রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১০:০০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, July 26, 2016 11:32 am
A- A A+ Print

‘স্টর্ম টোয়েন্টি সিক্স’ যেভাবে শুরু ও শেষ

148111_1

   
ঢাকা: দীর্ঘ ৮ ঘন্টা পর শেষ হলো রাজধানীর কল্যাণপুরে জঙ্গি আস্তানায় সোয়াটের নেতৃত্বে ‘স্টর্ম টোয়েন্টি সিক্স’ নামক পুলিশ-র্যাব-ডিবির যৌথ অভিযান। এ অভিযানে নিহত হয়েছে ৯ জঙ্গি নিহত হয়। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় একজনকে আটক করা হয়েছে। আহত হয়েছেন কয়েকজন পুলিশ সদস্য। কল্যাণপুরের ফুটওভার ব্রিজ সংলগ্ন একটি বাড়িতে সোমবার দিবাগত রাত ১২টার পর থেকে মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত চলে সশস্ত্র অভিযান। পরে সকাল ৮টার দিকে এই অভিযান সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। তবে অভিযান শেষ হওয়ার পরও বেলা ১১টা পর্যন্ত সেখানে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী উদ্ধার অভিযান চালায়। সেখান থেকে বিপুল পরিমাণ বোমা উদ্ধার করেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। পুলিশের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সোমবার দিবাগত রাত ১২টা, সারাদেশে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর জঙ্গিবিরোধী অভিযান ‘ব্লক রেড’ এর অংশ হিসেবে কল্যাণপুর এলাকায় অভিযানে নামে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ। বেশ কয়েকটি মেসে অভিযান চালানোর পর তারা ফুটওভার ব্রিজ সংলগ্ন ৫ নম্বর রোডের মেসগুলোতে অভিযানে যায়।
রাত ১২টার কিছু সময় পর ৫ নম্বর রোডের ওই সাততলা বাড়িটিতে অভিযানে যায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। বাড়িটির পঞ্চম, ষষ্ঠ ও সপ্তম তলায় মেস ছিলো। সেই মেসগুলোতে অভিযানে গেলে সেখানে থাকা জঙ্গিরা বুঝতে পেরে পুলিশকে লক্ষ্য করে হাতবোমা নিক্ষেপ করে। এতে কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হন। তৎক্ষণাৎ বিষয়টি তারা মিরপুর জোনের উপ-কমিশনারসহ (ডিসি) ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানান। ঘটনাস্থল থেকে কর্মকর্তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান আরো জোরদার করে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনারের নির্দেশে মিরপুর জোনের ডিসি কাইয়ুম উজ্জ জামানের নেতৃত্বে পুরো এলাকা ঘিরে ফেলে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। ঘটনাস্থলে আসে র‌্যাব ও গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) বিপুলসংখ্যক সদস্যও। এরপর আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী আবারো অভিযানে গেলে জঙ্গিদের সঙ্গে গুলিবিনিময় হতে থাকে। পুলিশের সঙ্গে গুলিবিনিময়কালে হাস‍ান নামে জঙ্গিদের একজন আহত হয়। তাকে আটক করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সে পুলিশকে জানায়, মেসে আরো ৯ জঙ্গি সদস্য রয়েছে। তার কাছ থেকে তথ্য পেয়ে এ নিয়ে রাতেই রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসে আইন-শৃঙ্খল‍া বাহিনী। যেহেতু ওই বাড়িটির অন্যান্য ফ্ল্যাটে সাধারণ লোকজন থাকে, সেহেতু তাদের নিরাপত্তার কথা ভেবে রাতের পরিবর্তে দিনের আলোতেই অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সিদ্ধান্ত অনুসারে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের বিশেষায়িত টিম সোয়াটের নেতৃত্বে ভোর ৬টা ৫১ মিনিটে অভিযান শুরু হয়। অভিযানের নাম দেওয়া হয় ‘স্টর্ম টোয়েন্টি সিক্স’। এতে সহযোগিতা করে পুলিশের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট, র‌্যাব ও ফায়ার সার্ভিস। প্রায় এক ঘণ্টা ধরে থেমে চলতে থাকে গুলিবিনিময়। এক ঘণ্টা পর ভোর ৭টা ৫১ মিনিটের দিকে শেষ হয় সোয়াটের নেতৃত্বাধীন ‘স্টর্ম টোয়েন্টি সিক্স’। ঘটনাস্থলেই মারা যায় ৯ জঙ্গি। সকাল ৮টার দিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) একেএম শহীদুল হক। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, নিহত জঙ্গিদের পোশাক-আসবাব সবকিছুতেই গুলশানে হামলাকারীদের সঙ্গে মিল রয়েছে। তদন্ত শেষে এ সম্পর্কে বিস্তারিত বলা যাবে। জঙ্গিরা গুলি করতে করতে পালাতে চেষ্টা করেছিলো। তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে হ্যান্ড গ্রেনেডও ছুড়ে। তবে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা সতর্ক থাকায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। এই জঙ্গি আস্তানায় বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক রয়েছে। রাজধানী ঢাকায় বড় ধরনের হামলার পরিকল্পনা ছিলো তাদের। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া ও ডিবির যুগ্ম-কমিশনার মনিরুল ইসলামসহ পুলিশের অন্যান্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। সকাল ৮টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) ক্রাইম সিন ইউনিট। এদিকে সোয়া ৮টার দিকে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে অভিয‍ানে নেতৃত্ব দেওয়া সোয়াট। সিআইডির ক্রাইম সিন ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছেই তাদের তৎপরতা শুরু করে। এদিকে তবে অভিযান শেষ হওয়ার পরও বেলা ১১টা পর্যন্ত সেখানে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী উদ্ধার অভিযান চালায়। সেখান থেকে বিপুল পরিমাণ বোমা উদ্ধার করেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।
 

