রবিবার, ১৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৬ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১২:৪৫
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, December 19, 2016 7:53 am
A- A A+ Print

সিন্দুকের খবরে হুলুস্থুল

download-2

সিন্দুক? শুনেই শুরু হলো মানুষের হুড়োহুড়ি। সবাই হামলে পড়ল একটা পুরোনো বাড়িতে। সবার হাতেই মুঠোফোন। ধারণ করছেন ভিডিওচিত্র। ফেসবুকের কল্যাণে ভিড় আরও বাড়তে লাগল।

গতকাল রোববার দুপুরে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয় রাজশাহী নগরের সাহেব বাজারের মণিচত্বর এলাকার একটি বাড়িতে। পুরোনো ওই বাড়ি ভাঙা হচ্ছিল। সেখানে একটি সিন্দুক পাওয়া গেছে—এমন খবর ছড়িয়ে পড়তেই হুলুস্থুল কাণ্ড ঘটে যায়। সারা শহরে সিন্দুকে গুপ্তধনের খবর রটে যায়। ছুটে আসেন বরেন্দ্র জাদুঘরের কর্মকর্তারা। নিরাপত্তা দিতে আসে পুলিশ। কিন্তু দিন শেষে সবাই হতাশ। প্রমাণ পাওয়া গেল, সিন্দুক মানেই গুপ্তধন নয়।

বাড়িটির মালিক মুক্তিযোদ্ধা দুলাল মিয়া। পুরোনো বাড়িটি ভাঙার জন্য তাঁরা বাড়ির মালামাল অন্যত্র সরিয়ে নিয়েছিলেন। ভারী বলে সিন্দুকটি সরাতে পারেননি। গতকাল বাড়িটি ভাঙার সময় সিন্দুকটি স্থানীয় লোকজনের চোখে পড়ে। তারপরই গুপ্তধনের গুজব ছড়িয়ে পড়ে।

দুলাল মিয়া বলেন, বেশ কিছু দিন আগেই তাঁরা বাড়িটি ছেড়ে অন্য জায়গায় চলে গেছেন। তবে অতিরিক্ত ভারী হওয়ায় সিন্দুকটি নিয়ে যেতে পারেননি। সেটি বাড়ির সিঁড়িঘরে রাখা ছিল। সিন্দুকটি তাঁর বাবার আমলের। বাড়ি ভাঙতে গিয়ে সিন্দুকটি স্থানীয় লোকজন দেখতে পেয়ে নানা গুজব ছড়াতে থাকেন। তবে এর ভেতরে তেমন কিছু ছিল না।

বোয়ালিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাত হোসেন খান বলেন, এটি কোনো গুপ্তধনের সিন্দুক না। সবার সামনেই সিন্দুকের তালা ভাঙা হয়। ভেতরে মালিকের ব্যবসায়ের কিছু কাগজ, জমির দলিল, কিছু টাকা ও নতুন-পুরোনো কয়েকটি ধাতব মুদ্রা পাওয়া গেছে। পরে বাড়ির মালিককে সিন্দুক দিয়ে দেওয়া হয়।

ওসি বলেন, ফেসবুকে গুপ্তধনের খবর ছড়ায়। এ জন্য মানুষ ভিড় করেছিল।

Comments

Comments!

 সিন্দুকের খবরে হুলুস্থুলAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

সিন্দুকের খবরে হুলুস্থুল

Monday, December 19, 2016 7:53 am
download-2

সিন্দুক? শুনেই শুরু হলো মানুষের হুড়োহুড়ি। সবাই হামলে পড়ল একটা পুরোনো বাড়িতে। সবার হাতেই মুঠোফোন। ধারণ করছেন ভিডিওচিত্র। ফেসবুকের কল্যাণে ভিড় আরও বাড়তে লাগল।

গতকাল রোববার দুপুরে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয় রাজশাহী নগরের সাহেব বাজারের মণিচত্বর এলাকার একটি বাড়িতে। পুরোনো ওই বাড়ি ভাঙা হচ্ছিল। সেখানে একটি সিন্দুক পাওয়া গেছে—এমন খবর ছড়িয়ে পড়তেই হুলুস্থুল কাণ্ড ঘটে যায়। সারা শহরে সিন্দুকে গুপ্তধনের খবর রটে যায়। ছুটে আসেন বরেন্দ্র জাদুঘরের কর্মকর্তারা। নিরাপত্তা দিতে আসে পুলিশ। কিন্তু দিন শেষে সবাই হতাশ। প্রমাণ পাওয়া গেল, সিন্দুক মানেই গুপ্তধন নয়।

বাড়িটির মালিক মুক্তিযোদ্ধা দুলাল মিয়া। পুরোনো বাড়িটি ভাঙার জন্য তাঁরা বাড়ির মালামাল অন্যত্র সরিয়ে নিয়েছিলেন। ভারী বলে সিন্দুকটি সরাতে পারেননি। গতকাল বাড়িটি ভাঙার সময় সিন্দুকটি স্থানীয় লোকজনের চোখে পড়ে। তারপরই গুপ্তধনের গুজব ছড়িয়ে পড়ে।

দুলাল মিয়া বলেন, বেশ কিছু দিন আগেই তাঁরা বাড়িটি ছেড়ে অন্য জায়গায় চলে গেছেন। তবে অতিরিক্ত ভারী হওয়ায় সিন্দুকটি নিয়ে যেতে পারেননি। সেটি বাড়ির সিঁড়িঘরে রাখা ছিল। সিন্দুকটি তাঁর বাবার আমলের। বাড়ি ভাঙতে গিয়ে সিন্দুকটি স্থানীয় লোকজন দেখতে পেয়ে নানা গুজব ছড়াতে থাকেন। তবে এর ভেতরে তেমন কিছু ছিল না।

বোয়ালিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাত হোসেন খান বলেন, এটি কোনো গুপ্তধনের সিন্দুক না। সবার সামনেই সিন্দুকের তালা ভাঙা হয়। ভেতরে মালিকের ব্যবসায়ের কিছু কাগজ, জমির দলিল, কিছু টাকা ও নতুন-পুরোনো কয়েকটি ধাতব মুদ্রা পাওয়া গেছে। পরে বাড়ির মালিককে সিন্দুক দিয়ে দেওয়া হয়।

ওসি বলেন, ফেসবুকে গুপ্তধনের খবর ছড়ায়। এ জন্য মানুষ ভিড় করেছিল।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X