শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:০৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, September 20, 2017 9:40 pm
A- A A+ Print

সু চি যেসব মিথ্যা বলেছেন…

e3c0da59cd1cd1125118f41b8bac0ec9-59c2635081074

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর সেনা দমনপীড়ন শুরু হওয়ার ২৪ দিন পর মঙ্গলবার মুখ খোলেন স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। জাতির উদ্দেশে ভাষণে তিনি সহিংসতা ও শরণার্থী সংকট নিয়ে কথা বলেন। তবে তিনি যে অনেক কথাই সত্য বলেননি, সে দাবি বিবিসির দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার প্রতিনিধি জনাথন হেডের। এ সংকট শুরুর পর থেকেই বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তের দুই দিক থেকেই তিনি রোহিঙ্গাদের দুর্ভোগ-দুর্দশা দেখেছেন। এরই প্রেক্ষাপটে সু চির বক্তব্যে কী কী অসংগতি আছে, তা তুলে ধরেছেন এই সাংবাদিক।e3c0da59cd1cd1125118f41b8bac0ec9-59c2635081074 0fef6ed33bbb89041f9afe370325298a-59c2635074085 সু চি তাঁর ভাষণে বলেছেন, ৫ সেপ্টেম্বরের পর রাখাইনে কোনো ধরনের সংঘাতের ঘটনা ঘটেনি। কোনো অভিযানও চলেনি। এ বক্তব্যের জবাবে জনাথন বলেন, ‘৭ সেপ্টেম্বর আমি সরকার আয়োজিত গণমাধ্যম প্রতিনিধিদলের সদস্য হিসেবে আলেল থান কাউয়ে ছিলাম। আমরা স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র থেকে গুলির শব্দ শুনেছি। চার জায়গা থেকে ধোঁয়া উড়তে দেখেছি। এ থেকে বোঝা যায়, গ্রামগুলো পুড়ছে। এরপর বাংলাদেশ অংশ থেকে দেখেছি, নাফ নদীর ওই পাড়ের গ্রাম থেকে ধোঁয়া উড়ছে।’ সু চি বলেছেন, রাষ্ট্রের আইনের বিরুদ্ধে যারা যাবে ও মানবাধিকার লঙ্ঘন করবে; তাদের ধর্ম, বর্ণ বা রাজনৈতিক পরিচয় যা-ই হোক না কেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এর প্রেক্ষাপটে বিবিসির সাংবাদিক বলেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর ক্ষমতার অপব্যবহারের ইতিহাস ৭০ বছরের বেশি। রাখাইন রাজ্যে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কোনো সেনা কর্মকর্তা সুশৃঙ্খল আচরণ করেছেন, এমন নজির নেই। আর এখন তো তাদের অভিযানের মুখে চার লাখের বেশি রোহিঙ্গা রাখাইন থেকে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছে। মংডুতে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্নেল তাঁকে বলেছেন, রোহিঙ্গা নারীদের ধর্ষণের যে অভিযোগ করা হচ্ছে, তা সত্য নয়। এর কারণ ব্যাখ্যা করে ওই সেনা কর্মকর্তা বলেন, তাঁর বাহিনীর লোকজন দুর্বৃত্তদের মোকাবিলায় অনেক বেশি ব্যস্ত ছিলেন। এ ছাড়া রোহিঙ্গা নারীরা দেখতে মোটেও আকর্ষণীয় নন। সু চি বলেছেন, রাখাইনে বসবাসকারী সবাই শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবার সমান সুযোগ পায়। কেউ কোনো ধরনের বৈষম্যের শিকার হয় না। এ ব্যাপারে জনাথনের ভাষ্য, সু চির এ বক্তব্য অসত্য। রোহিঙ্গারা বহু বছর ধরে বৈষম্যের শিকার হচ্ছে। তাদের স্বাধীন চলাফেরার ওপর বিধিনিষেধ আছে। অন্য অঞ্চলে বিয়ে করতে গেলে কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হয়। ২০১২ সালের সাম্প্রদায়িক সহিংসতার পর এই বিধিনিষেধ আরও কঠোর হয়। এমনকি বাস্তুচ্যুত হয়ে আশ্রয়শিবিরে মাথা গোঁজা পরিবারের সদস্যরা বিশেষ অনুমতি ছাড়া অন্যত্র যেতে পারে না। সেখানকার শিশুদের পড়াশোনা অন্তত পাঁচ বছর ধরে বন্ধ হয়ে আছে। চার বছর আগে রাথেডাংয়ের একটি গ্রাম পরিদর্শনের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে এই সাংবাদিক বলেন, সেখানকার রোহিঙ্গারা চিকিৎসার জন্যও অন্য কোথাও যেতে পারেন না। আর বাংলাদেশের রোহিঙ্গা শরণার্থীশিবির পরিদর্শনের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে তিনি বলেন, ‘সেখানে আবদুল মজিদ নামের একজনের সঙ্গে দেখা হয়েছে। তিনি গ দু থার ইয়া গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। পুড়িয়ে দেওয়া গ্রামটি আমি নিজে দেখেছি। সেই আবদুল মজিদ আমাকে জানিয়েছেন যে গত পাঁচ বছরে তিনি তাঁর গ্রামের বাইরে কোথাও কাজের জন্য যেতে পারেননি।’

Comments

Comments!

