মঙ্গলবার, ২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৬:১১
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, January 16, 2017 11:47 pm
A- A A+ Print

৫০০ শিশুকে ধর্ষণ করেছেন এক দরজি!

5221f76b49d70-rape

পুলিশের কাছে বিস্ফোরক জবানবন্দি দিয়েছেন ৩৮ বছর বয়সী এক ব্যক্তি। পেশায় দরজি সুনীল রাস্তোগি নামের ওই ব্যক্তি নাকি গত ১২ বছরে অন্তত ৫০০ স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করেছেন। শুধু তাই নয়, সুনীল প্রায় আড়াই হাজার শিশুকে যৌন নির্যাতনের চেষ্টা করেছিলেন। আজ সোমবার টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, গত শনিবার দিল্লির কল্যাণপুরী থেকে পুলিশ সুনীলকে গ্রেপ্তার করেছে। তাঁর বাড়ি উত্তর প্রদেশের রামপুরে। পুলিশ জানায়, জিজ্ঞাসাবাদে সুনীল স্বীকার করেন গত ১২ বছরে তিনি অন্তত আড়াই হাজার স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে যৌন নির্যাতনের চেষ্টা করেছিলেন। এ সব ঘটনার কারণে ২০০৬ সালে উত্তরাখণ্ডের রুদ্রপুরে তিনি ছয় মাসের কারাভোগ করলেন। সুনীল কিছুদিন পূর্ব দিল্লিতে দরজির কাজ করতেন। তিনি দিল্লি, উত্তর প্রদেশের পশ্চিমাঞ্চল ও উত্তরাখণ্ডের স্কুল থেকে ছুটির পর বাড়ি ফেরা মেয়েদের যৌন নির্যাতনের চেষ্টা করতেন। টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়, দিল্লি পুলিশ সুনীলের বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত যৌন নির্যাতনের ছয়টি মামলার হদিস পেয়েছে। এর মধ্যে দিল্লিতে তিনটি, রুদ্রপুরে দুটি ও একটি মামলা বিলাসপুর জেলায় হয়েছে। ২০০৪ সালে প্রতিবেশীর এক মেয়েকে যৌন নির্যাতনের চেষ্টার অপরাধে ময়ূর বিহার এলাকা থেকে পরিবারসহ সুনীলকে বের করে দেওয়া হয়। সম্প্রতি স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে ১০ বছর বয়সী এক মেয়েকে যৌন নির্যাতন করেন সুনীল। এই অভিযোগে গত ১৩ ডিসেম্বর থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করার প্রক্রিয়া শুরু হয়। এ ছাড়া ১২ জানুয়ারি নিউ অশোক নগর থানায় অভিযোগ করে যৌন নির্যাতনের শিকার দুই মেয়ে। এই অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে সুনীলকে গত শনিবার গ্রেপ্তার করে পুলিশ। যৌন হেনস্তার শিকার নয় ও ১০ বছর বয়সী দুই স্কুল শিক্ষার্থীর অভিযোগ, তারা প্রাইভেট পড়া শেষে বাড়ি ফিরছিল। এমন সময় দরজি সুনীল তাদের নতুন পোশাক দেওয়ার লোভ দেখিয়ে নির্মাণাধীন একটি ভবনের সিঁড়ির পেছনে নিয়ে যান। সেখানে তিনি তাদের যৌন নির্যাতনের চেষ্টা চালান। পরে চিৎকার করলে সুনীল পালিয়ে যান। পুলিশের উপকমিশনার অম্ভির সিং বিষ্ণু বলেন, এ ঘটনার পর নিউ অশোক নগর থানার উপপরিদর্শক সন্দীপের নেতৃত্বে একটি দল অভিযান চালায়। পরে তাঁকে কল্যাণপুরীর কদলি গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পুলিশ বলছে, জিজ্ঞাসাবাদে সুনীল স্বীকার করেছেন, ২০০৪ সাল থেকে তিনি শিশু যৌন নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছেন। ১৯৯০ সালে উত্তর প্রদেশ থেকে বাবা-মার সঙ্গে দিল্লি আসেন সুনীল। দরজির কাজ শুরু করেন। এরপর দিল্লি-নদীয়া সীমান্তের ময়ূর বিহার এলাকার কাছে কাজ নেন এবং সেখানেই পরিবার নিয়ে থাকতেন। পরে প্রতিবেশীর এক মেয়েকে যৌন নির্যাতনের চেষ্টার অপরাধে ময়ূর বিহার এলাকা থেকে পরিবারসহ সুনীলকে বিতাড়িত করেন এলাকাবাসী। এরপর তিনি রুদ্রপুরে চলে যান। সেখানে ভাড়া বাসায় বাবা-মাসহ থাকেন। ২০০৬ সালে