বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ভোর ৫:১৪
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, May 15, 2017 11:44 am
A- A A+ Print

সোফা-এসি তাঁর সঙ্গে এল, গেলও তাঁর সঙ্গে

13

সীমান্তে নিহত সেনার প্রতি তিনি শ্রদ্ধা জানাতে এলেন ঠিকই, তবে সেই শ্রদ্ধা অপমান প্রদর্শনের মধ্য দিয়েই শেষ হলো। নিহত সেনার সামান্য আসবাবপত্রের সাধারণ বাড়িটিতে মুখ্যমন্ত্রী আসবেন বলে প্রশাসন থেকে আনা হলো শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র (এসি), সোফাসেট, কার্পেট, এমনকি তোয়ালে পর্যন্ত! তবে তিনি চলে যাওয়া মাত্র সরিয়ে নেওয়া হলো সেগুলো। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তর প্রদেশে। পাকিস্তান সীমান্তে নিয়ন্ত্রণরেখার কাছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) হেড কনস্টেবল প্রেম সাগরসহ দুজন নিহত হন। ২ মে সকালে প্রেম সাগর ও আরেক জওয়ান পরমজিৎ সিংহের ছিন্নবিচ্ছিন্ন দেহ উদ্ধার করা হয়। ভারতের অভিযোগ, বিনা উসকানিতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর হামলায় তাঁরা দুজন নিহত হয়েছেন। এঁদের মধ্যে প্রেম সাগরের বাড়ি উত্তর প্রদেশের দেওরিয়া গ্রামে। তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সেখানে আসেন উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্য নাথ। প্রেম সাগরের বাড়ি পরিদর্শনের সময় যোগী আদিত্য নাথের আরাম নিশ্চিত করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাড়িটিতে এসি ও সোফা নেওয়া হয়। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ–সরবরাহ করা হয়। এমনকি যে কক্ষে আদিত্য নাথ বসবেন, সেখানে কার্পেটও বসানো হয়। রাখা হয় তোয়ালে। প্রেম সাগরের মেয়ে জানিয়েছেন, তাঁদের বাড়িতে মুখ্যমন্ত্রীর আসা উপলক্ষে নেওয়া ‘বিশেষ ব্যবস্থা’ এবং তিনি চলে যাওয়া মাত্র তা সরিয়ে নেওয়ার ঘটনায় তাঁরা ‘অপমানিত’ হয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রী শ্রদ্ধা জানাবেন বলে প্রেম সাগরের মরদেহ সৎকার ২৪ ঘণ্টারও বেশি সময় পিছিয়ে দেওয়া হয়। দেওরিয়া গ্রামের বাসিন্দারা মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য শুনতে চাইছিলেন। মুখ্যমন্ত্রী ফোনে কথা বলার পর এবং তিনি আসবেন প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পর মৃতদেহের সৎকার করা হয়। সপ্তাহ শেষে তিনি প্রেম সাগরের বাড়িতে আসেন। প্রেম সাগরের চার কক্ষের বাড়িটিতে থাকেন তাঁর স্ত্রী ও চার সন্তান। প্রেম সাগরের ছেলে ঈশ্বর বলেন, পরিদর্শনের আগে মুখ্যমন্ত্রী যে কক্ষটিতে বসে কথা বলবেন, সেখানে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ একটি এসি, এক সেট সোফা বসায়। বিছানো হয় কার্পেট। তিনি চলে যাওয়া মাত্র কয়েকজন কর্মকর্তা এসে সবকিছু তুলে নিয়ে চলে যান। প্রেম সাগরের ভাই দয়া শংকর বিএসএফেই কাজ করেন। তিনি বলেন, এটা ছিল ‘অপমান’। স্থানীয় প্রশাসন দু-এক দিন অপেক্ষা করলেও পারত। সূত্র: এনডিটিভি

Comments

Comments!

