শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:১১
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, November 7, 2016 10:04 pm
A- A A+ Print

৩ লাখ টাকার চেক ৩১ লাখ বানিয়ে আত্মসাৎ : পাবনায় সোনালী ব্যাংকের ৩ কর্মকর্তা গ্রেপ্তার

photo-1478526906

তিন লাখ টাকার চেক ৩১ লাখ টাকা বানিয়ে উত্তোলন করে আত্মসাতের অভিযোগে পাবনা সোনালী ব্যাংকের তিন কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। আজ সোমবার দুপুর ১টার দিকে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার হওয়া তিনজন হলেন সোনালী ব্যাংকের পাবনা প্রধান শাখার প্রিন্সিপাল অফিসার ও ম্যানেজার আবদুস সালাম, সাবেক কর্মকর্তা অরূপ কুমার ভট্টাচার্য ও সোনালী ব্যাংক পাবনা জেলা বোর্ড শাখার সাবেক প্রিন্সিপাল অফিসার ও ম্যানেজার দেলোয়ার হোসেন। দুদক পাবনার আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপপরিচালক আবু বকর সিদ্দিক জানান, ২০১০ সালের ৩ মার্চ থেকে ২০১১ সালের ১৯ জানুয়ারি পর্যন্ত গ্রেপ্তার হওয়া ব্যাংক কর্মকর্তারা সোনালী ব্যাংক জেলা বোর্ড শাখা থেকে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের তৎকালীন নির্বাহী প্রকৌশলী গোলাম কিবরিয়ার নামে পরিচালিত একটি অ্যাকাউন্ট থেকে জালিয়াতির মাধ্যমে তিন লাখ ১০ হাজার ৬৪০ টাকার চেকে টাকার অঙ্ক পরিবর্তন করে জালিয়াতির মাধ্যমে ৩১ লাখ ৪০ হাজার ৬৪০ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন। এলজিইডি পাবনার সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী গোলাম কিবরিয়া, প্রকল্প সমন্বয়কারী মাসুদ রানা ও অফিস সহকারী তাজনুন্নাহারের যোগসাজশে আটক তিন ব্যাংক কর্মকর্তা ২৩টি চেকের মাধ্যমে এই টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন। এ ঘটনায় ২০১৪ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি ছয়জনকে আসামি করে পাবনা সদর থানায় একটি মামলা দায়ের হয়। মামলার দীর্ঘ তদন্ত শেষে কর্মকর্তাদের আজ দুপুরে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুদক পাবনা কার্যালয়ে ডাকা হয়। তাঁদের কথায় গরমিল পাওয়ায় সেখান থেকে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাঁদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়। দুদকের উপপরিচালক আরো জানান, মামলায় ছয়জন আসামির মধ্যে এলজিইডি পাবনার প্রকল্প সমন্বয়কারী মাসুদ রানা ও অফিস সহকারী তাজনুন্নাহার আগেই গ্রেপ্তার হয়েছেন। এ নিয়ে তিন ব্যাংক কর্মকর্তাসহ মোট পাঁচজন গ্রেপ্তার হলেন। তবে মামলার অপর আসামি এলজিইডির সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী বর্তমানে তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী গোলাম কিবরিয়া এখনো পলাতক।

Comments

Comments!

 ৩ লাখ টাকার চেক ৩১ লাখ বানিয়ে আত্মসাৎ : পাবনায় সোনালী ব্যাংকের ৩ কর্মকর্তা গ্রেপ্তারAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

৩ লাখ টাকার চেক ৩১ লাখ বানিয়ে আত্মসাৎ : পাবনায় সোনালী ব্যাংকের ৩ কর্মকর্তা গ্রেপ্তার

Monday, November 7, 2016 10:04 pm
photo-1478526906

তিন লাখ টাকার চেক ৩১ লাখ টাকা বানিয়ে উত্তোলন করে আত্মসাতের অভিযোগে পাবনা সোনালী ব্যাংকের তিন কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। আজ সোমবার দুপুর ১টার দিকে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার হওয়া তিনজন হলেন সোনালী ব্যাংকের পাবনা প্রধান শাখার প্রিন্সিপাল অফিসার ও ম্যানেজার আবদুস সালাম, সাবেক কর্মকর্তা অরূপ কুমার ভট্টাচার্য ও সোনালী ব্যাংক পাবনা জেলা বোর্ড শাখার সাবেক প্রিন্সিপাল অফিসার ও ম্যানেজার দেলোয়ার হোসেন।

দুদক পাবনার আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপপরিচালক আবু বকর সিদ্দিক জানান, ২০১০ সালের ৩ মার্চ থেকে ২০১১ সালের ১৯ জানুয়ারি পর্যন্ত গ্রেপ্তার হওয়া ব্যাংক কর্মকর্তারা সোনালী ব্যাংক জেলা বোর্ড শাখা থেকে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের তৎকালীন নির্বাহী প্রকৌশলী গোলাম কিবরিয়ার নামে পরিচালিত একটি অ্যাকাউন্ট থেকে জালিয়াতির মাধ্যমে তিন লাখ ১০ হাজার ৬৪০ টাকার চেকে টাকার অঙ্ক পরিবর্তন করে জালিয়াতির মাধ্যমে ৩১ লাখ ৪০ হাজার ৬৪০ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন। এলজিইডি পাবনার সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী গোলাম কিবরিয়া, প্রকল্প সমন্বয়কারী মাসুদ রানা ও অফিস সহকারী তাজনুন্নাহারের যোগসাজশে আটক তিন ব্যাংক কর্মকর্তা ২৩টি চেকের মাধ্যমে এই টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন।

এ ঘটনায় ২০১৪ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি ছয়জনকে আসামি করে পাবনা সদর থানায় একটি মামলা দায়ের হয়। মামলার দীর্ঘ তদন্ত শেষে কর্মকর্তাদের আজ দুপুরে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুদক পাবনা কার্যালয়ে ডাকা হয়। তাঁদের কথায় গরমিল পাওয়ায় সেখান থেকে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাঁদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

দুদকের উপপরিচালক আরো জানান, মামলায় ছয়জন আসামির মধ্যে এলজিইডি পাবনার প্রকল্প সমন্বয়কারী মাসুদ রানা ও অফিস সহকারী তাজনুন্নাহার আগেই গ্রেপ্তার হয়েছেন। এ নিয়ে তিন ব্যাংক কর্মকর্তাসহ মোট পাঁচজন গ্রেপ্তার হলেন। তবে মামলার অপর আসামি এলজিইডির সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী বর্তমানে তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী গোলাম কিবরিয়া এখনো পলাতক।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X