সেখানে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে ছয় মাসের জেল হয় তাঁর। পরে সেখান থেকেও তাঁদের বিতাড়িত করা হলে বিলাসপুরের বাড়া বাসায় ওঠেন। প্রতি সপ্তাহে একদিন তিনি কাজের খোঁজে দিল্লি আসতেন। এ সময় তিনি স্কুল পড়ুয়া কোনো মেয়েকে লোভ দেখিয়ে নির্জনস্থানে নিয়ে ধর্ষণ করতেন। এতে মেয়েরা চিৎকার করলে তিনি শহর ছেড়ে পালাতেন। মাঝে মাঝে এই মেয়েদের তিনি হুমকিও দিতেন। হিন্দুস্তান টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে প্রথমে সুনীল জানিয়েছেন, এ পর্যন্ত তিনি ১৩ জন স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে ধর্ষণ করেছেন। পরে তিনি জানান, তিনি আসলে ৬০ জন মেয়েকে ধর্ষণ করেছেন। ৬০ জন মেয়েকে ধর্ষণ করার এলাকার নামও বলেছেন তিনি। এ থেকে পুলিশের সন্দেহ হয় যে, সুনীল হয়তো আরও অনেক মেয়েকে ধর্ষণ করেছেন। সুনীল পারিবারিক জীবনে তিন ছেলে ও দুই মেয়ের বাবা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে সুনীল জানিয়েছেন, গত ১৩ বছর ধরে মাসে অন্তত দুবার তিনি দিল্লিতে আসেন এবং সে সময় স্কুল পড়ুয়া মেয়েদের ধর্ষণ করতেন। এই হিসেবে তিনি প্রায় ৩১২ জন মেয়েকে ধর্ষণ করেছেন। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, দিল্লির স্কুলের সামনে দুপুর দুইটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত সুনীল ঘোরাঘুরি করতেন। স্কুল ছুটি হলেই তিনি মেয়েদের পিছু নিতেন। যে মেয়ে পথে একলা হয়ে যেতো তাকে তিনি তার বাবার বন্ধু হিসেবে পরিচয় দিতেন। এরপর ওই মেয়েকে নতুন জামা দেওয়ার লোভ দেখিয়ে নির্জন স্থানে নিয়ে ধর্ষণ করতেন। জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে সুনীল বলেছেন, তিনি যেহেতু নিয়মিত মেয়েদের ধর্ষণ করেন, তাই তিনি এই মুহূর্তে মনে করতে পারছেন না যে, ঠিক কতজন মেয়েকে তিনি ধর্ষণ করেছেন। পুলিশের উপকমিশনার অম্ভির সিং বলেছেন, এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে।  
২০১৬ সালে শুধু দিল্লিতেই শিশু যৌন নির্যাতনের চিত্র গত বছরের ২৪ ডিসেম্বর ১০ বছর বয়সী এক মেয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালান ৬০ বছর বয়সী একজন অটোরিকশা চালক। ১৬ ডিসেম্বর দিল্লির খাজুরি খাস এলাকা থেকে ১৩ বছর বয়সী এক মেয়েকে অপহরণ করে একটি দোকানের ভেতর গণধর্ষণের চেষ্টা চালায় দুই ব্যক্তি। ২১ নভেম্বর দিল্লির কেশবপুরম এলাকা থেকে চার বছর বয়সী এক মেয়ের মৃতদেহ উদ্ধার হয়। পুলিশ জানিয়েছে, মেয়েটি ধর্ষণের শিকার। ৩ সেপ্টেম্বর দিল্লির পশ্চিমাঞ্চলীয় বিকাশপুরী এলাকায় ১১ মাস বয়সী এক শিশুকে অপহরণ করে ধর্ষণ করে তার এক প্রতিবেশী। ২৫ জুলাই দিল্লি শাহবাদ ডেইরি এলাকায় চার বছর বয়সী এক মেয়েকে অপহরণ করে ধর্ষণ করে তার ২৮ বছর বয়সী এক প্রতিবেশী। গুরুতর আহত অবস্থায় শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। এ ঘটনায় ধর্ষক জুনাইদকে গ্রেপ্তার করা হয়। ২৩ জুলাই দিল্লির উত্তরাঞ্চলীয় বুরারি এলাকায় ১৪ বছর বয়সী এক দলিত শ্রেণির কিশোরীকে ধর্ষণ করে তার প্রতিবেশী। তাকে টানা কয়েক দিন ধর্ষণের পর জোর করে এমন কিছু খাওয়ানো হয় যাতে তার ভেতরের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পরে হাসপাতালে ওই কিশোরীর মৃত্যু হয়। ২৫ মে দিল্লির দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলীয় পুল প্রহ্লাদপুরে ১৩ বছরের এক কিশোরীকে অপহরণের পর ধর্ষণ করে রেলওয়ের ওপর ফেলে রেখে যান তার প্রতিবেশী।

