শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ২:০৯
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, July 31, 2016 11:18 am
A- A A+ Print

স্বাভাবিক হয়নি পাটুরিয়ায় ফেরি, কমছে যানবাহনের চাপ

148615_1

   
মানিকগঞ্জ: দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার প্রবেশদার পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে তীব্র স্রোতে ফেরি চলাচলে ধীরগতি ও বিকল হয়ে গত সপ্তাহের বেশি সময় ধরে ব্যাহত হচ্ছে যানবাহন পারাপার। এই সময়ের মধ্যে উভয় পাড়ের ঘাট এলাকায় যানবাহনের চাপ কিছুটা বাড়লে-কমলেও রবিবার সকালেও এই পরিস্থিতির কোন উন্নতি হয়নি। তবে, সাপ্তাহিক ছুটি শেষ হওয়ায় ও বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে চলাচল করায় সকাল থেকে ফেরি পারাপারে যানবাহনের চাপ কিছুটা কমেছে।
ফেরি পারের অপেক্ষায় এখন উভয় পাড়ের ঘাট এলাকায় বাস, ট্রাকসহ বিভিন্ন ধরনের আট শতাধিক যানবাহন আটকে পড়েছে। ছোট-বড় নয়টি ফেরিতে এসব যানবাহন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করা হচ্ছে। এই স্বল্প সংখ্যক ফেরির কারণে দীর্ঘ সারিতে ঘাট এলাকায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করায় ভোগান্তিতে পড়েছেন এসব যানবাহন শ্রমিকসহ হাজারো যাত্রী। আর পদ্মা নদীর তীব্র স্রোতে ভাঙনের কবলে পড়ে দৌলতদিয়ার দুইটি ফেরিঘাট বন্ধ হয়ে গেছে। অন্য দুইটিও যেকোন সময় নদীতে ভেঙ্গে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা। বিআইডব্লিউটিসি’র আরিচা কার্যালয় থেকে জানা যায়, গত কয়েক দিনে পদ্মা নদীতে পানি বৃদ্ধি পেয়ে সৃষ্টি হয়েছে তীব্র স্রোত। এই স্রোতের সঙ্গে পলি এসে জমে নৌপথে বেশ কিছু স্থানে নাব্য সংকট ও ডুবোচর দেখা দিয়েছে। ডুবোচর এড়িয়ে ফেরি চলাচল করতে ও বিশেষ করে পাটুরিয়া থেকে দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরি যাওয়ার সময় ধীরগতির কারণে প্রায় দেড়গুণ সময় বেশি লাগছে। দৌলতদিয়া ঘাটের কাছেই সবচে’ বেশি স্রোত রয়েছে। এই স্রোতে মাত্রাতিরিক্ত গতিতে ফেরি চলতে হচ্ছে। রো রো (বড়) ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান ও বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান এই স্রোতের প্রতিকূলে চলাচল করতে পারছে না। এ কারণে ফেরি দুইটি ঘাটে নোঙর করে রাখা হয়েছে। গত বুধবার সন্ধ্যায় এই স্রোতের প্রতিকূলে চলতে গিয়ে রো রো ফেরি খান জাহান আলী বিকল হয়ে পড়েছে। স্রোতের প্রতিকূলে চলাচল করতে না পারায় গতকাল শনিবার রো রো ফেরি শাহ মখদুম পাটুরিয়ায় নোঙর করে রাখা হয়েছে। একই দিনে মাঝ নদীতে বিকল হয়ে পড়েছে ইউটিলিটি (মাঝারি) চন্দ্র মল্লিকা ও কে-টাইপ  (ছোট) ফেরি কপোতী। এই বিকল ফেরিসহ আরো দুইটি ইউটিলিটি (মাঝারি) ও একটি কে-টাইপ (ছোট) ফেরি পাটুরিয়ায় ভাসমান কারখানা মধুমতিতে যান্ত্রিক ত্রুটি মেরামত করা হচ্ছে। তারমধ্যে থেকে ইউটিলিটি মাধবীলতা ফেরি প্রায় চার মাস ধরে প্রোপেলার সমস্যায় বিকল হয়ে আছে। বিআইডব্লিউটিসি’র আরিচা কার্যালয়ের সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মহিউদ্দিন রাসেল জানান, রবিবার সকালে থেকে এই নৌপথে পাঁচটি রো রো, তিনটি ইউটিলিটি ও একটি কে-টাইপ ফেরি যানবাহন পারাপার করছে। এর মধ্যে থেকে যেকোন সময় ফেরি বিকল হয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এই অবস্থায় তীব্র স্রোতে সচল ফেরিগুলো দিয়ে যানবাহন পারাপার ব্যাহত হচ্ছে। এছাড়াও, গত তিনদিন ধরে পানিতে ডুবে গিয়ে পাটুরিয়ার এক নম্বর ইউটিলিটি ফেরি ঘাট বন্ধ রয়েছে। এ কারণে উভয় পাড়ের ঘাট এলাকায় যানবাহনের চাপ পড়েছে। গত সপ্তাহেও এই চাপ পড়েছিল। এই সপ্তাহেও একই অবস্থার সৃষ্টি হয়ে শুক্রবার যানবাহনের চাপ বেড়ে যায়। রবিবার সকালে তা অনেক কমে গেছে। সকাল ১০টা পর্যন্ত পাটুরিয়া ঘাটে দুইশ’ ট্রাকসহ ছোট-বড় তিন শতাধিক যানবাহন ফেরি পারের অপেক্ষায় রয়েছে। নদীতে স্রোত কমলে ও বিকল ফেরি মেরামত শেষে পারাপার যোগ দিলেই যানবাহনের এই চাপ মোকাবিলা করা সম্ভব হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন রাসেল। বিআইডব্লিউটিসি’র দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) সফিকুল ইসলাম জানান, তীব্র স্রোতে নদী ভাঙনের হুমকির মুখে পড়েছে দৌলতদিয়ার সবকটি ফেরিঘাট। ইতোমধ্যেই দুইটি ঘাট বন্ধ হয়ে গেছে। ঘাট দুইটি মেরামত করছে বিআইডব্লিউটিএ। যেকোন সময় অন্য দুইটিও নদীতে ভেঙ্গে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। আর ১০টা পর্যন্ত চারশ’ ট্রাকসহ বাস ও ছোট-বড় পাঁচ শতাধিক যানবাহন এই ঘাটে ফেরি পারের অপেক্ষায় আটকে রয়েছে। পাটুরিয়া ফেরিঘাটের ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক আনোয়ার হোসেন জানান, সাপ্তাহিক ছুটির দিনে যানবাহনের বাড়তি চাপ পড়েছিল। ছুটি শেষে হওয়ায় ও অনেক যানবাহন বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে চলাচল করায় চাপ অনেকটাই কমেছে। যানজট নিরসনে ঘাট ও সংযোগ সড়কে যানবাহন সারিবদ্ধভাবে রাখা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