Comments

Comments!

 ‘স্টর্ম টোয়েন্টি সিক্স’ যেভাবে শুরু ও শেষAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

‘স্টর্ম টোয়েন্টি সিক্স’ যেভাবে শুরু ও শেষ

Tuesday, July 26, 2016 11:32 am
148111_1

 

 

ঢাকা: দীর্ঘ ৮ ঘন্টা পর শেষ হলো রাজধানীর কল্যাণপুরে জঙ্গি আস্তানায় সোয়াটের নেতৃত্বে ‘স্টর্ম টোয়েন্টি সিক্স’ নামক পুলিশ-র্যাব-ডিবির যৌথ অভিযান। এ অভিযানে নিহত হয়েছে ৯ জঙ্গি নিহত হয়। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় একজনকে আটক করা হয়েছে। আহত হয়েছেন কয়েকজন পুলিশ সদস্য।

কল্যাণপুরের ফুটওভার ব্রিজ সংলগ্ন একটি বাড়িতে সোমবার দিবাগত রাত ১২টার পর থেকে মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত চলে সশস্ত্র অভিযান। পরে সকাল ৮টার দিকে এই অভিযান সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। তবে অভিযান শেষ হওয়ার পরও বেলা ১১টা পর্যন্ত সেখানে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী উদ্ধার অভিযান চালায়। সেখান থেকে বিপুল পরিমাণ বোমা উদ্ধার করেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

পুলিশের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সোমবার দিবাগত রাত ১২টা, সারাদেশে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর জঙ্গিবিরোধী অভিযান ‘ব্লক রেড’ এর অংশ হিসেবে কল্যাণপুর এলাকায় অভিযানে নামে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ। বেশ কয়েকটি মেসে অভিযান চালানোর পর তারা ফুটওভার ব্রিজ সংলগ্ন ৫ নম্বর রোডের মেসগুলোতে অভিযানে যায়।