Comments

Comments!

 ৫০০ শিশুকে ধর্ষণ করেছেন এক দরজি!AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

৫০০ শিশুকে ধর্ষণ করেছেন এক দরজি!

Monday, January 16, 2017 11:47 pm
5221f76b49d70-rape

পুলিশের কাছে বিস্ফোরক জবানবন্দি দিয়েছেন ৩৮ বছর বয়সী এক ব্যক্তি। পেশায় দরজি সুনীল রাস্তোগি নামের ওই ব্যক্তি নাকি গত ১২ বছরে অন্তত ৫০০ স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করেছেন। শুধু তাই নয়, সুনীল প্রায় আড়াই হাজার শিশুকে যৌন নির্যাতনের চেষ্টা করেছিলেন।

আজ সোমবার টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, গত শনিবার দিল্লির কল্যাণপুরী থেকে পুলিশ সুনীলকে গ্রেপ্তার করেছে। তাঁর বাড়ি উত্তর প্রদেশের রামপুরে।

পুলিশ জানায়, জিজ্ঞাসাবাদে সুনীল স্বীকার করেন গত ১২ বছরে তিনি অন্তত আড়াই হাজার স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে যৌন নির্যাতনের চেষ্টা করেছিলেন। এ সব ঘটনার কারণে ২০০৬ সালে উত্তরাখণ্ডের রুদ্রপুরে তিনি ছয় মাসের কারাভোগ করলেন। সুনীল কিছুদিন পূর্ব দিল্লিতে দরজির কাজ করতেন। তিনি দিল্লি, উত্তর প্রদেশের পশ্চিমাঞ্চল ও উত্তরাখণ্ডের স্কুল থেকে ছুটির পর বাড়ি ফেরা মেয়েদের যৌন নির্যাতনের চেষ্টা করতেন।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়, দিল্লি পুলিশ সুনীলের বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত যৌন নির্যাতনের ছয়টি মামলার হদিস পেয়েছে। এর মধ্যে দিল্লিতে তিনটি, রুদ্রপুরে দুটি ও একটি মামলা বিলাসপুর জেলায় হয়েছে। ২০০৪ সালে প্রতিবেশীর এক মেয়েকে যৌন নির্যাতনের চেষ্টার অপরাধে ময়ূর বিহার এলাকা থেকে পরিবারসহ সুনীলকে বের করে দেওয়া হয়। সম্প্রতি স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে ১০ বছর বয়সী এক মেয়েকে যৌন নির্যাতন করেন সুনীল। এই অভিযোগে গত ১৩ ডিসেম্বর থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করার প্রক্রিয়া শুরু হয়। এ ছাড়া ১২ জানুয়ারি নিউ অশোক নগর থানায় অভিযোগ করে যৌন নির্যাতনের শিকার দুই মেয়ে। এই অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে সুনীলকে গত শনিবার গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