Comments

Comments!

 স্বাভাবিক হয়নি পাটুরিয়ায় ফেরি, কমছে যানবাহনের চাপAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

স্বাভাবিক হয়নি পাটুরিয়ায় ফেরি, কমছে যানবাহনের চাপ

Sunday, July 31, 2016 11:18 am
148615_1

 

 

মানিকগঞ্জ: দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার প্রবেশদার পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে তীব্র স্রোতে ফেরি চলাচলে ধীরগতি ও বিকল হয়ে গত সপ্তাহের বেশি সময় ধরে ব্যাহত হচ্ছে যানবাহন পারাপার।

এই সময়ের মধ্যে উভয় পাড়ের ঘাট এলাকায় যানবাহনের চাপ কিছুটা বাড়লে-কমলেও রবিবার সকালেও এই পরিস্থিতির কোন উন্নতি হয়নি।

তবে, সাপ্তাহিক ছুটি শেষ হওয়ায় ও বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে চলাচল করায় সকাল থেকে ফেরি পারাপারে যানবাহনের চাপ কিছুটা কমেছে।

ফেরি পারের অপেক্ষায় এখন উভয় পাড়ের ঘাট এলাকায় বাস, ট্রাকসহ বিভিন্ন ধরনের আট শতাধিক যানবাহন আটকে পড়েছে। ছোট-বড় নয়টি ফেরিতে এসব যানবাহন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করা হচ্ছে।

এই স্বল্প সংখ্যক ফেরির কারণে দীর্ঘ সারিতে ঘাট এলাকায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করায় ভোগান্তিতে পড়েছেন এসব যানবাহন শ্রমিকসহ হাজারো যাত্রী।

আর পদ্মা নদীর তীব্র স্রোতে ভাঙনের কবলে পড়ে দৌলতদিয়ার দুইটি ফেরিঘাট বন্ধ হয়ে গেছে। অন্য দুইটিও যেকোন সময় নদীতে ভেঙ্গে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

বিআইডব্লিউটিসি’র আরিচা কার্যালয় থেকে জানা যায়, গত কয়েক দিনে পদ্মা নদীতে পানি বৃদ্ধি পেয়ে সৃষ্টি হয়েছে তীব্র স্রোত। এই স্রোতের সঙ্গে পলি এসে জমে নৌপথে বেশ কিছু স্থানে নাব্য সংকট ও ডুবোচর দেখা দিয়েছে।