রাত ১২টার কিছু সময় পর ৫ নম্বর রোডের ওই সাততলা বাড়িটিতে অভিযানে যায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। বাড়িটির পঞ্চম, ষষ্ঠ ও সপ্তম তলায় মেস ছিলো। সেই মেসগুলোতে অভিযানে গেলে সেখানে থাকা জঙ্গিরা বুঝতে পেরে পুলিশকে লক্ষ্য করে হাতবোমা নিক্ষেপ করে। এতে কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হন। তৎক্ষণাৎ বিষয়টি তারা মিরপুর জোনের উপ-কমিশনারসহ (ডিসি) ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানান।

ঘটনাস্থল থেকে কর্মকর্তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান আরো জোরদার করে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনারের নির্দেশে মিরপুর জোনের ডিসি কাইয়ুম উজ্জ জামানের নেতৃত্বে পুরো এলাকা ঘিরে ফেলে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। ঘটনাস্থলে আসে র‌্যাব ও গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) বিপুলসংখ্যক সদস্যও। এরপর আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী আবারো অভিযানে গেলে জঙ্গিদের সঙ্গে গুলিবিনিময় হতে থাকে।

পুলিশের সঙ্গে গুলিবিনিময়কালে হাস‍ান নামে জঙ্গিদের একজন আহত হয়। তাকে আটক করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সে পুলিশকে জানায়, মেসে আরো ৯ জঙ্গি সদস্য রয়েছে। তার কাছ থেকে তথ্য পেয়ে এ নিয়ে রাতেই রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসে আইন-শৃঙ্খল‍া বাহিনী। যেহেতু ওই বাড়িটির অন্যান্য ফ্ল্যাটে সাধারণ লোকজন থাকে, সেহেতু তাদের নিরাপত্তার কথা ভেবে রাতের পরিবর্তে দিনের আলোতেই অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সিদ্ধান্ত অনুসারে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের বিশেষায়িত টিম সোয়াটের নেতৃত্বে ভোর ৬টা ৫১ মিনিটে অভিযান শুরু হয়। অভিযানের নাম দেওয়া হয় ‘স্টর্ম টোয়েন্টি সিক্স’। এতে সহযোগিতা করে পুলিশের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট, র‌্যাব ও ফায়ার সার্ভিস। প্রায় এক ঘণ্টা ধরে থেমে চলতে থাকে গুলিবিনিময়।

এক ঘণ্টা পর ভোর ৭টা ৫১ মিনিটের দিকে শেষ হয় সোয়াটের নেতৃত্বাধীন ‘স্টর্ম টোয়েন্টি সিক্স’। ঘটনাস্থলেই মারা যায় ৯ জঙ্গি।

সকাল ৮টার দিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) একেএম শহীদুল হক। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, নিহত জঙ্গিদের পোশাক-আসবাব সবকিছুতেই গুলশানে হামলাকারীদের সঙ্গে মিল রয়েছে। তদন্ত শেষে এ সম্পর্কে বিস্তারিত বলা যাবে। জঙ্গিরা গুলি করতে করতে পালাতে চেষ্টা করেছিলো। তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে হ্যান্ড গ্রেনেডও ছুড়ে। তবে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা সতর্ক থাকায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। এই জঙ্গি আস্তানায় বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক রয়েছে। রাজধানী ঢাকায় বড় ধরনের হামলার পরিকল্পনা ছিলো তাদের।

এসময় তার সঙ্গে ছিলেন ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া ও ডিবির যুগ্ম-কমিশনার মনিরুল ইসলামসহ পুলিশের অন্যান্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

সকাল ৮টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) ক্রাইম সিন ইউনিট। এদিকে সোয়া ৮টার দিকে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে অভিয‍ানে নেতৃত্ব দেওয়া সোয়াট। সিআইডির ক্রাইম সিন ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছেই তাদের তৎপরতা শুরু করে।

এদিকে তবে অভিযান শেষ হওয়ার পরও বেলা ১১টা পর্যন্ত সেখানে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী উদ্ধার অভিযান চালায়। সেখান থেকে বিপুল পরিমাণ বোমা উদ্ধার করেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X