যৌন হেনস্তার শিকার নয় ও ১০ বছর বয়সী দুই স্কুল শিক্ষার্থীর অভিযোগ, তারা প্রাইভেট পড়া শেষে বাড়ি ফিরছিল। এমন সময় দরজি সুনীল তাদের নতুন পোশাক দেওয়ার লোভ দেখিয়ে নির্মাণাধীন একটি ভবনের সিঁড়ির পেছনে নিয়ে যান। সেখানে তিনি তাদের যৌন নির্যাতনের চেষ্টা চালান। পরে চিৎকার করলে সুনীল পালিয়ে যান।

পুলিশের উপকমিশনার অম্ভির সিং বিষ্ণু বলেন, এ ঘটনার পর নিউ অশোক নগর থানার উপপরিদর্শক সন্দীপের নেতৃত্বে একটি দল অভিযান চালায়। পরে তাঁকে কল্যাণপুরীর কদলি গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পুলিশ বলছে, জিজ্ঞাসাবাদে সুনীল স্বীকার করেছেন, ২০০৪ সাল থেকে তিনি শিশু যৌন নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছেন। ১৯৯০ সালে উত্তর প্রদেশ থেকে বাবা-মার সঙ্গে দিল্লি আসেন সুনীল। দরজির কাজ শুরু করেন। এরপর দিল্লি-নদীয়া সীমান্তের ময়ূর বিহার এলাকার কাছে কাজ নেন এবং সেখানেই পরিবার নিয়ে থাকতেন। পরে প্রতিবেশীর এক মেয়েকে যৌন নির্যাতনের চেষ্টার অপরাধে ময়ূর বিহার এলাকা থেকে পরিবারসহ সুনীলকে বিতাড়িত করেন এলাকাবাসী। এরপর তিনি রুদ্রপুরে চলে যান। সেখানে ভাড়া বাসায় বাবা-মাসহ থাকেন। ২০০৬ সালে সেখানে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে ছয় মাসের জেল হয় তাঁর। পরে সেখান থেকেও তাঁদের বিতাড়িত করা হলে বিলাসপুরের বাড়া বাসায় ওঠেন। প্রতি সপ্তাহে একদিন তিনি কাজের খোঁজে দিল্লি আসতেন। এ সময় তিনি স্কুল পড়ুয়া কোনো মেয়েকে লোভ দেখিয়ে নির্জনস্থানে নিয়ে ধর্ষণ করতেন। এতে মেয়েরা চিৎকার করলে তিনি শহর ছেড়ে পালাতেন। মাঝে মাঝে এই মেয়েদের তিনি হুমকিও দিতেন।

