সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৯:৫৮
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, December 18, 2016 8:47 pm
A- A A+ Print

১১ ‘স্বামী’কে প্রতারিত করে পুলিশের জালে সুন্দরী

333

একটা, দু’টো নয়, একেবারে ১১ জনকে বিয়ে করে তাঁদের টাকাপয়সা, গয়না হাতিয়ে পালাত ২৩ বছরের সুদর্শনা মেঘা। বেশ কয়েকটি অভিযোগ পাওয়ার পর এই ‘সুন্দরী পাখি’ ধরতে জাল পাতে পুলিশ। কিন্তু তিনি এতটাই ধুরন্দর যে দুঁদে পুলিশ অফিসারদেরও নাকানি চোবানি খেতে হয়েছে মেঘার কাছে। সোনম কপূরের অভিনীত ‘ডলি কি ডোলি’ ছবিটা মনে আছে তো? ঠিক সে রকমই ফিল্মি কায়দায় অসহায় পুরুষদের শিকার বানানোর জন্য ফাঁদ পাতত মেঘা। নয়ডার বাসিন্দা মেঘনা ভার্গব। থাকে দিদি আর জামাইবাবুর সঙ্গে। সেখান থেকে পাড়ি দেয় কেরলে। শিকারের খোঁজে নেমে পড়ে সে। পুলিশ জানিয়েছে, তাকে এই কাজে সাহায্য করত মহেন্দ্র নামে এক যুবক। সে খুঁজে খুঁজে সেই পুরুষের খবর দিত মেঘনাকে যাঁদের বয়স হয়ে গিয়েছে, অথচ বিয়ে হয়নি, ডিভোর্সি পাত্র। আবার যাঁদের গায়ের রং কালো, ভাল পাত্রী পাচ্ছেন না। এমনকী শারীরিক ভাবে অক্ষম পুরুষদের কাছে নিজের রূপের ললনায় মন ভুলিয়ে বিয়ের প্রস্তাব দিত। তবে খেয়াল রাখত এরা সবাই বিত্তবান কিনা! সেই বুঝেই সে দিকে পা বাড়াত মেঘনা। প্রথমে তাঁদের সঙ্গে আলাপ জমাত, তার পর বিয়ের প্রস্তাব। বিয়ে করার পরই সুযোগ খুঁজত গয়না কী ভাবে হাতানো যায়। ঝোপ বুঝে কোপ, তার পরই পাখি ফুড়ুত্। মেঘনার রূপের জাল বিস্তার ছিল নয়ডা থেকে কেরল পর্যন্ত। এক এক করে ১১ জনকে তাঁর রূপের ফাঁদে ফেলে হাতিয়ে নেয় লাখ লাখ টাকা আর গয়না।এ রকমই কেরলের এক ব্যক্তি লরেন জাস্টিনকে ফাঁদে ফেলে মেঘনা। বিয়ের কয়েক দিনের মধ্যে ১৫ লক্ষ টাকার গয়না নিয়ে উধাও হয়ে যায় সে। জাস্টিন পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেন। কেরলে এ রকম বেশ কয়েকটি অভিযোগ আগেই পুলিশের কাছে জমা পড়েছিল। কিন্তু নাগালে পাচ্ছিল না অপরাধীকে। খোঁজ নিয়ে পুলিশ জানতে পারে নয়ডাতেও এ রকম কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে। আর প্রতিটি ঘটনার সঙ্গে মিল রয়েছে। কেরল পুলিশ নয়ডা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে। শুরু হয় যৌথ তল্লাশি। তল্লাশি অভিযানে নেমে পুলিশের হাতে মহেন্দ্র নামে এক যুবকের নাম। তাঁর খোঁজ নিয়ে গতিবিধির উপর নজর রাখতে শুরু করে পুলিশ। সুযোগ বুঝে তাঁকে ফাঁদে ফেলে গ্রেফতার করা হয়। মেঘনার ডান হাত গ্রেফতার হতেই আসল গল্প বেরিয়ে আসে। পুলিশ জানিয়েছে, জেরায় মহেন্দ্র তাদের জানায় সে-ই নাকি মেঘনার জন্য বিত্তবান অসহায় পুরুষদের খুঁজে দিত। বিয়ের পর মেঘনা পানীয়ের সঙ্গে মাদক মিশিয়ে তাঁর ‘স্বামী’দের খাওয়াত। তার পরই সব কিছু হাতিয়ে পগারপার। এই মহেন্দ্রকেই জেরা করে মেঘনার খোঁজ পায় পুলিশ। তার নয়ডার ফ্ল্যাটে হানা দিয়ে মেঘনাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতার করা হয় তার দিদি-জামাইবাবুকেও। জেরায় মেঘনা জানিয়েছে, সে চার জনকে বিয়ে করেছে। তবে বাকি বিয়ের কথা অস্বীকার করে। তার দাবি, কাউকে প্রতারিক করেনি সে। বিয়ের পরই ‘স্বামী’দের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হওয়ায় তাঁদের ছেড়ে চলে আসেন। সুত্রঃ আনন্দবাজার পত্রিকা

Comments

Comments!

