মঙ্গলবার, ২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৬:০৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, October 2, 2017 10:22 am
A- A A+ Print

৭শ’ কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকার পাশে ১০টি মডেল স্কুল হচ্ছে

3

রাজধানীর ভালো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ওপর চাপ কমাতে ঢাকার আশেপাশে ১০টি মডেল স্কুল স্থাপন করতে যাচ্ছে সরকার। রাজধানীর চারপাশ ঘেঁষে এসব স্কুল নির্মাণের ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৭শ’ কোটি টাকা। ২০১৭ জুলাই থেকে ২০২০ সালে মধ্যে এসব স্কুলের নির্মাণ কাজ শেষ হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের একটি দায়িত্বশীল সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। কর্মকর্তারা জানান, ঢাকার পার্শ্ববর্তী এলাকায় ১০টি সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (ষষ্ঠ-১০ম শ্রেণি পর্যন্ত) স্থাপনের জন্য এ সংক্রান্ত ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট প্রপোজাল (ডিপিপি) অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে (একনেক)। পরবর্তী একনেক বৈঠকে এই প্রস্তাব উঠার কথা রয়েছে। এটি পাস হলে রাজধানীর ভালোমানের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ওপর যেমন চাপ কমবে তেমনি শিক্ষার্থীকেন্দ্রিক যে যানজট তৈরি হয় সেটিও অনেকাংশে লাঘব হবে। ডিপিপি প্রস্তাবিত স্কুলগুলোতে সব ধরনের আধুনিক সুযোগ সুবিধা রাখার প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রতিটি ভবন হবে ১০তলা। থাকবে বিজ্ঞানের প্রত্যেকটি বিষয়ের আলাদা ল্যাব, কম্পিউটার ল্যাব, অধ্যক্ষের জন্য দ্বিতল বাসভবন। ডিপিপির তথ্যানুযায়ী, দশ সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের জন্য স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে-নবীনগর, ইপিজেড/আশুলিয়া, ধামরাই, পূর্বাচল, হেমায়েতপুর, জোয়ার সাহারা, সাইন বোর্ড, চিটাগাং রোড, শাহজাদপুর/নূরের চালা, ও ইকুরিয়া/ঝিলমিল এলাকা। ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৬৭৩ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। এসব স্কুলের মাধ্যমে সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিস্তৃতি লাভ করবে এবং এর ফলে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের বাণিজ্যিক শিক্ষা নিরুৎসাহিত হবে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা জানান, ২০৩০ সালের মধ্যে মানসম্পন্ন শিক্ষা নিশ্চিত করার যে এসডিজি-৪ বাস্তবায়নের লক্ষ্য ধরা হয়েছে, সেদিকে এগুচ্ছে সরকার। ২০৩০ সালের জন্য টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) এর চার নম্বরে উল্লেখ করা হয়েছে, মানসম্মত শিক্ষা, অন্তর্ভুক্তিমূলক, সমতাপূর্ণ ও সবার জন্য জীবনব্যাপী শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে। সম্প্রতি সরকার শ্রীমঙ্গলসহ দেশের ৪ বিভাগে ৮টি মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকার প্রকল্পের অংশ হিসেবে চা বাগান অধ্যুষিত সিলেটের শ্রীমঙ্গলসহ দেশের ৪টি বিভাগীয় শহরে আরো ৮টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় হচ্ছে। এজন্য একটি প্রকল্প তৈরি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এর আগে সরকার ঢাকায় একটি প্রকল্পের মাধ্যমে ১১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৬টি মহাবিদ্যালয় স্থাপনের কাজ শেষ পর্যায়ে। এই ১৭টি সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দুই/তিনটি প্রতিষ্ঠান নির্মাণ পর্যায়ে রয়েছে। বাকিগুলো নির্মাণ শেষ করে একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। এগুলোয় সরকার যে পরিমাণ শিক্ষার্থী প্রত্যাশা করেছিল তার চেয়ে বেশি ভর্তি হয়েছে। একই সঙ্গে এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের ব্যাপক চাপও আছে। এর সাফল্যে উজ্জ্বীবিত হয়ে সরকারি আরো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের প্রকল্প নেয়া হচ্ছে বলে জানান প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। সরকারের এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন অভিভাবকরা। তারা বলেন, ঢাকার আশপাশের এলাকার অনেক শিক্ষার্থীকে কয়েকটি স্কুলে পড়তে আসতে হয়। এতে একদিকে তাদের দীর্ঘপথ অতিক্রম করতে হয়। শিক্ষার্থীদের ঢাকামুখী প্রবণতা যানজটেও প্রভাব পড়ে। এ ব্যাপারে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের পরিকল্পনা ও উন্নয়ন উইংয়ের পরিচালক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর মানবজমিনকে বলেন, একনেকে পাস হলে খুব দ্রুতই এ প্রকল্পের কাজ শুরু করতে পারব। এছাড়াও শ্রীমঙ্গলসহ দেশের ৪ জেলায় আরো ৮টি স্কুল স্থাপনের জন্য জমি অধিগ্রহণের কাজ চলছে। জমি পাওয়ার দুই-আড়াই মাসের মধ্যে আমরা কাজ শুরু করে দিতে পারব।

Comments

Comments!