হিন্দুস্তান টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে প্রথমে সুনীল জানিয়েছেন, এ পর্যন্ত তিনি ১৩ জন স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে ধর্ষণ করেছেন। পরে তিনি জানান, তিনি আসলে ৬০ জন মেয়েকে ধর্ষণ করেছেন। ৬০ জন মেয়েকে ধর্ষণ করার এলাকার নামও বলেছেন তিনি। এ থেকে পুলিশের সন্দেহ হয় যে, সুনীল হয়তো আরও অনেক মেয়েকে ধর্ষণ করেছেন। সুনীল পারিবারিক জীবনে তিন ছেলে ও দুই মেয়ের বাবা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে সুনীল জানিয়েছেন, গত ১৩ বছর ধরে মাসে অন্তত দুবার তিনি দিল্লিতে আসেন এবং সে সময় স্কুল পড়ুয়া মেয়েদের ধর্ষণ করতেন। এই হিসেবে তিনি প্রায় ৩১২ জন মেয়েকে ধর্ষণ করেছেন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, দিল্লির স্কুলের সামনে দুপুর দুইটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত সুনীল ঘোরাঘুরি করতেন। স্কুল ছুটি হলেই তিনি মেয়েদের পিছু নিতেন। যে মেয়ে পথে একলা হয়ে যেতো তাকে তিনি তার বাবার বন্ধু হিসেবে পরিচয় দিতেন। এরপর ওই মেয়েকে নতুন জামা দেওয়ার লোভ দেখিয়ে নির্জন স্থানে নিয়ে ধর্ষণ করতেন। জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে সুনীল বলেছেন, তিনি যেহেতু নিয়মিত মেয়েদের ধর্ষণ করেন, তাই তিনি এই মুহূর্তে মনে করতে পারছেন না যে, ঠিক কতজন মেয়েকে তিনি ধর্ষণ করেছেন।

পুলিশের উপকমিশনার অম্ভির সিং বলেছেন, এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে।

 

২০১৬ সালে শুধু দিল্লিতেই শিশু যৌন নির্যাতনের চিত্র
গত বছরের ২৪ ডিসেম্বর ১০ বছর বয়সী এক মেয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালান ৬০ বছর বয়সী একজন অটোরিকশা চালক। ১৬ ডিসেম্বর দিল্লির খাজুরি খাস এলাকা থেকে ১৩ বছর বয়সী এক মেয়েকে অপহরণ করে একটি দোকানের ভেতর গণধর্ষণের চেষ্টা চালায় দুই ব্যক্তি। ২১ নভেম্বর দিল্লির কেশবপুরম এলাকা থেকে চার বছর বয়সী এক মেয়ের মৃতদেহ উদ্ধার হয়। পুলিশ জানিয়েছে, মেয়েটি ধর্ষণের শিকার। ৩ সেপ্টেম্বর দিল্লির পশ্চিমাঞ্চলীয় বিকাশপুরী এলাকায় ১১ মাস বয়সী এক শিশুকে অপহরণ করে ধর্ষণ করে তার এক প্রতিবেশী। ২৫ জুলাই দিল্লি শাহবাদ ডেইরি এলাকায় চার বছর বয়সী এক মেয়েকে অপহরণ করে ধর্ষণ করে তার ২৮ বছর বয়সী এক প্রতিবেশী। গুরুতর আহত অবস্থায় শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। এ ঘটনায় ধর্ষক জুনাইদকে গ্রেপ্তার করা হয়। ২৩ জুলাই দিল্লির উত্তরাঞ্চলীয় বুরারি এলাকায় ১৪ বছর বয়সী এক দলিত শ্রেণির কিশোরীকে ধর্ষণ করে তার প্রতিবেশী। তাকে টানা কয়েক দিন ধর্ষণের পর জোর করে এমন কিছু খাওয়ানো হয় যাতে তার ভেতরের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পরে হাসপাতালে ওই কিশোরীর মৃত্যু হয়। ২৫ মে দিল্লির দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলীয় পুল প্রহ্লাদপুরে ১৩ বছরের এক কিশোরীকে অপহরণের পর ধর্ষণ করে রেলওয়ের ওপর ফেলে রেখে যান তার প্রতিবেশী।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X