শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:১২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, January 26, 2017 7:38 pm
A- A A+ Print

হরতালে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় এএসআই প্রত্যাহার, তদন্ত কমিটি

34

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র বাতিলের দাবিতে তেল-গ্যাস ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় ডাকা আধাবেলা হরতাল কর্মসূচিতে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় এটিএন নিউজের দুই সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় সহকারী উপ-পরিদর্শক এরশাদকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার শাহবাগ থানার সামনে কয়েকজন পুলিশ মিলে বেসরকারি টেলিভিশন এটিএন নিউজের ক্যামেরা পারসন আবদুল আলিমকে ফেলে বেধড়ক পেটান। তাকে বাঁচাতে এগিয়ে গেলে রিপোর্টার কাজী ইশান বিন দিদারও হামলার শিকার হন। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করতে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে পুলিশ। আগামী দুই দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তদন্ত কমিটিতে রয়েছেন- এডিসি (অ্যাডমিন) নাবিদ কামাল শৈবাল, এডিসি রমনা আজিমুল হক ও এসি রমনা ইহসানুল হক। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) রমনা জোনের উপকমিশনার মারুফ হোসেন সরদার বিষয়টি জানিয়েছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে তেল-গ্যাস ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সুন্দরবন বাঁচানোর হরতালে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ও গরম পানি ছুড়ে মারে। এরপর দফায় দফায় তাদের সঙ্গে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এটিএন নিউজের অ্যসোসিয়েট হেড অব নিউজ প্রভাষ আমিন তার ফেসবুক টাইমলাইনে জানান, পুলিশ হরতাল সমর্থকদের পেটাচ্ছিল। তার ছবি তুলছিলেন এটিএন নিউজের ক্যামেরাপারসন আব্দুল আলিম। 'এ অপরাধে' পুলিশ শাহবাগ থানার ভেতরে নিয়ে তাকে পেটাতে থাকে। বাধা দিতে গেলে রিপোর্টার ইশান দিদারকেও পিটিয়েছে পুলিশ। তিনি আরো জানান, ২০/৩০ জন পুলিশ মিলে এই দুই সাংবাদিককে বেধড়ক পিটিয়েছে। এখন তাদের ঢাকা মেডিকেলে নেয়া হয়েছে। আলিমের আঘাত গুরুতর, ইশানের আঘাতও কম নয়। এদিকে শাহবাগ থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ঘটনার সময় তিনি রাস্তার উল্টোদিকে ছিলেন। ঘটনাস্থল সিসি ক্যামেরায় আওতাধীন, যারা এ ঘটনায় জড়িত তাদের বের করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। কিন্তু ব্যবস্থা না নেয়ার আগে থানা না ছাড়তে অনঢ় ছিলেন সাংবাদিকরা। পুলিশের পিটুনিতে আহত দুই সাংবাদিককে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে শাহবাগ থানায় আনা হয়। পরে কারা হামলা করেছে তাদের চিহ্নিত করার জন্য এই দুই সাংবাদিকদের সামনেই পুলিশ সদস্যদের নিয়ে আসা হয়। জানতে চাওয়া হয় এদের মধ্যে কেউ দোষী কি না। পাঁচবারে ৫০ জন পুলিশ সদস্যকে হাজির করিয়ে জানতে চাওয়া হয়, এদের কেউ হামলাকারী কি না। আর সাংবাদিকরা প্রধান সন্দেহভাজন সহকারী উপপরিদর্শক এরশাদ মণ্ডলসহ সাত জনকে চিহ্নিত করেন। এই প্রতিবেদন প্রকাশ পর্যন্ত দুই জনের নাম পাওয়া গেছে। এরা হলেন,কনস্টেবল মোখলেছুর রহমান ও কনস্টেবল সাগর। এরই মধ্যে প্রধান সন্দেহভাজন এরশাদ মণ্ডলকে বরখাস্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা অঞ্চলের উপকমিশনার খন্দকার মারুফ হোসেন সরদার। তিনি জানান, তদন্ত শেষে অভিযুক্ত সবার বিরুদ্ধেই বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। সকালে জাতীয় কমিটির হরতালকে সমর্থনকারী বামপন্থি ছাত্র সংগঠনের নেতা-কর্মীদের হটাতে পুলিশের আচরণও ছিল আক্রমণাত্মক। তারা দফায় দফায় কাঁদানে গ্যাস ও গরম পানি ছুড়ে।
 

Comments

Comments!