 সু চি যেসব মিথ্যা বলেছেন…AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

সু চি যেসব মিথ্যা বলেছেন…

Wednesday, September 20, 2017 9:40 pm
e3c0da59cd1cd1125118f41b8bac0ec9-59c2635081074

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর সেনা দমনপীড়ন শুরু হওয়ার ২৪ দিন পর মঙ্গলবার মুখ খোলেন স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। জাতির উদ্দেশে ভাষণে তিনি সহিংসতা ও শরণার্থী সংকট নিয়ে কথা বলেন। তবে তিনি যে অনেক কথাই সত্য বলেননি, সে দাবি বিবিসির দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার প্রতিনিধি জনাথন হেডের। এ সংকট শুরুর পর থেকেই বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তের দুই দিক থেকেই তিনি রোহিঙ্গাদের দুর্ভোগ-দুর্দশা দেখেছেন। এরই প্রেক্ষাপটে সু চির বক্তব্যে কী কী অসংগতি আছে, তা তুলে ধরেছেন এই সাংবাদিক।e3c0da59cd1cd1125118f41b8bac0ec9-59c2635081074 0fef6ed33bbb89041f9afe370325298a-59c2635074085

সু চি তাঁর ভাষণে বলেছেন, ৫ সেপ্টেম্বরের পর রাখাইনে কোনো ধরনের সংঘাতের ঘটনা ঘটেনি। কোনো অভিযানও চলেনি। এ বক্তব্যের জবাবে জনাথন বলেন, ‘৭ সেপ্টেম্বর আমি সরকার আয়োজিত গণমাধ্যম প্রতিনিধিদলের সদস্য হিসেবে আলেল থান কাউয়ে ছিলাম। আমরা স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র থেকে গুলির শব্দ শুনেছি। চার জায়গা থেকে ধোঁয়া উড়তে দেখেছি। এ থেকে বোঝা যায়, গ্রামগুলো পুড়ছে। এরপর বাংলাদেশ অংশ থেকে দেখেছি, নাফ নদীর ওই পাড়ের গ্রাম থেকে ধোঁয়া উড়ছে।’

সু চি বলেছেন, রাষ্ট্রের আইনের বিরুদ্ধে যারা যাবে ও মানবাধিকার লঙ্ঘন করবে; তাদের ধর্ম, বর্ণ বা রাজনৈতিক পরিচয় যা-ই হোক না কেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এর প্রেক্ষাপটে বিবিসির সাংবাদিক বলেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর ক্ষমতার অপব্যবহারের ইতিহাস ৭০ বছরের বেশি। রাখাইন রাজ্যে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কোনো সেনা কর্মকর্তা সুশৃঙ্খল আচরণ করেছেন, এমন নজির নেই। আর এখন তো তাদের অভিযানের মুখে চার লাখের বেশি রোহিঙ্গা রাখাইন থেকে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছে। মংডুতে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্নেল তাঁকে বলেছেন, রোহিঙ্গা নারীদের ধর্ষণের যে অভিযোগ করা হচ্ছে, তা সত্য নয়। এর কারণ ব্যাখ্যা করে ওই সেনা কর্মকর্তা বলেন, তাঁর বাহিনীর লোকজন দুর্বৃত্তদের মোকাবিলায় অনেক বেশি ব্যস্ত ছিলেন। এ ছাড়া রোহিঙ্গা নারীরা দেখতে মোটেও আকর্ষণীয় নন।

সু চি বলেছেন, রাখাইনে বসবাসকারী সবাই শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবার সমান সুযোগ পায়। কেউ কোনো ধরনের বৈষম্যের শিকার হয় না। এ ব্যাপারে জনাথনের ভাষ্য, সু চির এ বক্তব্য অসত্য। রোহিঙ্গারা বহু বছর ধরে বৈষম্যের শিকার হচ্ছে। তাদের স্বাধীন চলাফেরার ওপর বিধিনিষেধ আছে। অন্য অঞ্চলে বিয়ে করতে গেলে কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হয়। ২০১২ সালের সাম্প্রদায়িক সহিংসতার পর এই বিধিনিষেধ আরও কঠোর হয়। এমনকি বাস্তুচ্যুত হয়ে আশ্রয়শিবিরে মাথা গোঁজা পরিবারের সদস্যরা বিশেষ অনুমতি ছাড়া অন্যত্র যেতে পারে না। সেখানকার শিশুদের পড়াশোনা অন্তত পাঁচ বছর ধরে বন্ধ হয়ে আছে। চার বছর আগে রাথেডাংয়ের একটি গ্রাম পরিদর্শনের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে এই সাংবাদিক বলেন, সেখানকার রোহিঙ্গারা চিকিৎসার জন্যও অন্য কোথাও যেতে পারেন না। আর বাংলাদেশের রোহিঙ্গা শরণার্থীশিবির পরিদর্শনের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে তিনি বলেন, ‘সেখানে আবদুল মজিদ নামের একজনের সঙ্গে দেখা হয়েছে। তিনি গ দু থার ইয়া গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। পুড়িয়ে দেওয়া গ্রামটি আমি নিজে দেখেছি। সেই আবদুল মজিদ আমাকে জানিয়েছেন যে গত পাঁচ বছরে তিনি তাঁর গ্রামের বাইরে কোথাও কাজের জন্য যেতে পারেননি।’

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X