রবিবার, ১৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৬ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৩:১৮
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, October 2, 2017 10:51 pm
A- A A+ Print

১৫৩ আসনে নির্বাচনের বৈধতা সংক্রান্ত মামলা শোনার কথা ছিল প্রধান বিচারপতির- খন্দকার মাহবুব

1506956986

ঢাকা: সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছেন, প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা রেওয়াজ অনুযায়ী কোর্ট খোলার দিন চা-চক্রের মিলনমেলায় আমাদের উপস্থিত থাকার জন্য দাওয়াত দিয়েছিলেন। এখন তার ছুটি চাওয়াটা স্বাভাবিক নয়। এর পেছনে অন্য কোনও কারণ আছে। আজ বেসরকারি টিভি চ্যানেল- ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভি'র সঙ্গে দেয়া এক সাক্ষাতকারে অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব একথা বলেন। খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, কোর্ট খোলার পর ১৫৩ আসনে বিনাভোটে নির্বাচনের বৈধতা সংক্রান্ত মামলার শুনানি হওয়ার কথা। প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা এই শুনানি শোনার কথা ছিল। তাই প্রধান বিচারপতির হঠাৎ এই ছুটির ব্যাপারে অন্য কোনও কারণ আছে বলে আমরা মনে করছি। তিনি বলেন, প্রধান বিচারপতি এখন কী অবস্থায় আছেন তাও আমরা জানি না। তিনি বলেন, সুপ্রিমকোর্টের ঐতিহ্য অনুযায়ী আগামীকাল চা-চক্রে সকল জাস্টিস এবং আমরা সিনিয়র আইনজীবীরা আমন্ত্রিত ছিলাম...। কিন্তু হঠাৎ করে উনি (প্রধান বিচারপতি) এক মাসের ছুটির আবেদন কেন করলেন? এর পিছনে হয়তো অন্যকোনও কারণ আছে। তিনি বলেন, এর  আগে ৫ জানুয়ারি (২০১৪) ভোটারবিহীন নির্বাচন হয়েছিল। সেখানে ১৫৩জন বিনাভোটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। সেটির বৈধতা নিয়ে সুপ্রিমকোর্টে মামলা বিচারাধীন রয়েছে। আপিল বিভাগে সেটি শুনানি হওয়ার কথা ছিল। সেই শুনানিটি যাতে উনি করতে না পারেন, সে কারণেই তাকে হয়তোবা চাপের মুখে ছুটির আবেদন করতে হয়েছে। চা-চক্রের দাওয়াত প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার পক্ষ থেকেই করা হয়েছিল কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, অবশ্যই তার তরফ থেকেই দাওয়াত দেয়া হয়েছিল। ১৫৩ জন সংসদ সদস্যের বৈধতা নিয়ে করা রিটের শুনানির সময় প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যেহেতু এটা সাংবিধানিক পয়েন্ট তাই আমার মনে হয় ৭ দিনে শেষ হয়ে যেত। ৭ দিনে আসলে সম্ভব কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আপিল বিভাগে শুনানির জন্য রয়েছে। ৭-৮ দিন অথবা সর্বোচ্চ ১ মাস লাগত। তিনি যাতে শুনানি নেয়ার সুযোগ না পান সে কারণেই এ দীর্ঘ ছুটির ব্যবস্থা করা হয়েছে খন্দকার মাহবুব বলেন, উনি কেন হঠাৎ করে এক মাসের ছুটিতে যাবেন, এটাই তো রহস্য। আইনজীবীদের মিলন মেলা আগামীকাল হবে কিনা তা এখনই বলা যাচ্ছে না, বলেন খন্দকার মাহবুব।

Comments

Comments!

 ১৫৩ আসনে নির্বাচনের বৈধতা সংক্রান্ত মামলা শোনার কথা ছিল প্রধান বিচারপতির- খন্দকার মাহবুবAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

১৫৩ আসনে নির্বাচনের বৈধতা সংক্রান্ত মামলা শোনার কথা ছিল প্রধান বিচারপতির- খন্দকার মাহবুব

Monday, October 2, 2017 10:51 pm
1506956986

ঢাকা: সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছেন, প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা রেওয়াজ অনুযায়ী কোর্ট খোলার দিন চা-চক্রের মিলনমেলায় আমাদের উপস্থিত থাকার জন্য দাওয়াত দিয়েছিলেন। এখন তার ছুটি চাওয়াটা স্বাভাবিক নয়। এর পেছনে অন্য কোনও কারণ আছে।
আজ বেসরকারি টিভি চ্যানেল- ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভি’র সঙ্গে দেয়া এক সাক্ষাতকারে অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব একথা বলেন।
খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, কোর্ট খোলার পর ১৫৩ আসনে বিনাভোটে নির্বাচনের বৈধতা সংক্রান্ত মামলার শুনানি হওয়ার কথা। প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা এই শুনানি শোনার কথা ছিল। তাই প্রধান বিচারপতির হঠাৎ এই ছুটির ব্যাপারে অন্য কোনও কারণ আছে বলে আমরা মনে করছি। তিনি বলেন, প্রধান বিচারপতি এখন কী অবস্থায় আছেন তাও আমরা জানি না।
তিনি বলেন, সুপ্রিমকোর্টের ঐতিহ্য অনুযায়ী আগামীকাল চা-চক্রে সকল জাস্টিস এবং আমরা সিনিয়র আইনজীবীরা আমন্ত্রিত ছিলাম…। কিন্তু হঠাৎ করে উনি (প্রধান বিচারপতি) এক মাসের ছুটির আবেদন কেন করলেন? এর পিছনে হয়তো অন্যকোনও কারণ আছে।

তিনি বলেন, এর  আগে ৫ জানুয়ারি (২০১৪) ভোটারবিহীন নির্বাচন হয়েছিল। সেখানে ১৫৩জন বিনাভোটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। সেটির বৈধতা নিয়ে সুপ্রিমকোর্টে মামলা বিচারাধীন রয়েছে। আপিল বিভাগে সেটি শুনানি হওয়ার কথা ছিল। সেই শুনানিটি যাতে উনি করতে না পারেন, সে কারণেই তাকে হয়তোবা চাপের মুখে ছুটির আবেদন করতে হয়েছে।

চা-চক্রের দাওয়াত প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার পক্ষ থেকেই করা হয়েছিল কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, অবশ্যই তার তরফ থেকেই দাওয়াত দেয়া হয়েছিল।

১৫৩ জন সংসদ সদস্যের বৈধতা নিয়ে করা রিটের শুনানির সময় প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যেহেতু এটা সাংবিধানিক পয়েন্ট তাই আমার মনে হয় ৭ দিনে শেষ হয়ে যেত।

৭ দিনে আসলে সম্ভব কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আপিল বিভাগে শুনানির জন্য রয়েছে। ৭-৮ দিন অথবা সর্বোচ্চ ১ মাস লাগত। তিনি যাতে শুনানি নেয়ার সুযোগ না পান সে কারণেই এ দীর্ঘ ছুটির ব্যবস্থা করা হয়েছে

খন্দকার মাহবুব বলেন, উনি কেন হঠাৎ করে এক মাসের ছুটিতে যাবেন, এটাই তো রহস্য।

আইনজীবীদের মিলন মেলা আগামীকাল হবে কিনা তা এখনই বলা যাচ্ছে না, বলেন খন্দকার মাহবুব।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X