ডুবোচর এড়িয়ে ফেরি চলাচল করতে ও বিশেষ করে পাটুরিয়া থেকে দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরি যাওয়ার সময় ধীরগতির কারণে প্রায় দেড়গুণ সময় বেশি লাগছে। দৌলতদিয়া ঘাটের কাছেই সবচে’ বেশি স্রোত রয়েছে।

এই স্রোতে মাত্রাতিরিক্ত গতিতে ফেরি চলতে হচ্ছে।

রো রো (বড়) ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান ও বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান এই স্রোতের প্রতিকূলে চলাচল করতে পারছে না। এ কারণে ফেরি দুইটি ঘাটে নোঙর করে রাখা হয়েছে।

গত বুধবার সন্ধ্যায় এই স্রোতের প্রতিকূলে চলতে গিয়ে রো রো ফেরি খান জাহান আলী বিকল হয়ে পড়েছে। স্রোতের প্রতিকূলে চলাচল করতে না পারায় গতকাল শনিবার রো রো ফেরি শাহ মখদুম পাটুরিয়ায় নোঙর করে রাখা হয়েছে।

একই দিনে মাঝ নদীতে বিকল হয়ে পড়েছে ইউটিলিটি (মাঝারি) চন্দ্র মল্লিকা ও কে-টাইপ  (ছোট) ফেরি কপোতী।

এই বিকল ফেরিসহ আরো দুইটি ইউটিলিটি (মাঝারি) ও একটি কে-টাইপ (ছোট) ফেরি পাটুরিয়ায় ভাসমান কারখানা মধুমতিতে যান্ত্রিক ত্রুটি মেরামত করা হচ্ছে। তারমধ্যে থেকে ইউটিলিটি মাধবীলতা ফেরি প্রায় চার মাস ধরে প্রোপেলার সমস্যায় বিকল হয়ে আছে।

বিআইডব্লিউটিসি’র আরিচা কার্যালয়ের সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মহিউদ্দিন রাসেল জানান, রবিবার সকালে থেকে এই নৌপথে পাঁচটি রো রো, তিনটি ইউটিলিটি ও একটি কে-টাইপ ফেরি যানবাহন পারাপার করছে।

এর মধ্যে থেকে যেকোন সময় ফেরি বিকল হয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এই অবস্থায় তীব্র স্রোতে সচল ফেরিগুলো দিয়ে যানবাহন পারাপার ব্যাহত হচ্ছে।

এছাড়াও, গত তিনদিন ধরে পানিতে ডুবে গিয়ে পাটুরিয়ার এক নম্বর ইউটিলিটি ফেরি ঘাট বন্ধ রয়েছে।

এ কারণে উভয় পাড়ের ঘাট এলাকায় যানবাহনের চাপ পড়েছে। গত সপ্তাহেও এই চাপ পড়েছিল। এই সপ্তাহেও একই অবস্থার সৃষ্টি হয়ে শুক্রবার যানবাহনের চাপ বেড়ে যায়।

রবিবার সকালে তা অনেক কমে গেছে। সকাল ১০টা পর্যন্ত পাটুরিয়া ঘাটে দুইশ’ ট্রাকসহ ছোট-বড় তিন শতাধিক যানবাহন ফেরি পারের অপেক্ষায় রয়েছে।

নদীতে স্রোত কমলে ও বিকল ফেরি মেরামত শেষে পারাপার যোগ দিলেই যানবাহনের এই চাপ মোকাবিলা করা সম্ভব হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন রাসেল।

বিআইডব্লিউটিসি’র দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) সফিকুল ইসলাম জানান, তীব্র স্রোতে নদী ভাঙনের হুমকির মুখে পড়েছে দৌলতদিয়ার সবকটি ফেরিঘাট। ইতোমধ্যেই দুইটি ঘাট বন্ধ হয়ে গেছে।

ঘাট দুইটি মেরামত করছে বিআইডব্লিউটিএ। যেকোন সময় অন্য দুইটিও নদীতে ভেঙ্গে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আর ১০টা পর্যন্ত চারশ’ ট্রাকসহ বাস ও ছোট-বড় পাঁচ শতাধিক যানবাহন এই ঘাটে ফেরি পারের অপেক্ষায় আটকে রয়েছে।

পাটুরিয়া ফেরিঘাটের ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক আনোয়ার হোসেন জানান, সাপ্তাহিক ছুটির দিনে যানবাহনের বাড়তি চাপ পড়েছিল। ছুটি শেষে হওয়ায় ও অনেক যানবাহন বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে চলাচল করায় চাপ অনেকটাই কমেছে।

যানজট নিরসনে ঘাট ও সংযোগ সড়কে যানবাহন সারিবদ্ধভাবে রাখা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X