 ১১ ‘স্বামী’কে প্রতারিত করে পুলিশের জালে সুন্দরীAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

১১ ‘স্বামী’কে প্রতারিত করে পুলিশের জালে সুন্দরী

Sunday, December 18, 2016 8:47 pm
333

একটা, দু’টো নয়, একেবারে ১১ জনকে বিয়ে করে তাঁদের টাকাপয়সা, গয়না হাতিয়ে পালাত ২৩ বছরের সুদর্শনা মেঘা। বেশ কয়েকটি অভিযোগ পাওয়ার পর এই ‘সুন্দরী পাখি’ ধরতে জাল পাতে পুলিশ। কিন্তু তিনি এতটাই ধুরন্দর যে দুঁদে পুলিশ অফিসারদেরও নাকানি চোবানি খেতে হয়েছে মেঘার কাছে।

সোনম কপূরের অভিনীত ‘ডলি কি ডোলি’ ছবিটা মনে আছে তো? ঠিক সে রকমই ফিল্মি কায়দায় অসহায় পুরুষদের শিকার বানানোর জন্য ফাঁদ পাতত মেঘা।

নয়ডার বাসিন্দা মেঘনা ভার্গব। থাকে দিদি আর জামাইবাবুর সঙ্গে। সেখান থেকে পাড়ি দেয় কেরলে। শিকারের খোঁজে নেমে পড়ে সে। পুলিশ জানিয়েছে, তাকে এই কাজে সাহায্য করত মহেন্দ্র নামে এক যুবক। সে খুঁজে খুঁজে সেই পুরুষের খবর দিত মেঘনাকে যাঁদের বয়স হয়ে গিয়েছে, অথচ বিয়ে হয়নি, ডিভোর্সি পাত্র। আবার যাঁদের গায়ের রং কালো, ভাল পাত্রী পাচ্ছেন না। এমনকী শারীরিক ভাবে অক্ষম পুরুষদের কাছে নিজের রূপের ললনায় মন ভুলিয়ে বিয়ের প্রস্তাব দিত। তবে খেয়াল রাখত এরা সবাই বিত্তবান কিনা! সেই বুঝেই সে দিকে পা বাড়াত মেঘনা।

প্রথমে তাঁদের সঙ্গে আলাপ জমাত, তার পর বিয়ের প্রস্তাব। বিয়ে করার পরই সুযোগ খুঁজত গয়না কী ভাবে হাতানো যায়। ঝোপ বুঝে কোপ, তার পরই পাখি ফুড়ুত্। মেঘনার রূপের জাল বিস্তার ছিল নয়ডা থেকে কেরল পর্যন্ত। এক এক করে ১১ জনকে তাঁর রূপের ফাঁদে ফেলে হাতিয়ে নেয় লাখ লাখ টাকা আর গয়না।এ রকমই কেরলের এক ব্যক্তি লরেন জাস্টিনকে ফাঁদে ফেলে মেঘনা। বিয়ের কয়েক দিনের মধ্যে ১৫ লক্ষ টাকার গয়না নিয়ে উধাও হয়ে যায় সে। জাস্টিন পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেন। কেরলে এ রকম বেশ কয়েকটি অভিযোগ আগেই পুলিশের কাছে জমা পড়েছিল। কিন্তু নাগালে পাচ্ছিল না অপরাধীকে। খোঁজ নিয়ে পুলিশ জানতে পারে নয়ডাতেও এ রকম কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে। আর প্রতিটি ঘটনার সঙ্গে মিল রয়েছে। কেরল পুলিশ নয়ডা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে। শুরু হয় যৌথ তল্লাশি। তল্লাশি অভিযানে নেমে পুলিশের হাতে মহেন্দ্র নামে এক যুবকের নাম। তাঁর খোঁজ নিয়ে গতিবিধির উপর নজর রাখতে শুরু করে পুলিশ। সুযোগ বুঝে তাঁকে ফাঁদে ফেলে গ্রেফতার করা হয়। মেঘনার ডান হাত গ্রেফতার হতেই আসল গল্প বেরিয়ে আসে। পুলিশ জানিয়েছে, জেরায় মহেন্দ্র তাদের জানায় সে-ই নাকি মেঘনার জন্য বিত্তবান অসহায় পুরুষদের খুঁজে দিত। বিয়ের পর মেঘনা পানীয়ের সঙ্গে মাদক মিশিয়ে তাঁর ‘স্বামী’দের খাওয়াত। তার পরই সব কিছু হাতিয়ে পগারপার।

এই মহেন্দ্রকেই জেরা করে মেঘনার খোঁজ পায় পুলিশ। তার নয়ডার ফ্ল্যাটে হানা দিয়ে মেঘনাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতার করা হয় তার দিদি-জামাইবাবুকেও। জেরায় মেঘনা জানিয়েছে, সে চার জনকে বিয়ে করেছে। তবে বাকি বিয়ের কথা অস্বীকার করে। তার দাবি, কাউকে প্রতারিক করেনি সে। বিয়ের পরই ‘স্বামী’দের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হওয়ায় তাঁদের ছেড়ে চলে আসেন।

সুত্রঃ আনন্দবাজার পত্রিকা

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X