 ৭শ’ কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকার পাশে ১০টি মডেল স্কুল হচ্ছেAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

৭শ’ কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকার পাশে ১০টি মডেল স্কুল হচ্ছে

Monday, October 2, 2017 10:22 am
3

রাজধানীর ভালো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ওপর চাপ কমাতে ঢাকার আশেপাশে ১০টি মডেল স্কুল স্থাপন করতে যাচ্ছে সরকার। রাজধানীর চারপাশ ঘেঁষে এসব স্কুল নির্মাণের ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৭শ’ কোটি টাকা। ২০১৭ জুলাই থেকে ২০২০ সালে মধ্যে এসব স্কুলের নির্মাণ কাজ শেষ হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের একটি দায়িত্বশীল সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। কর্মকর্তারা জানান, ঢাকার পার্শ্ববর্তী এলাকায় ১০টি সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (ষষ্ঠ-১০ম শ্রেণি পর্যন্ত) স্থাপনের জন্য এ সংক্রান্ত ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট প্রপোজাল (ডিপিপি) অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে (একনেক)। পরবর্তী একনেক বৈঠকে এই প্রস্তাব উঠার কথা রয়েছে। এটি পাস হলে রাজধানীর ভালোমানের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ওপর যেমন চাপ কমবে তেমনি শিক্ষার্থীকেন্দ্রিক যে যানজট তৈরি হয় সেটিও অনেকাংশে লাঘব হবে। ডিপিপি প্রস্তাবিত স্কুলগুলোতে সব ধরনের আধুনিক সুযোগ সুবিধা রাখার প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রতিটি ভবন হবে ১০তলা। থাকবে বিজ্ঞানের প্রত্যেকটি বিষয়ের আলাদা ল্যাব, কম্পিউটার ল্যাব, অধ্যক্ষের জন্য দ্বিতল বাসভবন। ডিপিপির তথ্যানুযায়ী, দশ সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের জন্য স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে-নবীনগর, ইপিজেড/আশুলিয়া, ধামরাই, পূর্বাচল, হেমায়েতপুর, জোয়ার সাহারা, সাইন বোর্ড, চিটাগাং রোড, শাহজাদপুর/নূরের চালা, ও ইকুরিয়া/ঝিলমিল এলাকা। ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৬৭৩ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। এসব স্কুলের মাধ্যমে সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিস্তৃতি লাভ করবে এবং এর ফলে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের বাণিজ্যিক শিক্ষা নিরুৎসাহিত হবে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা জানান, ২০৩০ সালের মধ্যে মানসম্পন্ন শিক্ষা নিশ্চিত করার যে এসডিজি-৪ বাস্তবায়নের লক্ষ্য ধরা হয়েছে, সেদিকে এগুচ্ছে সরকার। ২০৩০ সালের জন্য টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) এর চার নম্বরে উল্লেখ করা হয়েছে, মানসম্মত শিক্ষা, অন্তর্ভুক্তিমূলক, সমতাপূর্ণ ও সবার জন্য জীবনব্যাপী শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে। সম্প্রতি সরকার শ্রীমঙ্গলসহ দেশের ৪ বিভাগে ৮টি মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকার প্রকল্পের অংশ হিসেবে চা বাগান অধ্যুষিত সিলেটের শ্রীমঙ্গলসহ দেশের ৪টি বিভাগীয় শহরে আরো ৮টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় হচ্ছে। এজন্য একটি প্রকল্প তৈরি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এর আগে সরকার ঢাকায় একটি প্রকল্পের মাধ্যমে ১১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৬টি মহাবিদ্যালয় স্থাপনের কাজ শেষ পর্যায়ে। এই ১৭টি সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দুই/তিনটি প্রতিষ্ঠান নির্মাণ পর্যায়ে রয়েছে। বাকিগুলো নির্মাণ শেষ করে একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। এগুলোয় সরকার যে পরিমাণ শিক্ষার্থী প্রত্যাশা করেছিল তার চেয়ে বেশি ভর্তি হয়েছে। একই সঙ্গে এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের ব্যাপক চাপও আছে। এর সাফল্যে উজ্জ্বীবিত হয়ে সরকারি আরো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের প্রকল্প নেয়া হচ্ছে বলে জানান প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। সরকারের এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন অভিভাবকরা। তারা বলেন, ঢাকার আশপাশের এলাকার অনেক শিক্ষার্থীকে কয়েকটি স্কুলে পড়তে আসতে হয়। এতে একদিকে তাদের দীর্ঘপথ অতিক্রম করতে হয়। শিক্ষার্থীদের ঢাকামুখী প্রবণতা যানজটেও প্রভাব পড়ে।
এ ব্যাপারে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের পরিকল্পনা ও উন্নয়ন উইংয়ের পরিচালক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর মানবজমিনকে বলেন, একনেকে পাস হলে খুব দ্রুতই এ প্রকল্পের কাজ শুরু করতে পারব। এছাড়াও শ্রীমঙ্গলসহ দেশের ৪ জেলায় আরো ৮টি স্কুল স্থাপনের জন্য জমি অধিগ্রহণের কাজ চলছে। জমি পাওয়ার দুই-আড়াই মাসের মধ্যে আমরা কাজ শুরু করে দিতে পারব।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X