঠ উইকেটে মুশফিককে নিয়ে ৮৭ রানের অনবদ্য জুটি গড়ে বাংলাদেশকে জয়ের স্বপ্ন দেখাতে থাকেন তিনি।

দলীয় ২২৭ রানের মাথায় মুশফিক আউট হয়ে গেলেই বড় বিপদের মুখে পড়ে বাংলাদেশ। কিছুক্ষণ পর মেহেদী হাসান মিরাজ ও কামরুল হাসান রাব্বি ফিরে গেলে ৮ উইকেটে ২৩৮ রানে পরিণত হয় বাংলাদেশের ইনিংস। সতীর্থদের আসা-যাওয়ার মাঝে ঠিকই একপ্রান্ত আগলে রাখেন সাব্বির। ইংলিশ বোলারদের হুট করেই বাউন্ডারি-ছাড়া করে মনোবল ভেঙে দেয়ার কাজটাও দারুণ করেন তিনি।

রোববার রাতে বিছানায় শুয়ে হয়তো জয়ের স্বপ্নই বুনছিলেন সাব্বির। শুরুটাও করেছিলেন দারুণ। কিন্তু নিয়তি যে অন্যরকম চিত্রনাট্য লিখে রেখেছিল। তাই জয়ের নায়ক নয়; পরাজিত দলের অসীম সাহসী যোদ্ধা রয়ে গেলে তিনি।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X