 হরতালে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় এএসআই প্রত্যাহার, তদন্ত কমিটিAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

হরতালে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় এএসআই প্রত্যাহার, তদন্ত কমিটি

Thursday, January 26, 2017 7:38 pm
34

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র বাতিলের দাবিতে তেল-গ্যাস ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় ডাকা আধাবেলা হরতাল কর্মসূচিতে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় এটিএন নিউজের দুই সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় সহকারী উপ-পরিদর্শক এরশাদকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার শাহবাগ থানার সামনে কয়েকজন পুলিশ মিলে বেসরকারি টেলিভিশন এটিএন নিউজের ক্যামেরা পারসন আবদুল আলিমকে ফেলে বেধড়ক পেটান। তাকে বাঁচাতে এগিয়ে গেলে রিপোর্টার কাজী ইশান বিন দিদারও হামলার শিকার হন।

ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করতে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে পুলিশ। আগামী দুই দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

তদন্ত কমিটিতে রয়েছেন- এডিসি (অ্যাডমিন) নাবিদ কামাল শৈবাল, এডিসি রমনা আজিমুল হক ও এসি রমনা ইহসানুল হক।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) রমনা জোনের উপকমিশনার মারুফ হোসেন সরদার বিষয়টি জানিয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে তেল-গ্যাস ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সুন্দরবন বাঁচানোর হরতালে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ও গরম পানি ছুড়ে মারে। এরপর দফায় দফায় তাদের সঙ্গে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

এটিএন নিউজের অ্যসোসিয়েট হেড অব নিউজ প্রভাষ আমিন তার ফেসবুক টাইমলাইনে জানান, পুলিশ হরতাল সমর্থকদের পেটাচ্ছিল। তার ছবি তুলছিলেন এটিএন নিউজের ক্যামেরাপারসন আব্দুল আলিম। ‘এ অপরাধে’ পুলিশ শাহবাগ থানার ভেতরে নিয়ে তাকে পেটাতে থাকে। বাধা দিতে গেলে রিপোর্টার ইশান দিদারকেও পিটিয়েছে পুলিশ।

তিনি আরো জানান, ২০/৩০ জন পুলিশ মিলে এই দুই সাংবাদিককে বেধড়ক পিটিয়েছে। এখন তাদের ঢাকা মেডিকেলে নেয়া হয়েছে। আলিমের আঘাত গুরুতর, ইশানের আঘাতও কম নয়।

এদিকে শাহবাগ থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ঘটনার সময় তিনি রাস্তার উল্টোদিকে ছিলেন। ঘটনাস্থল সিসি ক্যামেরায় আওতাধীন, যারা এ ঘটনায় জড়িত তাদের বের করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কিন্তু ব্যবস্থা না নেয়ার আগে থানা না ছাড়তে অনঢ় ছিলেন সাংবাদিকরা। পুলিশের পিটুনিতে আহত দুই সাংবাদিককে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে শাহবাগ থানায় আনা হয়। পরে কারা হামলা করেছে তাদের চিহ্নিত করার জন্য এই দুই সাংবাদিকদের সামনেই পুলিশ সদস্যদের নিয়ে আসা হয়। জানতে চাওয়া হয় এদের মধ্যে কেউ দোষী কি না।

পাঁচবারে ৫০ জন পুলিশ সদস্যকে হাজির করিয়ে জানতে চাওয়া হয়, এদের কেউ হামলাকারী কি না। আর সাংবাদিকরা প্রধান সন্দেহভাজন সহকারী উপপরিদর্শক এরশাদ মণ্ডলসহ সাত জনকে চিহ্নিত করেন। এই প্রতিবেদন প্রকাশ পর্যন্ত দুই জনের নাম পাওয়া গেছে। এরা হলেন,কনস্টেবল মোখলেছুর রহমান ও কনস্টেবল সাগর।

এরই মধ্যে প্রধান সন্দেহভাজন এরশাদ মণ্ডলকে বরখাস্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা অঞ্চলের উপকমিশনার খন্দকার মারুফ হোসেন সরদার। তিনি জানান, তদন্ত শেষে অভিযুক্ত সবার বিরুদ্ধেই বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সকালে জাতীয় কমিটির হরতালকে সমর্থনকারী বামপন্থি ছাত্র সংগঠনের নেতা-কর্মীদের হটাতে পুলিশের আচরণও ছিল আক্রমণাত্মক। তারা দফায় দফায় কাঁদানে গ্যাস ও গরম পানি ছুড়ে।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X