 সোফা-এসি তাঁর সঙ্গে এল, গেলও তাঁর সঙ্গেAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

সোফা-এসি তাঁর সঙ্গে এল, গেলও তাঁর সঙ্গে

Monday, May 15, 2017 11:44 am
13

সীমান্তে নিহত সেনার প্রতি তিনি শ্রদ্ধা জানাতে এলেন ঠিকই, তবে সেই শ্রদ্ধা অপমান প্রদর্শনের মধ্য দিয়েই শেষ হলো। নিহত সেনার সামান্য আসবাবপত্রের সাধারণ বাড়িটিতে মুখ্যমন্ত্রী আসবেন বলে প্রশাসন থেকে আনা হলো শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র (এসি), সোফাসেট, কার্পেট, এমনকি তোয়ালে পর্যন্ত! তবে তিনি চলে যাওয়া মাত্র সরিয়ে নেওয়া হলো সেগুলো। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তর প্রদেশে।

পাকিস্তান সীমান্তে নিয়ন্ত্রণরেখার কাছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) হেড কনস্টেবল প্রেম সাগরসহ দুজন নিহত হন। ২ মে সকালে প্রেম সাগর ও আরেক জওয়ান পরমজিৎ সিংহের ছিন্নবিচ্ছিন্ন দেহ উদ্ধার করা হয়। ভারতের অভিযোগ, বিনা উসকানিতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর হামলায় তাঁরা দুজন নিহত হয়েছেন। এঁদের মধ্যে প্রেম সাগরের বাড়ি উত্তর প্রদেশের দেওরিয়া গ্রামে। তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সেখানে আসেন উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্য নাথ। প্রেম সাগরের বাড়ি পরিদর্শনের সময় যোগী আদিত্য নাথের আরাম নিশ্চিত করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাড়িটিতে এসি ও সোফা নেওয়া হয়। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ–সরবরাহ করা হয়। এমনকি যে কক্ষে আদিত্য নাথ বসবেন, সেখানে কার্পেটও বসানো হয়। রাখা হয় তোয়ালে।

প্রেম সাগরের মেয়ে জানিয়েছেন, তাঁদের বাড়িতে মুখ্যমন্ত্রীর আসা উপলক্ষে নেওয়া ‘বিশেষ ব্যবস্থা’ এবং তিনি চলে যাওয়া মাত্র তা সরিয়ে নেওয়ার ঘটনায় তাঁরা ‘অপমানিত’ হয়েছেন।

মুখ্যমন্ত্রী শ্রদ্ধা জানাবেন বলে প্রেম সাগরের মরদেহ সৎকার ২৪ ঘণ্টারও বেশি সময় পিছিয়ে দেওয়া হয়। দেওরিয়া গ্রামের বাসিন্দারা মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য শুনতে চাইছিলেন। মুখ্যমন্ত্রী ফোনে কথা বলার পর এবং তিনি আসবেন প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পর মৃতদেহের সৎকার করা হয়। সপ্তাহ শেষে তিনি প্রেম সাগরের বাড়িতে আসেন।

প্রেম সাগরের চার কক্ষের বাড়িটিতে থাকেন তাঁর স্ত্রী ও চার সন্তান। প্রেম সাগরের ছেলে ঈশ্বর বলেন, পরিদর্শনের আগে মুখ্যমন্ত্রী যে কক্ষটিতে বসে কথা বলবেন, সেখানে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ একটি এসি, এক সেট সোফা বসায়। বিছানো হয় কার্পেট। তিনি চলে যাওয়া মাত্র কয়েকজন কর্মকর্তা এসে সবকিছু তুলে নিয়ে চলে যান।

প্রেম সাগরের ভাই দয়া শংকর বিএসএফেই কাজ করেন। তিনি বলেন, এটা ছিল ‘অপমান’। স্থানীয় প্রশাসন দু-এক দিন অপেক্ষা করলেও পারত।

সূত্র: এনডিটিভি

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X